সর্বশেষ
বুধবার ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২১ নভেম্বর ২০১৮

ঈদের টিকেট অনলাইনে

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬

251628399_1472730100.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
প্রতিবছরই ঈদে সোনার হরিণ হয়ে ওঠে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরার টিকেট। ছুটি কাটাতে কেউ কেউ দেশের বাইরেও ভ্রমণ করেন। কিন্তু  এসময় টিকেট পেতে গলদঘর্ম হতে হয়। তবে এই ঝক্কি কমিয়ে দিতে সীমিত পরিসরে শুরু হয়েছে অনলাইন টিকেট সেবা। ট্রেন এবং বাস, লঞ্চ ও এয়ার টিকেট কাটতে তাই যানজট ঠেলে দীর্ঘ সারিতে না দাঁড়ালেও চলবে। ইন্টারনেট সংযোগে ওয়েবসাইটের পাশাপাশি মুঠোফোন থেকেও কাটা যাচ্ছে টিকেট।  
 





বাস-লঞ্চের টিকেট 
অনলাইনে বিভিন্ন রুটের বাস ও লঞ্চের টিকেট সেবা দিচ্ছে বাসবিডি.কম.বিডি (http://busbd.com.bd)   বিডিটিকেটসডটকম (https://www.bdtickets.com/), লঞ্চবিডি.কম (launchbd.com), দেশট্রাভেলসবিডি.কম (http://www.deshtravelsbd.com) ন্যাশনালট্রাভেলস-বিডি.কম http://www.nationaltravels-bd.com/, কিউপে.কম.বিডি (http://qpay.com.bd/), সহজ.কম (https://www.shohoz.com), ইসেবাডটসিএনএসবিডিডটকম ইত্যাদি ওয়েব ঠিকানায়।
 
টিকেট কিনতে ওয়েব পোর্টালগুলোর কোনটি থেকে সরাসরি আবার কোনোটি থেকে নিবন্ধন করে ঈদে বাড়ি ফেরার অগ্রিম এবং ফিরতি টিকেট কাটার সুযোগ রয়েছে। 
 
আকাশ পথের টিকেট
বাসের টিকেটের পাশাপাশি বিক্রয়.কম. (https://bikroy.com) ক্লিকবিডি (http://www.clickbd.com) এর মতো ক্লসিফায়েড ই-কমার্স সাইটেও বিক্রি হচ্ছে আকাশ পথের টিকেট।   
 
বাস-লঞ্চের টিকেট সহজে
ঈদে বাসের টিকেট সেবায় এগিয়ে রয়েছে সহজ.কম (https://www.shohoz.com)। এখান থেকে ওয়েব ছাড়াও মুঠোফোন থেকে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ " Shohoz- Buy Bus Tickets" ব্যবহার করেও টিকেট কাটা যায়। গত ২৫শে আগস্ট থেকে টিকেট হটলাইন (16374) এও কেনা যাচ্ছে। ক্রয় পদ্ধতি ও অন্যান্য সহযোগিতার জন্য আমাদের Facebook Message ও website-এ live chat রয়েছে। তবে ঈদের টিকেটের জন্য Cash on Delivery service থাকছে না। ঈদ, Weekend বা long holidays ছাড়া, discount বহাল রয়েছে। 
 
এই সেবা নিয়ে সহজডটকম প্রধান নির্বাহী মালিহা কাদির বলেন, যাত্রীরা সব সময়ই চন্তিত থাকেন ঈদের টিকেট নিয়ে। ঢাকা শহরের ট্রাফিক জ্যাম সহ নানা ঝামেলা মিটিয়ে কাঙ্ক্ষিত টিকেটটি কেনার জন্য অনেক হয়রানীর স্বীকার হতে হয়। কষ্ট করে কিনতে গিয়েও দেখা যায় টিকেট নেই, আর টিকেট পাওয়া গেলেও হয়তো ভাল সিট নেই। ঝামেলা এড়িয়ে খুব সহজেই সহজ ডট কম এর মাধ্যমে এই সেবাটি দেয়া হচ্ছে। সরকার এবং বাস পরিবহন মালিক সমিতির অনুমোদিত দামে টিকেট বিক্রয় করা হচ্ছে। তবে সাথে সহজ ডট কমের নূন্যতম সার্ভিস চার্জ দিতে হবে। টিকেট কেনার জন্য সহজ ডট কম দিচ্ছে ক্যাশ, মোবাইল ব্যাংকিং, ডেবিট, ক্রেডিট কার্ড এবং বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট করার সুবিধা।
 
এদিকে অনলাইনে টিকেট কেটে ৫০০ টাকার পিকাবু গিফট ভাউচার ঘোষণা করেছে  https://www.bdtickets.com। অনলাইনে লঞ্চের টিকেট বিক্রির জন্য লঞ্চবিডি.কম (launchbd.com) সাইটটি থাকলেও এর পাশাপাশি বিডিটিকেট.কম ও সহজ.কমও এই সেবা দিচ্ছে।  সহজডটকম মেইলে ডিজিটাল টিকেট সরবরাহ করছে গ্রাহককে। 
 
এসব সাইট থেকে টিকেট কিনতে নিবন্ধনের ক্ষেত্রে ইমেইল এবং মোবাইলফোন নম্বর ব্যবহার করতে হয়। এপর ওয়েবসাইটে লগইন করে গন্তব্য, তারিখ ও টিকেটের ধরন ইত্যাদি তথ্য দিয়ে অনলাইন পেমেন্ট বিকাশ, শিওর ক্যাশ, ইউক্যাশ, ভিসা, মাস্টারকার্ড ইত্যাদির মাধ্যমে টিকেটের মূল্য পরিশোধ করতে হয়। 
 
টিকেট সেবায় একটু বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে কিউপে (http://qpay.com.bd/)। এই ওয়েবসাইট থেকে বাসের টিকেট কিনতে প্রথমে রেজিষ্ট্রেশন করতে হয়। নিবন্ধন করলে ইমেইলে একটি পাসওয়ার্ড পাঠানো হয়। তা দিয়ে আপনকে লগইন করতে হবে। তারপর আপনার পছন্দের স্থান, বাস ও সময় নির্ধারণ  করে টিকেট কাটা যাবে। এখন থেকে আপনি সর্বচ্চ ৪ টি সিট বুকিং দিতে পারবেন। টাকা পে করা যাবে ভিসা, মাস্টার, ডাচবাংলা এবং ইউক্যাশ এর মাধ্যমে। টিকেট সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যের জন্য এই সাইটটির রয়েছে ১৬২৪৫ ও ০৯৬৩৩১৬২৪৫ হেল্পলাইন নম্বর। এখান থেকে, হানিফ, ঈগল, শ্যামলী, কেলাইন ইত্যাদি পরিবহনের টিকেট পাওয়া যাচ্ছে। 
 
অনলাইনে ট্রেনের টিকেট
অনলাইনে ট্রেনের আগাম টিকেট কাটার সুবিধা রয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ের অফিসিয়াল টিকেটিং পার্টনার ইসেবা.সিএনএসবিডি.কম (https://www.esheba.cnsbd.com/)। এখান থেকে টিকেট কাটতে হলে ই-মেইলের মাধ্যমে আগে যাত্রীকে নিবন্ধন করতে হয়। মেইলে পাঠানো লিংকে ক্লিক করে ইউজার নেম, পাসওয়ার্ড ও সিকিউরিটি কোড লিখে লগইন করে এখান থেকে টিকেট বুক করা যায়। এজন্য সাইটটিতে লগইন করে ক্লিক করতে হবে চঁৎপযধংব ঞরপশবঃ অংশে। এরপর ভ্রমণের তারিখ, যাত্রা শুরুর স্থান, গন্তব্য, ট্রেনের নাম, আসনের শ্রেণী, টিকিটের সংখ্যা নির্বাচন করে ‘সার্চ’ ক্লিক করতে হবে। আসন খালি থাকলে টিকিট কেনার পরবর্তী ধাপ সম্পন্ন করতে হবে। ভাড়া পরিশোধ করা যাবে ভিসা কার্ড, ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড বা বিকাশ দিয়েই।

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬ (বিডিলাইভ২৪) // এস এ এই লেখাটি ১৬৭৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন