সর্বশেষ
বুধবার ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২১ নভেম্বর ২০১৮

‘বাঁশিই আমার সব’

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৭

336376008_1510815501.jpg
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
সিরাজগঞ্জ জেলার তাড়াশের আবু সাইম। বাঁশি বাজিয়েই পার করেছেন দুই যুগ। এখন এলাকায় বংশীবাদক হিসেবেই সবাই তাকে চেনে। তার বাঁশির সুরে এলাকায় হাজারো মানুষের সমাগম ঘটে।

তবে এটুকু পথ চলা খুব সহজ ছিল না বলে জানান সাইম। পদে পদে সইতে হয়েছে বিড়ম্বনা। তবু তিনি বাঁশি ছাড়েননি।

পেশায় দিন মজুর সাইম স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, সেই ছোট বেলায় ৭-৮ বছর বয়সে গ্রামের বাজার থেকে দুই টাকা দিয়ে একটা বাঁশি কিনেন তিনি। শখের বশে দিন-রাত কাজের ফাঁকে সেই বাঁশি বাজাতে গিয়ে এক সময় তা নেশায় পরিণত হয়ে যায়। এখন ‘বাঁশিই আমার সব’ বলে জানালেন তিনি।

শুরুতে খুব একটা ভাল বাঁশি বাজাতে পারতেন না সাইম। তবে তার এমন অদম্য চেষ্টা দেখে পার্শ্ববতী সিংঙ্গার পাড়া গ্রামের হাবিবুর রহমান (বর্তমানে পুলিশ কর্মকর্তা) সাইমকে কয়েকদিন বাঁশি বাজানো শিখিয়েছেন। তারপর আরো কয়েকজন তাকে শিখিয়েছেন।

তাড়াশ উপজেলার দেশীগ্রাম ইউনিয়নের দেশীগ্রাম খাসপাড়া গ্রামের দিন মজুর সাইমের সংসার চলে অভাব অনটনে। দিন মজুরি করে পরিবারের সাত সদস্যের ভরণ পোষণ করা তার জন্যে কষ্টের। তবু এসব কিছু তার বাঁশি বাজানোতে বাধ সাধতে পারেনি। বাঁশি বাজিয়ে কারো কাছ থেকে টাকাও নেন না তিনি। তার এ বাঁশির সুর শুধু মানুষের মনের খোরাক মেটাতে বলেন সাইম।

সাইম আরো বলেন, বর্তমানে তার সংগ্রহে আছে ২০-২২টি বাঁশি। আর এতদিনে রপ্ত করেছেন বাঁশি বাজানো অনেক কায়দা কানুন। বাঁশি উল্টো করে বাজাতে পারেন তিনি, পারেন নাক দিয়েও বাজাতে। তবে সাইমের শখ এখন কোন টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠানে বাঁশি বাজানোর। যাতে দেশের মানুষ তার বাঁশির সুর শুনে, তাকে দেখে।

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // এস এ এই লেখাটি ১৯৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন