সর্বশেষ
শনিবার ৭ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

যে সেলফির কারণে মিস ইরাকে'র পরিবার হুমকির মুখে

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৭

1385424877-1749.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

বর্তমান সময়ে জীবনের সব খুটিনাটি ঘটনার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে সেলফি। কিন্তু সেলফির কারণে জীবনটা হুমকির মুখে পড়েছে মিস ইরাকের। প্রাণনাশের হুমকির মুখে গোটা পরিবার নিয়ে পালিয়ে যেতে হলো তাকে।

গত মাসে মিস ইউনিভার্স পিজেন্ট আয়োজনে অংশ নিয়েছিলেন মিস ইরাক সারাহ আইদান। সেখানে কোনো এক সময়ে মিস ইসরায়েল অ্যাডার গ্যানডেলসম্যানের সঙ্গে একটি সেলফি তুলেছিলেন তিনি। আর ইসরায়েলি সুন্দরীর সঙ্গে ছবি তোলাই তার কাল হয়ে দাঁড়ালো।  

এ ছবি অনলাইনে প্রকাশ করা হলে সারাহ আইদান ঝামেলার মুখে পড়েন। পরে হাদাশট নিউজ চ্যানেলকে ২০ বছর বয়সী মিস ইসরায়েল জানান, এ ছবির কারণে পরিবারসহ ঝুঁকির মুখে পড়েন সারাহ। মিস ইউনিভার্স পিজেন্টে বিকিনিতে পোজ দেয়ার কারণেও তার ওপর প্রাণনাশের হুমকি আসতে থাকে।  

গ্যানডেলসম্যানের উদ্ধৃতি দিয়ে জিউইশ ক্রনিকেল জানায়, এ ছবিগুলো অনলাইন থেকে সরিয়ে ফেলার জন্যে নানা জায়গা থেকে হুমকি পেতে থাকেন আইদান এবং তার পরিবার। তাকে মেরে ফেলার হুমকি পর্যন্ত দেয়া হয়। এ পরিস্থিতিতে তারা পরিবারসহ ইরাক ত্যাগ করেছেন। অন্তত পরিস্থিতি ঠাণ্ডা না হওয়া পর্যন্ত ইরাকে ফেরার কোনো ইচ্ছাই নেই তাদের।  

মিস ইসরায়েল সুন্দরী জানিয়েছেন, আমেরিকার নেভাদার লাস ভেগাসে তাদের দেখা হয়। এ ঘটনার পর তারা দুজন যোগাযোগ ধরে রেখেছেন। ২৭ বছর বয়সী আইদান আমেরিকায় থাকেন।  

তবে আইদান মিস ইসরায়েলকে জানিয়েছেন যে, ইনস্টাগ্রামে এ ছবি পোস্ট করার জন্যে তার মনে কোনো খেদ নেই। ছবিটির ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, মিস ইরাক এবং মিস ইসরায়েলের পক্ষ থেকে শান্তি এবং ভালোবাসা।  

ইসরায়েলের সুন্দরী অ্যাডার বলেন, এই ছবি ও ক্যাপশনের মাধ্যমে আইদান বোঝাতে চেয়েছিলেন যে, শান্তির মধ্যে বসবাস করা সম্ভব। কিন্তু এত বিপদের পরও তিনি ছবিটি মুছে ফেলেননি।

ইরাকের সঙ্গে ইসরায়েলের কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। অন্যান্য সম্পর্কও যথেষ্ট বৈরি। তারই রেশ গিয়ে পড়েছে এই দুই সুন্দরীর বন্ধুত্বের ওপর।
সূত্র : এনডিটিভি


ঢাকা, মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৭ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৯৩১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন