সর্বশেষ
বুধবার ৩০শে কার্তিক ১৪২৫ | ১৪ নভেম্বর ২০১৮

লড়তে জানে বাংলাদেশের নারী ফুটবল দল

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৫, ২০১৭

500902967_1483599850.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
এই হারে লজ্জা নেই, গ্লানি নেই। মহিলা সাফ ফুটবলের ফাইনালে উঠেই যে ইতিহাস গড়েছিল বাংলাদেশ। শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়ামে উপস্থিত হাজার পাঁচেক দর্শক বিপুল করতালি দিয়েই অভিনন্দিত করল বাংলাদেশের নারী ফুটবল দলকে। সাফের ফাইনালে শক্তিশালী ভারতের কাছে ৩-১ গোলে হেরে গেলেও শিলিগুড়ির দর্শকদের মন যে জয় করেছেন সাবিনা-স্বপ্না-মাইনুরা। তারা দেখিয়ে দিয়েছে ফুটবলে খুব ভালো লড়তে জানে তারা।

অভিজ্ঞতায় নারী ফুটবলে বাংলাদেশের চেয়ে যোজন ব্যবধানে এগিয়ে ভারত। দক্ষতায় পিছিয়ে থাকলেও অদম্য মনোবল আর ভালো খেলার ইচ্ছাশক্তি দিয়ে ব্যবধানটা কমিয়ে নিয়ে এসেছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। গ্রুপ পর্বে রক্ষণাত্মক খেলে ভারতের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করা দলটিই ফাইনালে হয়ে উঠেছিল আক্রমণাত্মক। দারুণ দক্ষতায় ভারতের ফুটবলারদের কাছ থেকে বল কেড়ে বক্সে ঢুকেছে বাংলাদেশের ফরোয়ার্ডরা। ফাইনালে বেশির ভাগ অনূর্ধ্ব-১৬ বয়সী মেয়েদের নিয়ে গড়া বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ছিল গ্যালারির দর্শকও। তুলনামূলক কম অভিজ্ঞ বাংলাদেশের মেয়েদের প্রাণপাত লড়াই মুগ্ধ করেছে সবাইকে।

এত বড় একটা প্রতিযোগিতার ফাইনালে খেলল বাংলাদেশ কিন্তু সেখানে দলকে উৎ​সাহ দিতে বাফুফের কোনো শীর্ষ কর্তাব্যক্তিই ছিলেন না। অথচ, এই মেয়েরাই গৌরব বয়ে নিয়ে আসলে বাফুফে ভবনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে হয়তো টিভি ক্যামেরায় মুখ দেখাতে ব্যস্ত হয়ে পড়তেন কর্মকর্তাদের অনেকে। মঞ্চে কোচ-খেলোয়াড়দের ঠাঁই হতো না তখন, সবার আগে চেয়ার দখল করে বসতেন কর্তা ব্যক্তিরা! নারী উইংয়ের প্রধান অবশ্য ছিলেন মাঠে।

এত বড় প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ দলে ছিল না কোনো মিডিয়া কর্মকর্তা! তবে নিজের আগ্রহে শিলিগুড়িতে এসে কাজ করেছেন বাফুফের মিডিয়া কর্মকর্তা আহসান আহমেদ অমিত।

তবে বাংলাদেশের মেয়েদের ফাইনাল দেখতে রংপুর থেকে শিলিগুড়িতে এসেছিলেন ১১ জনের একটি দল। তাদের মুখে এক কথা, 'দুর্দান্ত খেলেছে আমাদের মেয়েরা।' এই দলে ছিলেন রংপুর সোনালি অতীত ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ফুটবলার রকিবউজ্জামান। তিনি মেয়েদের নিয়ে দারুণ আশাবাদী, 'পেনাল্টি থেকে গোল খাওয়ার পরপরই হতোদ্যম হয়ে পড়ে মেয়েরা। আমি মনে করি এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে আমাদের দল খুব ভালো খেলবে।' সূত্র: প্রথম আলো

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৫, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ৬৮১৩ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন