সর্বশেষ
শুক্রবার ৬ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

প্রেমিকের বাড়িতে অনশন, বিয়ে না হয় আত্মহত্যা

মঙ্গলবার, নভেম্বর ৭, ২০১৭

1239799758_1510035453.jpg
কুমিল্লা প্রতিনিধি :
কুমিল্লা তিতাস উপজেলায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে পাঁচদিন ধরে অনশনে বসেছে এক তরুণী।

উপজেলার নাগের চর গ্রামে গত বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) থেকে আজ মঙ্গলবার এই রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত ওই তরুণী তার প্রেমিকের ঘরের দরজায় বসে রয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, অনশনরত তরুণী ইয়াসমিন আক্তার (১৮) তিতাস উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের মানিক কান্দি গ্রামের আব্দুল বাতেনের মেয়ে। আর তার প্রেমিক জিলানী একই উপজেলার কলাকান্দি ইউনিয়নের মাছিমপুর গ্রামের মৃত আজিবরের ছেলে।

সম্পর্কে তারা খালাতো ভাই-বোন। দুই বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। সেই কারণে পাঁচ মাস আগে পারিবারিকভাবে আংটি বদল করা হয়। প্রায়ই তারা বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে যেত। সম্প্রতি ইয়াসমিন বিয়ের জন্য চাপ দিলে জিলানী ও তার পরিবার অসম্মতি জানায়। আর এতে ক্ষুব্ধ হয়ে বিয়ের দাবিতে জিলানীর ঘরের দরজায় বসে অনশন শুরু করে।
        
এ ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

ইয়াসমিন জানায়, জিলানীর বাড়িতে অবস্থান করার পর তার পরিবারের লোকজন আমাকে শারিরিকভাবে নির্যাতন করে। ঘর থেকে বের করে দিয়ে ঘরে তালা লাগিয়ে চলে যায়।

ইয়াসমিন বলেন,  গত এক বছর যাবত আমরা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে বিভিন্ন জায়গায় একত্রে বসবাস করে আসছি। জিলানীর সাথে বিয়ে না হলে, আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে হবে। এখন আমার আর ফিরে যাবার পথ নাই।


তবে জিলানীর বড় ভাইয়ের অভিযোগ ইয়াছমিনের সঙ্গে একাধিক ছেলের সম্পর্ক রয়েছে। ফলে জিলানী তাকে বিয়ে করবে না।

ভিটিকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান আবু মোল্লা বলেন, দুইদিন আগে মেয়ের পক্ষ থেকে আমাকে বিষয়টি জানায়, ছেলের গ্রাম থেকেও আমাকে ফোন করে বিষয়টি অবহিত করে। বিষয়টি সুষ্ঠুভাবে সমাধানের জন্য দুই পক্ষকে ডাকলে মেয়ের পক্ষ সময় মত হাজির হলেও ছেলের পক্ষ থেকে কেউ আসেনি। ফলে এর সমাধান করাও সম্ভব হয়নি

এ বিষয়ে তিতাস থানার ওসি মোহাম্মদ নুরুল আলম বলেন, বিষয়টি আমি সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ঢাকা, মঙ্গলবার, নভেম্বর ৭, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এস এ এই লেখাটি ৯৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন