সর্বশেষ
রবিবার ৪ঠা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৮ নভেম্বর ২০১৮

'ব্ল্যাকহোল' মহাকাশের মহাখাদক

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৩, ২০১৬

54024346_1476341106.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
আলোর কণার ওপর মহাকর্ষ বল কীভাবে কাজ করে সেটা বুঝতে অনেক বছর লেগে গেছে। একটা নক্ষত্র যদি যথেষ্ট বড় হয় তার ঘনত্ব যদি নির্দিষ্ট হয় তাহলে তার থেকে যে আলোর কণা নির্গত হয় সেটা সেই নক্ষত্র ছেড়ে বেরিয়ে যেতে পারবে না। নক্ষত্রের মহাকর্ষ বলের প্রভাবে সেটা আবার নক্ষত্রের বুকে ফিরে আসবে। অনেকটা টেনিস বল শূন্যে ছোঁড়ার মতো ব্যাপার। আলোকরশ্মি যদি বেরিয়ে আসতে না পারে, তাহলে সে নক্ষত্র আমাদের দৃষ্টিগোচর হবে না।

এখন প্রশ্ন হলো, ব্ল্যাকহোল যদি নাই দেখা যাবে তবে ব্ল্যাকহোল যে আছে, সে বিষয়টা বিশ্বাস করি কীভাবে? বিশ্বসটা বড় কথা নয়, প্রমাণই আসল।

তাহলে কী ব্ল্যাকহোল থিয়োরি ভুল, নাকি আইনস্টাইনের থিয়োরি..? আসলে কোনোটাই ভুল নয়। এর সমাধান রয়েছে আইনস্টাইনের স্পেশাল থিয়োরি অব রিলেটিভিটিতে। এই থিয়োরিতে আইনস্টাইন বলেছেন, নক্ষত্রের মতো বিশাল ভরের বস্তু পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় আলোকরশ্মি গতিপথ বেঁকে যায়। ব্ল্যাকহোলেও একই ব্যাপার ঘটে। দূরের কোনো নক্ষত্রের আলো ব্ল্যাকহোলের গায়ে এসে পড়বে, সে উপায়ও নেই। ব্ল্যাকহোলের মহাকর্ষ বলের প্রভাবে বেঁকে অন্য দিকে ঘুরে যায় সে আলো, ব্ল্যাকহোলের শরীর স্পর্শ করার সাহস যেনো সেসব আলোর নেই।

মনে করি A (দূর আলোকরশ্মি ) ও B (কাছের আলোকরশ্মি। )। A ব্লাকহোলের মহাকর্ষীয় সীমার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় বেঁকে যাচ্ছে। আর B মহাকর্ষীয় সীমার ভেতরে ঢুকে পড়েছে, কিন্তু বেরুেতে পারছে না। দূরের কোনো নক্ষত্র থেকে এসে ব্ল্যাকহোলের শরীর স্পর্শ করার আগেই বেঁকে যাওয়া সেই আলোকরশ্মিই বিজ্ঞানীদের সাদাছড়ি। বেঁকে যাওয়া এই আলোর গতি-প্রকৃতিই ব্ল্যাকহোলের অস্তিত্বের ঘোষণা দেয়।

একটা মজার তথ্য, আইনস্টাইন যখন তার জেনারেল থিয়োরি অব রিলেটিভিটি প্রকাশ করলেন তখন অনেকেই সেটা গ্রহণ করেনি। তখন প্র্যাকটিক্যালি প্রমাণ করার প্রয়োজন দেখা দিল। তখন একদল বিজ্ঞানী সিদ্ধান্ত নিলেন সেটা পরীক্ষা করে দেখবেন। ওই যে, বিশাল ভরের কোনো বস্তু বা নক্ষত্রের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় আলোর গতিপথ বেঁকে যায়। তো তারা দু'ভাগে বিভক্ত হয়ে বিশ্বের দুই প্রান্তে গেলেন নানা রকম যন্ত্রপাতি নিয়ে। তারপর এক সূর্যগ্রহণের দিন দু'দলই পরীক্ষায় নেমে গেলেন। আলাদা আলাদাভাবে করা এই পরীক্ষায় দুই দলেরই ফল এলো এক। অর্থাৎ আইনস্টাইনের ভবিষ্যদ্বাণীই ঠিক, আর এই পরীক্ষাটুকু করেই ওই বিজ্ঞানীদল রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে গেলেন।

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৩, ২০১৬ (বিডিলাইভ২৪) // এই লেখাটি ৮৯৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন