সর্বশেষ
মঙ্গলবার ২৯শে কার্তিক ১৪২৫ | ১৩ নভেম্বর ২০১৮

পাটের বাম্পার ফলন পাবনায়

শুক্রবার, জুলাই ২৮, ২০১৭

780898786_1501247910.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :
অনুকূল আবহাওয়া থাকায় সোনালী আঁশ পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে পাবনায়। এ বছর পাবনা জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে পাটের আবাদ বেশি হয়েছে বলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

সুজানগর উপজেলার পাট চাষিরা জানান, এক বিঘা জমি চাষ, বীজ, সার, কীটনাশক ক্রয়, পরিচর্যা, পঁচানি দিতে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গা নেয়ার পরিবহন খরচ থেকে শুরু করে পাট ছাড়ানো ও রোদে শুকিয়ে ঘরে তোলা পর্যন্ত প্রায় ১৬ থেকে ১৮ হাজার টাকা ব্যয় হবে।

পাবনার চাটমোহর উপজেলার ডিবিগ্রামের পান্তিক চাষী ইজাবত আলী জানান, ন্যায্য দামে পাট বিক্রি করে সংসারের চাকা সচল রাখার পাশাপাশি ছেলেমেয়ের পড়ালেখার খরচ যোগাবেন তিনি। তাই প্রতিমণ পাট দুই হাজার টাকা দরে বিক্রির আশা তার। এ বছর তিনি তিন বিঘা জমিতে পাটচাষ করেছেন।

দেখা যাচ্ছে, কৃষকদের ন্যায্য দামে পাট বিক্রির দাবির চেয়ে বাজার দরে বেশ পার্থক্য রয়েছে। আঁশের মান ও রঙ অনুযায়ী বর্তমানে প্রতিমণ পাট এক হাজার ৫০০ থেকে এক হাজার ৭০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। কৃষকদের আশংকা, দাম আরও কমে যেতে পারে।

চাটমোহর উপজেলার আলমনগর গ্রামের আবু বক্কার জানান, এ বছর পাটের ফলন খুব ভালো হয়েছে। দাম ভালো পেলে আমাদের কোনো ক্ষতি হবে না। মল্লিকবাইন গ্রামের আব্দুর কাদের জানান, আমাদের দাবি প্রতিমণ পাটের দাম দুই হাজার টাকা। একই গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম জানান, প্রতিমণ পাট দুই হাজার টাকা দরে বিক্রি করতে পারলে কৃষকেরা চাষাবাদে আরও উৎসাহ পাবেন।

পাট ব্যবসায়ী মোবারক হোসেন জানান, বতর্মানে প্রতিমণ পাট এক হাজার ৬০০ টাকা দরে কেনা হচ্ছে। পরবর্তী সময়ে দাম কমতেও পারে, আবার বাড়তেও পারে। সরকার ১৮০০ টাকা দর নির্ধারণ করেছে। চাষীরা এ দাম পাবে কিনা এ নিয়ে আশঙ্কা রয়েছে।

অপর পাট ব্যবসায়ী মোতালেব হোসেন জানান, পাট বিক্রির পাশাপাশি পাট কাঠিরও কদর রয়েছে। পাটকাঠি দিয়ে জ্বালানির পাশাপাশি গোবরের লাকড়ি তৈরি করছেন নারীরা। এছাড়া ঘরের বেড়া, তরকারির মাঁচাসহ পানের বরজে পাটকাঠি ব্যবহৃত হয়। বর্তমানে পাটকাঠি পোড়ানো ছাই বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। বর্তমানে একশ’ আঁটি পাট কাঠি ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

চাটমোহর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রওশন আলম জানান, এ উপজেলার মাটি ও আবহাওয়া পাট চাষের উপযোগী। পাট পচনের (জাগ) ক্ষেত্রেও রয়েছে অনেক ডোবা, নালা, খাল, বিল ও জলাশয়। এ বছর আগাম বৃষ্টি হওয়ায় পাট পচনের ক্ষেত্রে পানির কোনো সমস্যা দেখা যায়নি। এছাড়া ফলন যেমন ভালো হয়েছে, তেমনি কৃষকেরা দামও ভালো পাবেন বলে আশা করছি।

পাবনা জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিভূতি ভূষণ সরকার জানান, এ বছর পাবনা জেলার মোট ৩৮ হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে উৎপাদন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু আবাদ হয়েছে প্রায় ৪৫ হাজার ৭৫ হেক্টর জমিতে। ২০১৬ সালে আবাদ হয়েছিল ৪২ হাজার হেক্টর জমিতে। ২০১৫ সালে আবাদের পরিমাণ ছিল ৩৮ হাজার ১৫ হেক্টর জমি।

তিনি আরো জানান, পাবনায় কাঁচা পাট ও পাট খড়ি প্রক্রিয়াজাতের নতুন নতুন কারখানা তৈরি হয়েছে। এতে বিপনন সহজ হচ্ছে। পাটের নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

বাসস

ঢাকা, শুক্রবার, জুলাই ২৮, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ১১৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন