সর্বশেষ
বুধবার ৪ঠা আশ্বিন ১৪২৫ | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ব্রহ্মপুত্রে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ

বুধবার, অক্টোবর ২৫, ২০১৭

1477672287_1508870358.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
ব্রহ্মপুত্রে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ মিলছে। এখানে এমন ইলিশের প্রাচুর্য আগে কখনো দেখা যায়নি। শুধু ব্রহ্মপুত্রের নয়, তার সাথে সংযুক্ত তিস্তা, ধরলা ও দুধকুমারে ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। সামুদ্রিক আর লোনা পানির মাছ বলে চিরাচরিত ধারণাও এবার যেন বদলে গেছে। পদ্মা-যমুনা ব্রহ্মপুত্র হয়ে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ এখন চলে যাচ্ছে ভারতের আসাম রাজ্যে।

ইলিশ ধরার নিষিদ্ধ সময়ে ব্রহ্মপুত্রের বিভিন্ন পয়েন্টে গোপনে শত শত মণ ইলিশ ধরে তা বিক্রি করেছে জেলেরা। দরিদ্ররাও দীর্ঘদিন পর ইলিশের স্বাদ পেয়েছেন। প্রকাশ্য বেচতে না পারলেও গোপনে ইলিশের বাণিজ্য হয়েছে কোটি টাকার। প্রশাসনের সহায়তায় মৎস্য বিভাগ এ সময়ে ৬০ লাখ টাকার জাল পুড়িয়ে দিলেও বন্ধ ছিলো না ইলিশ ধরার উৎসব। দীর্ঘদিন পর জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ায় খুশি জেলেরা। দামও ছিল সাধারণের হাতের নাগালে। প্রতি কেজি ২৫০-৩৫০ টাকা।

নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবার পর সোম ও মঙ্গলবার জালে মাছ কিছুটা কম ধরা পড়লেও দাম বেড়ে যাওয়ায় তাতেই পুষিয়ে যাচ্ছে জেলেদের। মৎস্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ভাটিতে ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা সফল হওয়ায় এবং নদীতে পানির প্রবাহ বেশী থাকায় এ বছর ব্রহ্মপুত্র ও তার সংযুক্ত নদ-নদীতে ইলিশ ধরা পড়ছে ।

ব্রহ্মপুত্র পারের বাসিন্দারা জানান, গত ১ অক্টোবর থেকে ২২ অক্টোবর ছিল নদ-নদীতে ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা। কিন্তু এ বছর আকস্মিকভাবে ব্রহ্মপুত্রে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ আসতে থাকে। যার বেশীর ভাগই ছিল ডিমওয়ালা। জেলেরা ডিঙি নৌকায় কারেন্ট জাল নিয়ে রাতভর ইলিশ ধরে। নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবার পর এখনও দিনে-রাতে ইলিশ ধরছে ।

চিলমারী, যাত্রাপুর, মোল্লারহাট, নুনখাওয়াসহ ব্রহ্মপুত্র নদের বিভিন্ন পয়েন্টে গোপনে গভীর রাত থেকে ভোর রাত পর্যন্ত শত শত মণ ইলিশ মাছ বেচাকেনা হয়েছে। বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যবসায়ী ও সাধারণ ক্রেতারা এসে ২৫০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকা কেজি ধরে সুস্বাদু এ ইলিশ মাছ কিনেছে। পরবর্তীতে দাম বেড়ে যাবে বলে কেউ কেউ ফ্রিজে মজুদ করেছে ব্রহ্মপুত্রের ইলিশ।

যাত্রাপুর নৌকার মাঝি আব্দুস সামাদ জানান, মোটর মাইকেল যোগে শত শত ক্রেতা এসে যাত্রাপুর ঘাট থেকে ব্যাগ বোঝাই করে নিয়ে গেছেন ইলিশ।

সদর উপজেলার যাত্রাপুর ইউপি সদস্য রহিম উদ্দিন রিপন জানান, প্রতি বছর জেলেদের জালে দু’একটি ইলিশ ধরা পড়লেও ব্রহ্মপুত্রে কখনই এতো ইলিশ দেখেননি তারা।

হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন জানান, তার ইউনিয়নে কয়েকশ জেলে ব্রহ্মপুত্রে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করলেও নদীতে মাছ না থাকায় তারা খুব কষ্টে জীবন যাপন করে। এ বছরের মতো ইলিশ ধরা পড়লে তাদের জীবন-জীবিকায় ইতিবাচক পরিবর্তনের পাশাপাশি এলাকার মানুষ সহজেই ইলিশ খেতে পারবে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জিল্লুর রহমান জানান, ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি ও ব্রহ্মপুত্রে পানির প্রবাহ বেশী থাকায় মূলত ইলিশ ছুটে এসেছে ব্রহ্মপুত্রে। নিষেধাজ্ঞা সঠিকভাবে পালন করা গেলে ভবিষ্যতেও এমন ইলিশের প্রাচুর্য থাকবে বলে আশা করেন তিনি।

ঢাকা, বুধবার, অক্টোবর ২৫, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // আর এ এই লেখাটি ১৯৫ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন