সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২২ নভেম্বর ২০১৮

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের 'অর্ধেক জীবন'

শনিবার, অক্টোবর ৭, ২০১৭

1673186907_1507351155.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
আধুনিক বাংলা সাহিত্যের  অন্যতম জনপ্রিয় সাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়। জীবনের অধিকাংশ সময় পার করেছেন কলকাতায়। কিন্তু জন্ম পূর্ববঙ্গ অর্থাৎ বাংলাদেশের ফরিদপুরে। 'অর্ধেক জীবন' কবি ও লেখক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের একটি আত্মজীবনীমূলক উপন্যাস।

এটি প্রথমে ধারাবাহিকভাবে কলকাতার দেশ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ধারাবাহিক প্রকাশ সমাপ্ত হবার পরে ২০০২ সালে এটি উপন্যাস আকারে প্রকাশিত হয়। আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড উপন্যাসটি প্রকাশ করে।

অবিভক্ত বাংলার ফরিদপুর জেলার মহকুমা শহর মাদারিপুর , সেই শহর থেকেও বেশ দূরে অজপারাগায় উনার জন্ম। তাই কলকাতায় উনারা পরিচিত ছিলেন বাঙাল বলে। পিতা ছিলেন শিক্ষক, পিতামহও ছিলেন পণ্ডিত অর্থাৎ ব্রাহ্মণ ঘরে উনার জন্ম।

এই বইয়ে সুনীল ১৯৩৪ সালে তার জন্মের সময় থেকে শুরু করে মোটামুটি সত্তরের দশকে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের পরবর্তী অর্থাৎ ১৯৭২ সাল পর্যন্ত সময়কে নিজের অভিজ্ঞতার আলোকে চিত্রিত করেছেন।

বাংলাদেশের মাদারীপুর গ্রাম থেকে তার বাবা কালীপদ গাঙ্গুলী কেন ও কীভাবে কলকাতা গেলেন, সেখানে তার বাবা কী করে একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষক হলেন এবং সংসার পাতলেন সুনীলের মা মীরার সঙ্গে, সেটার সংক্ষিপ্ত বর্ণনা দিয়ে শুরু হয়।

সুনীলের মামাবাড়ি ছিল ফরিদপুরের আমগ্রামে। আমগ্রাম আর কলকাতায় কেটেছে সুনীলের শৈশব। শৈশবের স্মৃতিচারণার পাশাপাশি বইটির শুরুতে উঠে এসেছে চল্লিশের দশকের বিশ্ব ও কলকাতার পরিস্থিতি। বিশেষ করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের গল্পময় বর্ণনা এসেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ফলে বাংলার ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষ নিয়ে আক্ষেপ করেছেন সুনীল।

ঢাকা, শনিবার, অক্টোবর ৭, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ২৩৪ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন