সর্বশেষ
সোমবার ৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৯ নভেম্বর ২০১৮

আত্রাইয়ে শুটকি ব্যবসায়ীদের মুখে হাসির ঝিলিক

রবিবার, অক্টোবর ৮, ২০১৭

1083538539_1507460388.jpg
আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি :
মৎস্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ে এ বছর স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যার পানি নামার সাথে সাথে জেলেদের জালে ধরা পড়ছে দেশি প্রজাতির নানান ধরনের মাছ। আর এই মাছকে শুটকি তৈরি করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন আত্রাইয়ের ব্যবসায়ীরা।

গত কয়েক বছরে শুটকি ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এবার তা পুসিয়ে নিতে তারা কোমর বেধে ঝাঁপিয়ে পড়েছে।

এবার বন্যায় এলাকার শত শত চাষকৃত মাছ নদীতে চলে গেছে। তাই জেলেরা নদীতে উৎসাহ নিয়েই মাছ ধরছেন। ধরাও পড়ছে দেশিয় প্রজাতির বিভিন্ন রকম মাছ। আর এ মাছগুলো প্রতিদিন ভোর থেকে বিক্রি হচ্ছে আত্রাই আহসানগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন সংলগ্ন টোলমুক্ত ঐতিহ্যবাহী মাছ বাজার আড়তে। এলাকার ব্যবসায়ীরা দেশি মাছ বিশেষ করে পুঁটি, রাইখোর, চাঁন্দা, শোল, টাকি, বোয়াল মাছ দিয়ে শুটকি তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নওগাঁ জেলার আত্রাই উপজেলা থেকে রেল, সড়ক ও নৌপথে দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রতিদিন শত শত টন মাছ বাজারজাত করা হয়। রাজধানী ঢাকা, নারায়নগঞ্জসহ উত্তরাঞ্চলের সৈয়দপুর, রংপুর, কুড়িগ্রাম, নিলফামারী, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁসহ দেশের প্রায় ১৮/২০টি জেলায় বাজারজাত হয় আত্রাইয়ের শুটকি মাছ। আর এ মাছের শুটকি তৈরি করে এখন জীবিকা নির্বাহ করছে আত্রাইয়ের শুটকি ব্যবসায়ীরা।

উপজেলার ভরতেঁতুলিয়া গ্রাম শুটকি তৈরিতে বিশেষভাবে খ্যাত। ওই গ্রামের শুটকি ব্যবসায়ী শ্রী রামপদ শীল জানান, গত বছর প্রতি চালানেই আমাদের লোকসান গুনতে হয়েছিল। শুটকি তৈরির আসল টাকাই উঠে আসেনি। এ বছর কাঁচা মাছের চাহিদা বেশি, দাম কম থাকায় শুটকিতে লাভ ভালো হবে বলে আশা করছি।

আরেক ব্যবসায়ী জাহেদুল ইসলাম জানান, পরিবার-পরিজন নিয়ে শুটকি তৈরি করছেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে আত্রাইয়ের শুটকির চাহিদা আছে। ৩ মণ মাছ শুকালে এক মনের মতো শুটকি তৈরি হয়। মাছ শুকানো মানেই মানুষ শুকানো। এটা খুব কষ্টের কাজ। তবে লাভ ভালো হলে সব কষ্ট লাঘব হবে।

ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ৮, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // আর এ এই লেখাটি ২৩৯ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন