সর্বশেষ
শনিবার ১লা পৌষ ১৪২৫ | ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮

শূন্যের অধিকতর প্রাচীন ইতিহাস

গণিত বিশ্লেষণ

রবিবার, নভেম্বর ৫, ২০১৭

482172483_1509864156.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
সংখ্যা ব্যবস্থার ইতিহাস অনেক প্রাচীন হলেও সংখ্যায় শূন্যের ব্যবহার অপেক্ষাকৃত নবীন। সেই শূন্যের ব্যবহারের নতুন ইতিহাস পাওয়া গেল কার্বন ডেটিং-এর মাধ্যমে। একটি প্রাচীন ভারতীয় পাণ্ডুলিপিতে শূন্যের এই ব্যবহার পাওয়া গেছে।

কার্বন ডেটিং-এর মাধ্যমে দেখা যায় অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সংরক্ষিত বাখশালি পাণ্ডুলিপিটির রচনার সময়কাল তৃতীয় থেকে চতুর্থ শতাব্দী, যা শূন্যের ব্যবহারে পূর্বের রেকর্ডের তুলনায় কয়েক শতাব্দী প্রাচীন। ইতিপূর্বে শূন্যের সবচেয়ে প্রাচীন ব্যবহার পাওয়া গিয়েছিলো ভারতের গোয়াইলরের একটি মন্দিরে।

এই আবিষ্কার, গণিতের ইতিহাস যথাযথভাবে প্রণয়নের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অন্যান্য সমসাময়িক কিছু সভ্যতা যেমন, মায়ান সভ্যতা কিংবা ব্যবিলনে শূন্যের ব্যবহার থাকলেও একটি ফাঁপা বৃত্তকে শূন্যের সংকেত হিসেবে ব্যবহারের প্রথম নিদর্শন বাখশালি পাণ্ডুলিপিতেই দেখা যায়। এই শূন্যের সংকেতের সাথে আধুনিক ব্যবহৃত সংকেতের যথেষ্ট মিল রয়েছে।

ইতিপূর্বে বাখশালি পাণ্ডুলিপিকে অষ্টম হতে দ্বাদশ শতাব্দীতে রচিত বলে মনে করা হলেও বর্তমান আধুনিক প্রযুক্তি কার্বন ডেটিং করে দেখা যায় এটি আরও কয়েক শতাব্দী প্রাচীন। ইতিপূর্বে এই পাণ্ডুলিপিটির বয়স নির্ধারণে বিশেষজ্ঞরা ঝামেলায় পড়েন কেননা এটি বার্চ গাছের বাকলের ৭০ টি পাতায় নির্মিত এবং এই বস্তুগুলো বিভিন্ন সময়কার।

পাণ্ডুলিপিটিকে ১৮৮১ সালে বর্তমানে পাকিস্তানের অন্তর্গত বাখশালি গ্রাম হতে উদ্ধার করা হয়। ১৯০২ সালে এটিকে অক্সফোর্ডের গ্রন্থাগারে স্থানান্তর করা হয়। শূন্য-এর ব্যবহার উদ্ভাবন গণিতের প্রাথমিক যুগের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সাফল্যগুলোর একটি বলে জানান অক্সফোর্ডের গণিতের অধ্যাপক মার্কাস দু সতয়। সূত্র: বিবিসি

ঢাকা, রবিবার, নভেম্বর ৫, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ৫৯৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন