সর্বশেষ
মঙ্গলবার ১০ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বসবাসের অনুপোযোগী ১০টি শহর

রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭

1836232357_1506267822.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
আজ থাকছে বিশ্বের বসবাসের সবচেয়ে বেশি অনুপোযোগী দশটি শহরের কথা৷ নতুন এ তালিকাতে রয়েছে ঢাকাও৷

১. দামেস্ক, সিরিয়া
ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের ২০১৬ সালের তালিকায় বসবাসের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে নিকৃষ্ট দশ শহরের মধ্যে সবার উপরে রয়েছে সিরিয়ার রাজধানী দামেস্ক৷ গত কয়েক বছর ধরে গৃহযুদ্ধে বিপর্যস্ত সিরিয়া৷ তা সত্ত্বেও যুদ্ধ থামার কোনো ইঙ্গিত নেই৷

২. ত্রিপোলি, লিবিয়া
মুয়াম্মার গাদ্দাফির মৃত্যুর পর লিবিয়ার পরিস্থিতি ভালো হবে ধারণা করেছিল পশ্চিমা বিশ্ব৷ তাদের সে ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে৷ বরং লিবিয়ায় বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে লড়াই প্রকট আকার ধারণ করেছে৷ তথাকথিত ‘ইসলামিক স্টেটও’ সেদেশে নিজেদের অবস্থান গড়তে চাচ্ছে৷

৩. লাগোস, নাইজেরিয়া
ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের তালিকায় বসবাসের জন্য নিকৃষ্ট দেশের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে লাগোসের নাম৷ নাইজেরিয়ার সবচেয়ে বড় এই শহরটি বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত৷

৪. ঢাকা, বাংলাদেশ
বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা রয়েছে তালিকার চতুর্থ অবস্থানে৷ গত বছর এই তালিকায় ঢাকা দ্বিতীয় শীর্ষ অনুপযোগী শহর হিসেবে স্থান পেয়েছিল। আর ২০১৪ সালে ঢাকা ছিল প্রথম অনুপযোগী শহর।

৫. পোর্ট মোরসবি, পাপুয়া নিউগিনি
পাপুয়া নিউগিনির সবচেয়ে বড় শহর এবং রাজধানী পোর্ট মোরসবি৷ সমুদ্র উপকূলবর্তী শহরটির আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সন্তোষজনক নয়৷

৬. আলজিয়ার্স, আলজেরিয়া
আলজেরিয়ার রাজধানী আলজিয়ার্সও রয়েছে তালিকায়৷ দেশটির সবচেয়ে বড় এই শহরে ৩৫ লাখ মানুষ বসবাস করেন৷

৭. করাচি, পাকিস্তান
বিভিন্ন সন্ত্রাসী হামলার জন্য মাঝেমাঝেই সংবাদ শিরোনামে জায়গা করে নেয় পাকিস্তানের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ শহর করাচি৷ ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের তালিকায় সপ্তম অবস্থানে রয়েছে শহরটি৷

৮. হারারে, জিম্বাবোয়ে
জিম্বাবোয়ের রাজধানী এবং সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ শহর হারারে৷ সেখানকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এবং নাগরিক সুযোগসুবিধা মোটেই সন্তোষজনক নয়৷

৯. ডুয়ালা, ক্যামেরুন
ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের তালিকায় নবম অবস্থানে রয়েছে ক্যামেরুনের সবচেয়ে বড় শহর ডুয়ালা৷

১০. কিয়েভ, ইউক্রেন
রাশিয়ার সঙ্গে বিরোধের কারণে গত কয়েকবছর ধরেই আলোচনায় রয়েছে ইউক্রেন৷ সে দেশের কিছু অঞ্চলে এখনো মাঝেমাঝে রাশিয়াসমর্থিত গোষ্ঠী এবং ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের খবর পাওয়া যায়৷

ঢাকা, রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ১৭৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন