সর্বশেষ
বুধবার ৪ঠা আশ্বিন ১৪২৫ | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শরৎচন্দ্র চট্টপাধ্যায়ের ১৪১তম জন্মবার্ষিকী আজ

শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৭

771509022_1505455628.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
বিংশ শতাব্দী দোর্দন্ড প্রতাপে দাপিয়ে বেড়ানো এক জনপ্রিয় উপন্যাসিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। যিনি তার লেখনির সাবলিলতায় আর বহুমাত্রিকতায় পাঠক বানিয়ে ছিলেন শহুরে শিক্ষিত অভিজাত থেকে শুরু করে পল্লী অঞ্চলের অসংখ্য সাধারণ মানুষকে।

আবহমান বাঙালির জীবনাচরণের সুখ-দু:খ, আনন্দ-বেদনা, আবেগ-অনুভূতি আর জীবন সংগ্রামের এক অনবদ্য উপাখ্যান তার প্রতিটি উপন্যাসে।

তার লেখনিতে তিনি বাঙালির পাঠক মানস গঠন করেছিলেন, জীবন যাপনকে চালিত করেছিলেন এক অভূতপূর্ব বাঙালিপনার দর্শনের আবহে যা একেবারেই সুনির্দিষ্ট, সুচিহ্নিত আর স্বতন্ত্রভাবে বাঙালির নিজস্ব।

১৮৭৬ সালের এই দিনে, পশ্চিম বঙ্গের হুগলি জেলার একটি ছোট গ্রাম দেবেন্দ্রপুরে জন্মেছিলেন শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। তার পিতা মতিলাল চট্টোপাধ্যায় ছিলেন অলস আর স্বাপ্নিক ধরনের মানুষ। যিনি নিরবিচ্ছিন্নভাবে কোন কাজই শেষ করতে পারতেন না। তিনি অনেকগুলো গল্প আর উপন্যাস লেখা শুরু করেছিলেন। কিন্তু কোনটিরই সমাপ্তি টেনে যেতে পারেননি। কিন্তু তার কল্পনানুভূতি আর সাহিত্যানুরাগ ছাপ ফেলেছিল শরৎচন্দ্রের জীবনে। মেধাবী শরৎচন্দ্র স্কুল পাস করার পর অর্থাভাবে আর কলেজ এফ, এ, পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেননি।
 
শরৎচন্দ্র তার কৈশোরের প্রথমদিক থেকেই লিখা শুরু করেছিলেন। তার অধিকাংশ বিখ্যাত উপন্যাসই রচিত হয়েছে যুবক বয়সে।
 
১৯১৬ সালে শরৎচন্দ্র ভারতের কলকাতার নিকটবর্তী স্থান হাওড়ায় বসবাস শুরু করেন। তিনি ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে যুক্ত ছিলেন। তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের ১৯২১-১৯৩৬ সাল  মেয়াদে হাওড়া জেলা সভাপতি ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে ডক্টর অব ডি লিট ডিগ্রি প্রদান করেন।

তার লেখা উল্লেখযোগ্য উপন্যাসগুলো হচ্ছে পল্লী সমাজ, চরিত্রহীন, দেবদাস, নিষ্কৃতি, দত্তা, শ্রীকান্ত, গৃহদাহ, শেষপ্রশ্ন এবং শেষের পরিচয় (১৯৩৯ ইং মৃত্যুর পর প্রকাশিত)।
 
বিট্রিশ সরকার তার লেখা 'পথের দাবী' উপন্যাসের আলোড়নে ভীত হয়ে উপন্যাসটি নিষিদ্ধ করেছিল। পথের দাবী উপন্যাসটি যুগ-যুগ ধরে অসংখ্য নাম না জানা বিপ্লবী প্রাণের সাহস, ধৈর্য্য, নিষ্ঠা, একাগ্রতা, আত্মত্যাগ আর আত্মবলিদানের প্রেরণার উৎস হয়ে আছে, থাকবে।

ঢাকা, শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ৪৩৯ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন