সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ৫ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

২০১৭ সালের পরিচালন মুনাফায় ব্যাংকগুলোর অবস্থান

সোমবার, জানুয়ারী ১, ২০১৮

8.png
বিডিলাইভ ডেস্ক :

বছর শেষে পুঁজিবাজারের বেশিরভাগ ব্যাংক মুনাফার ধারায় ফিরেছে। ৩১ ডিসেম্বর সবগুলো ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে তাদের হিসাব জমা দিয়েছে। এতে দেখা যায় অধিকাংশ ব্যাংক আগের বছরের চেয়ে বেশি পরিচালন মুনাফা করেছে।

এ বছর সবচেয়ে বেশি মুনাফা করেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। এ ব্যাংকটির মুনাফা হয়েছে ২ হাজার ৪২০ কোটি টাকা, যা আগের বছর ছিল ২ হাজার ৩ কোটি টাকা। তবে এবছর সিটি ব্যাংকের মুনাফা কমেছে। ২০১৬ সালে ব্যাংকটি ৭৭৭ কোটি টাকা মুনাফা করেছিল, যা এ বছর ৬৯০ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, খেলাপি ঋণ পুনঃ তফসিল করার সুযোগ দিতে গত শনিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগ খোলা ছিল। এ সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন ব্যাংক প্রায় দেড়শ প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ঋণ পুনঃ তফসিল করে নিয়মিত করেছে। ফলে তারা বাড়তি মুনাফা দেখাতে পেরেছে প্রতিষ্ঠানগুলো। কারণ পুনঃ তফসিল করায় খেলাপি ঋণের বিপরীতে প্রভিশন বা মুনাফা থেকে টাকা সঞ্চিতি রাখতে হয়নি।

নিচে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর গত বছরের(২০১৭) পরিচালন মুনাফা এবং এর আগের বছরের (২০১৬) পরিচালন মুনাফার একটি তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরা হলো-

কোম্পানির নাম ২০১৭ সালের পারিচালন মুনাফা(টাকায়) ২০১৬ সালের পারিচালন মুনাফা(টাকায়)
ইসলামী ব্যাংক ২ হাজার ৪২০ কোটি ২ হাজার ৩ কোটি
ন্যাশনাল ব্যাংক ১ হাজার ২১৮ কোটি ১ হাজার ৮১ কোটি
পূবালী ব্যাংক ৯১৫ কোটি টাকা ৬৭৩ কোটি টাকা
সাউথইস্ট ব্যাংক ৯০১ কোটি টাকা ৮৫০ কোটি টাকা
আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ৮০৯ কোটি টাকা ৭৫৪ কোটি টাকা
ইস্টার্ন ব্যাংক ৭৫০ কোটি টাকা ৬৪১ কোটি টাকা
ডাচ বাংলা ব্যাংক ৭৫০ কোটি টাকা ৫৫২ কোটি টাকা
এক্সিম ব্যাংক ৭১১ কোটি টাকা ৬৫০ কোটি টাকা
মার্কেন্টাইল ব্যাংক ৭১১ কোটি টাকা ৫০৮ কোটি টাকা
ব্যাংক এশিয়া ৬৯৫ কোটি টাকা ৫৯০ কোটি টাকা
সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক ৬৬০ কোটি টাকা ৬০১ কোটি টাকা
ট্রাস্ট ব্যাংক ৬৩০ কোটি টাকা ৫০১ কোটি টাকা
এনসিসি ব্যাংক ৫৩৫ কোটি টাকা ৪৭০ কোটি টাকা
রূপালী ব্যাংক ৫১১ কোটি টাকা ১০০ কোটি টাকা লোকসান ছিল
আইএফআইসি ব্যাংক ৫০৪ কোটি টাকা ৪৫০ কোটি টাকা
প্রিমিয়ার ব্যাংক ৪৫০ কোটি টাকা ৩২৬ কোটি টাকা
যমুনা ব্যাংক ৪৮৫ কোটি টাকা ৪২২ কোটি টাকা
ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামি ব্যাংক ৪৭৫ কোটি টাকা ৩৭২ কোটি টাকা
শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ৩৬০ কোটি টাকা ২৯৭ কোটি টাকা
স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ৩৬০ কোটি টাকা ২৯৭ কোটি টাকা
মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ৪১৭ কোটি টাকা ৩৪০ কোটি টাকা
ওয়ান ব্যাংক ৫৫০ কোটি টাকা ৪৩৯ কোটি টাকা
দ্য সিটি ব্যাংক ৬৯০ কোটি টাকা ৭৭৭ কোটি টাকা
ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক ৫৬০ কোটি টাকা ৭৬৫ কোটি টাকা

 

উল্লেখ্য, পরিচালন মুনাফা থেকে ব্যাংকগুলোকে আগে নিয়মিত ঋণ ও খেলাপি ঋণের বিপরীতে প্রভিশন রাখতে হবে। নিয়মিত ঋণের বিপরীতে প্রভিশন ১ থেকে ২ শতাংশ, খেলাপির মধ্যে নিম্নমান ঋণে ২০ শতাংশ, সন্দেহজনক ঋণে ৫০ শতাংশ এবং মন্দ ঋণে শতভাগ প্রভিশন রাখতে হয়। এর পরে মূলধন বাড়াতে তহবিলের একটি অংশ নিতে হবে রিজার্ভ তহবিলে। পরিশোধ করতে হবে আয়কর। এরপরে যা থাকবে তা থেকে শেয়ারহোল্ডারদের ডিভিডেন্ড দেয়া যাবে।


ঢাকা, সোমবার, জানুয়ারী ১, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ৯৮৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন