সর্বশেষ
সোমবার ৯ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নির্মল বিনোদন ও তৃপ্তিতে সিলেট সমিতির বার্ষিক পিকনিকের সমাপ্তি

মঙ্গলবার, আগস্ট ১, ২০১৭

1699053460_1501548965.jpg
প্রবাসী ডেস্ক :
প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপূর্ব লীলাভূমি মন্ট্রিয়লের অদূরে অবস্থিত সিটি সেন্ট সবার। কুইবেকের রূপসী ললনা বললে বাহুল্য হবেনা মোটেই| রাস্তার দুই পাশে উঁচু পাহাড়, সাথে ঘন সবুজ বৃক্ষ সজ্জ্বিত সারি সারি বন আর বহমান ঝর্ণা। আর এর সবগুলিকে যদি কাস্টোমাইজেশন করে ছোট গন্ডির মধ্যে নিয়ে আসা হয় তাহলে সেটি নির্দ্বিধায় হয়ে উঠে পারফেক্ট পিকনিক ভেন্যু। সেন্ট সবার সিটির, ৩৫০ ডেনিস এভিনিউতে অবস্থিত পিকনিক ভেন্যুটি একেবারে তাই|

অতিথি কাড়া পিকনিক স্পটটি বেশ আগে থেকেই সিলেট জেলা সমিতি যেন দূর থেকে আমন্ত্ৰণ জানাচ্ছিল। আর আত্মীয়তা গ্রহণের জন্য এক পায়ে প্রস্তুতও ছিলেন সিলেট জেলা সমিতির প্রকৃতি-প্রেমিক সংগঠকবৃন্দ যা বুঝতে দেরি হয়নি পিকনিকে অংশগ্রহনকারী প্রায় চার শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশী কানাডিয়ানের।

সকাল দশটায় একই সাথে মন্ট্রিয়লের ৫টি লোকেশন ভিনেত পার্ক, সেন্ট লরেন্ট, পার্ক এক্সটেনশন, প্লামন্ডণ ও লাসাল থেকে যাত্রা শুরু করে ৭টি পিকনিক বাস গন্তব্যে পৌঁছে সাড়ে এগারোটায়। সাথে ছিল গোটা ত্রিশেক প্রাইভেট কার।

গন্তব্যে পৌঁছেই শুরুতে চলে কিছুক্ষণের দিগ্বিদিক ছোটাছোটি। আর কি চাই। বহুদিনের চেনা, ব্যস্ততায় অনেকটা হারিয়ে যাওয়া প্রিয় বন্ধুদের সাথে দেখা। গাছের ছায়ায় বসে বন্ধুদের সাথে গল্প স্মৃতিচারন।

তারপর যথারীতি ট্র্যাকে ফিরি আসা| খাওয়া-দাওয়ার পালা, বাচ্চাদের বিভিন্ন প্রতি্যোগিতা, মহিলাদের হাড়ি ভাঙা ও পিলো পাসিংসহ আরো অনেক প্রতিযোগিতা। বিকাল পাঁচটায় শুরু হয় র‍্যাফেল ড্র ও বিভিন্ন ইভেন্টের পুরস্কার। সবশেষে ঘরে ফেরার পালা। সবার কাছ থেকে বিদায় নিয়ে সন্ধ্যা সাতটায় মন্ট্রিয়লে ফেরার উদ্দেশ্য যাত্রা শুরু করে বাসগুলি।

শুধু রুটিন ওয়ার্ক নয়, নির্মল বিনোদন, শৃঙ্খলা তথা অপূর্ব সমন্বয় মিলিয়ে সার্বিক চমৎকার আয়োজনটি মনে থাকবে অনেকদিন।
আব্দুস সবুর: কানাডা প্রতিনিধি।

ঢাকা, মঙ্গলবার, আগস্ট ১, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // ই নি এই লেখাটি ৯৪ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন