সর্বশেষ
বুধবার ৪ঠা আশ্বিন ১৪২৫ | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

পরকীয়ায় জড়ানোর আগে একটু ভাবুন

শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭

1209926619_1506167574.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
রাজীব সাহেব (ছদ্মনাম) আর পারুল আক্তার (ছদ্মনাম) এর সংসারে রয়েছে সারাহ নামের ফুটফুটে একটি মেয়ে। আগামী বছর থেকে তাকে স্কুলে পাঠানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজীব-পারুল। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা রাজীবের বেশ সুখের সংসার। পারুল তাকে ছাড়া কখনো কিছুই করে না আবার রাজীবও তার স্ত্রীকে মনেপ্রাণে ভালোবাসে।

তবে এত সুন্দর সাজানো গোছানো সংসারের আকাশে হঠাৎ করেই দেখা দিলো সিঁদুরে মেঘ। কারণ, অন্য আরেকজন নারী। কোথায় কোন অনুষ্ঠানে গিয়ে আলাপ হয়েছে রাজীবের সাথে। তারপর থেকে রাজীব নিজের স্ত্রীর প্রতি উদাসীন মনোভাব পোষণ করতে শুরু করলেন। পারুল রাজীবের এমন অবস্থা দেখে চিন্তায় পড়লো। প্রথমে তেমন কিছু না ভেবেই রাজীবের এমন হওয়ার বিষয়ে খোঁজখবর নিতে শুরু করলো। অত:পর একদিন সেই চরম সত্যটি পারুলের চোখে ধরা পড়লো।

প্রিয়তমা স্ত্রী পারুলকে রেখে রাজীব এখন অন্য নারীতে আসক্ত। তাদের মধ্যকার সম্পর্কও বেশ গভীরে পৌঁছেছে। এমতাবস্থায় পারুল রাজীবকে সব জানার বিষয়ে জানালে সুখের সংসারে এখন সারাক্ষণ অশান্তি। শেষমেষ সিদ্ধান্ত ডিভোর্সের। ফুটফুটে সারাহ মেয়েটির বাবা-মায়ের হাত ধরে কিছুদিন পরে স্কুলে যাওয়ার যে স্বপ্ন ছিলো তা ছিন্নভিন্ন হয়ে গেলো। অবুঝ এ মেয়েটি পৃথিবীর নির্মম একটি বাস্তবতার সম্মুখীন হলো। এ দায় কে নেবে?

অন্য আরেকটি ঘটনা, শাহিন আর রত্নার (ছদ্মনাম) দুই বছরের সংসার। ছয় মাসের প্রেমের পর বিয়ে করেছিলো তারা। শাহিন তার জেলা শহরে একটি প্রতিষ্ঠানে অল্প বেতনে চাকরি করে। তাই দিয়েই মোটামুটি চলছিলো তাদের সংসার। ঘরে অনেক জিনিস না থাকলেও ভালোবাসার কোনো কমতি ছিলো না তাদের।

এরই মধ্যে শাহিন জেলা শহর থেকে ঢাকায় চলে আসে। অল্প বেতন তাই স্ত্রীকে রেখে আসে গ্রামের বাড়িতে। দুজন দুই জায়গায় থাকলেও বিভিন্ন ছুটিতে বাড়িতে ছুটে যেত শাহিন। সুখের স্মৃতি নিয়ে ফিরতো ঢাকায়। চিন্তা করতো এ বছর বেতন কিছুটা বাড়লেই বাবা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিবেন।

একদিন শাহিনের কাছে ফোন আসলো তার স্ত্রী গ্রামের অন্য একটি ছেলের সাথে পালিয়ে গেছে। হঠাৎ যেনো মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়লো শাহিনের। কিছুদিন আগেও বাড়িতে গেলে স্ত্রীর ভালোবাসার কোনো কমতি ছিলো না। তাহলে এমনটা কেনো হলো?

উপরের দুটি ঘটনা ছাড়াও পরকীয়ার কারণে সুখের সংসার ভেঙ্গেছে এমন উদাহরণ অসংখ্য। যারা নিজের স্বামী বা স্ত্রীকে রেখে অন্য কারো প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ে। তারা কি কখনো তাদের সুখের সংসার, স্বামীর আদর, স্ত্রীর ভালোবাসার কথা চিন্তা করে।

হ্যাঁ, অনেক সময় কোনো কিছু নিয়ে সংসারে ভুল বুঝাবুঝি হয়। ঝগড়া হয়, একসময় নিজের স্ত্রী/স্বামীকে আর ভালো লাগে না। সে সময় নিজের জীবনসঙ্গীকে নিয়ে একটু ভেবে দেখুন। সন্তানের মুখের দিকে চেয়ে দেখুন। ফুটফুটে সন্তানের মুখ দেখলে কি পরকীয়ার জড়াতে ইচ্ছা করে?

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি হলে নিজে থেকেই মিটিয়ে নিন। দাম্পত্য জীবনের সব সুখ দুজনে ভাগাভাগি করুন। একে অপরকে শ্রদ্ধা করুন আর দুজন দুজনের প্রতি বিশ্বাসের জায়গাটা তৈরি করুন। অন্য সব নারী থেকে নিজের স্ত্রীকে প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রাধান্য দিন। অন্য পুরুষ বা নারীতে আসক্ত হওয়ার আগে নিজের জীবনসঙ্গীর দিকে ভালো করে খেয়াল করে দেখুন।

কারণ, বিশ্বাস আর ভালোবাসার মিলনে তৈরি হয় সংসার। দুজন দুজনের প্রতি শ্রদ্ধা আর বিশ্বাসের কারণে এক ঘরে কাটিয়ে দেন আজীবন। সংসারের এ ভালোবাসা দৈহিক সম্পর্কেরও অনেক উর্ধ্বে। যার কারণেই শত বছরের বৃদ্ধ দম্পতিও একে অপরকে ছাড়া জীবন কাটানোর কথা ভাবতে পারেন না।

যাকে পছন্দ করে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন। আজ কেনো তাকে ছেড়ে অন্য কারো প্রতি আসক্ত হচ্ছেন সে কারণটি কিছুটা সময় নিয়ে নিজে নিজেই চিন্তা করুন। সেই কারণগুলো নিয়ে জীবনসঙ্গীর সাথে খোলামেলা আলোচনা করুন। দুজনে মিলে সমস্যার সমাধান করুন।




ঢাকা, শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // কে এইচ এই লেখাটি ১৪২ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন