সর্বশেষ
সোমবার ৫ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৯ নভেম্বর ২০১৮

পর্তুগালে কাউন্সিলর নির্বাচিত রানা তাসলিম উদ্দিনকে সংবর্ধনা

মঙ্গলবার, নভেম্বর ২১, ২০১৭

1414100016_1511205811.jpg
প্রবাসী ডেস্ক :
পর্তুগালের রাজধানী লিসবন সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে জইন্তা ফেগ্রেসিয়া সান্তা মারিয়া মাইওরের কাউন্সিলর পদে দ্বিতীয়বারের মত নির্বাচিত প্রবাসী রানা তাসলিম উদ্দিনকে সংবর্ধনা দিয়েছে বৃহত্তর নোয়াখালী অ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগাল।
 
রবিবার সাড়ে আটটায় লিসবনের চারতারা হোটেল মুন্ডিয়ালের কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানটি।

বৃহত্তর নোয়াখালী অ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগালের সভাপতি হুমায়ুন কবির জাহাঙ্গীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন অাল মাসুদ সুমন এবং নাঈম হাসান পাভেল। পর্তুগালে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশী এবং তাদের পরিবারবর্গ এতে অংশগ্রহণ করেন। মোঃ অাবুল হাসানের পবিত্র অাল কোরঅান থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের অানুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর আগত অতিথিবৃন্দকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়া হয় সংগঠনের পক্ষ থেকে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লিসবন সিটি কাউন্সিলের জইন্তা ফেগ্রেসিয়া সান্তা মারিয়া মাইওরের প্রেসিডেন্ট ডক্টর মিগুয়েল কোয়েলো। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কমিউনিটি অব পোর্তোর সভাপতি শাহ অালম কাজল। আরো উপস্থিত ছিলেন জইন্তা ফেগ্রেসিয়া সান্তা মারিয়া মাইওরের কাউন্সিলর মারিয়া জোয়াও, রিকারদো দিয়াস, লুইস কোয়েলো, আন্টেতোনিও মানুয়েল, পেদরো আসুনসাও, জিতু রোন্দদদাদো, শাহ জাহান প্রমুখ। শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন বৃহত্তর নোয়াখালী অ্যাসোসিয়েশন ইন পর্তুগালের সিনিয়র সহ-সভাপতি অাবুল কালাম অাজাদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসাইন সুমন, মনজুরুল হোসেন জিন্নাহ।

উল্লেখ্য, গত ১ অক্টোবরে অনুষ্ঠিত লিসবন সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে রানা তাসলিম উদ্দিন জয়লাভ করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রেসিডেন্ট ডক্টর মিগুয়েল কোয়েলো বলেন, বাংলাদেশীরা শান্তিপ্রিয় অভিবাসী হিসেবে পর্তুগালে খ্যাতি অর্জন করেছে। অামাদের নির্বাচনে বেশীরভাগ বাংলাদেশীই অামাদের সহযোগিতা করেছেন। তাদের সাথে এমন একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে পেরে অামি অত্যন্ত অানন্দিত। অামি অাশা করবো বাংলাদেশিরা তাদের এই সুনাম বজায় রাখবেন এবং পর্তুগিজ কমিউনিটির সাথে এ সম্পর্ক অারো জোরালো হবে।

রানা তাসলিম উদ্দিন বলেন, অামি ১৯৯১ সনে যখন প্রথম পর্তুগালে অাসি এখানে মাত্র ১২ জন বাংলাদেশি ছিলেন। সময়ের পালাবদলে সবাই পর্তুগাল ছেড়ে গেছেন। এদেশের মূলধারার রাজনীতিতে অামিই প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে জড়িত হয়ে বর্তমান সরকারীদল পর্তুগিজ স্যোসালিষ্ট থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছি। অামি যেটুকু করেছি, অামার মনে হয় এটা সূচনা। অামাদের অাগামী বাংলাদেশী প্রজন্মের জন্য এটা একটি রাস্তা তৈরি করে গেলাম, পরবর্তীতে এদেশের রাজনীতিতে তারা যেন স্বাচ্ছন্দ্যে জড়িত হতে পারেন এবং বড় বড় পদে নির্বাচিত হতে পারেন। অামি পর্তুগালে অবস্থানরত সকল বাংলাদেশীদের অনুরোধ করবো যদি সম্ভব হয় প্রবাসে দেশীয় রাজনীতি চর্চা না করে অাপনারা মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হোন। এতে করে অামাদের সমস্যাগুলো সমাধান অনেক সহজ হবে। পরিশেষে এমন একটি অায়োজনে বৃহত্তর নোয়াখালী অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

সভাপতির বক্তব্যে হুমায়ুন কবির জাহাঙ্গীর বলেন, লিসবন সিটি কাউন্সিলের নির্বাচনে পর পর দুইবার বাংলাদেশী ও বৃহত্তর নোয়াখালীর কৃতি সন্তান রানা তাসলিম উদ্দিনের সাফল্যে অামরা অত্যন্ত অানন্দিত। তিনি অামাদের অাগামী প্রজন্মের জন্য পথ তৈরি করে দিয়ে যাচ্ছেন। অাগামী দিনে রানা তাসলিম উদ্দিনের দেখানো পথে একদিন হয়তো বাংলাদেশের কেউ পর্তুগালের সিটি মেয়র কিংবা প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন। বৃহত্তর নোয়াখালীর কৃতিসন্তান রানা তাসলিম উদ্দিনকে সংবর্ধনা দিতে পেরে বৃহত্তর নোয়াখালী অ্যাসোসিয়েশন পরিবার অত্যন্ত অানন্দিত এবং গর্বিত।

সংবর্ধনার প্রথম পর্বের অনুষ্ঠান শেষে রাত ১০:৩০ মিনিটে বাংলা খাবারের অায়োজনে নৈশ্যভোজ অনুষ্ঠিত হয় লিসবনের বাংলাদেশি অধ্যুষিত মার্তৃম-মুনিজের বেঙ্গল রেস্টুরেন্টে। এতে প্রায় ৪০০ জনের মত পর্তুগাল প্রবাসী বাংলাদেশীরা অংশগ্রহণ করেন।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে অারো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের অাবুল বাসার, শহীদ উল্যাহ, সাকের আহমেদ, শাহাদাত হোসেন, ইমরান হোসাইন ভূইয়া, তবারক হোসেন তপু, শাকিল জিয়া, ফুয়াদ হাসান, এমরান হোসেন প্রমুখ।


রনি মোহাম্মদ
লিসবন, পর্তুগাল

ঢাকা, মঙ্গলবার, নভেম্বর ২১, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // ই নি এই লেখাটি ২০৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন