সর্বশেষ
রবিবার ৮ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সদ্যোজাতের সঙ্গে ভুলেও যেসব কাজ করবেন না

সোমবার, এপ্রিল ৩, ২০১৭

440068700_1491202817.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
প্রিয় বন্ধু বা আপন জনদের পরিবারে নতুন অতিথি এসেছে। আপনি সদ্য খালা-ফুপি বা কাকা-মামা হয়েছেন। এই আনন্দ অনেকেই চেপে রাখতে পারেন না। অতি উৎসাহে দেখতে চলে যান সদ্যোজাতকে। খুশির চোটে এমন কিছু করে ফেলেন যা সদ্যোজাতদের সঙ্গে কখনো করা উচিত নয়। চিকিৎসকেরা কিন্তু এসব ব্যাপারে সাবধান থাকতে বলেন। জেনে নিন এমন পাঁচ কাজ যা সদ্যোজাতদের সঙ্গে করা উচিত নয়।

না বলে দেখতে যাবেন না :
শিশু হাসপাতাল থেকে বাড়ি আসার পর যদি দেখতে যান তা হলে জানিয়ে যাবেন। না জানিয়ে দেখতে চলে যাবেন না। হয়তো তখন  মা শিশুকে খাওয়াচ্ছেন বা অবিন্যস্ত অবস্থায় রয়েছেন। মা হওয়ার পর তাঁর নিজের গুছিয়ে নেওয়ার কিছুটা সময় প্রয়োজন হয়। তাই যতই কাছের বন্ধু হোন না কেন, সব সময় জানিয়ে যান। সঙ্গে অবশ্যই হ্যান্ড স্যানিটাইজার নিয়ে যান। শিশুর ঘরে জুতো পরে ঢুকবেন না।

হাসপাতালে যাবেন না :
প্রিয় বন্ধু বা কাছের কারও সন্তান হয়েছে খবর পেয়েই হাসপাতালে দেখতে চলে যাবেন না। শিশুর জন্মের পর কিছুটা সময় শুধু মায়ের সঙ্গে থাকা উচিত। দ্বিতীয়ত, যত বেশি বাইরের লোক যাওয়া-আসা করবে ততই মা ও শিশুর ইনফেকশনের সম্ভাবনা বাড়বে। তার চেয়ে বরং নতুন বাবা-মাকে জিজ্ঞেস করুন, তাদের কী প্রয়োজন। শিশু বাড়িতে এলে প্রয়োজনীয় জিনিস, খাবার বা উপহার নিয়ে দেখতে যান।

কোলে নেবেন না :
দেখতে গিয়েই শিশুকে কোলে তুলে নেবেন না। বিশেষ করে বাচ্চা যদি ঘুমিয়ে থাকে। ঘুমন্ত বাচ্চাকে কোলে নিতে গেলে ঘুম ভেঙে যেতে পারে। এতে স্বাভাবিক ভাবেই শিশুর মা বিরক্ত হবেন। যদি একান্তই কোলে নিতে ইচ্ছা করে তাহলে মায়ের অনুমতি নিন। কোলে নিলেও শিশুর গালে বা হাতে চুমু খাবেন না।

অসুস্থ থাকলে যাবেন না :
সদ্যোজাতকে দেখার জন্য মন খুব ছটফট করছে। তাই নিজে অসুস্থ থাকা সত্ত্বেও চলে গেলেন, এমনটা ভুলেও করবেন না। শিশুর মা কখনই চাইবেন না তার সন্তানের সামনে বসে আপনি হাঁচুন বা কাশুন। তাই এই অসংবেদনশীল আচরণ করবেন না। সুস্থ হওয়ার পরে হাসপাতালে যাবেন।

ছবি তুলবেন না :
সদ্যোজাত শিশুদের ছবি তোলা উচিত নয়। অযথা ছবি তুলবেন না বা ছবি তোলার জন্য বাবা, মায়ের অনুমতি চাইবেন না। ফ্লাশের আলো শিশুদের জন্য ভাল নয়। অনেক মাস গর্ভে থাকার পর বাইরে এসে এমনিতেই অনেক আলোর মধ্যে পড়তে হয় ওদের। তার চেয়ে বরং অন্য কাজে সাহায্য করুন।

রান্নাঘরে কিছুটা কাজ করে দিলেন বা প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে এনে দিলেন। বাচ্চার দেখ-ভাল করতে গিয়ে অনেক কাজই করার সময় পাওয়া যায় না। সবচেয়ে বড় কথা যদি আপনার কাছে উপদেশ চাওয়া হয় তাহলেই দিন। অযথা উপদেশ দিতে যাবেন না।


ঢাকা, সোমবার, এপ্রিল ৩, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ২৬০৫ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন