সর্বশেষ
বুধবার ১১ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

সৌদিতে প্রবাসীদের জন্য যে খবর বিনামেঘে বজ্রপাতের মতোই

মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৩০, ২০১৮

AMARDESH13.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

সৌদি আরবে বড় আকারে সঙ্কুচিত হচ্ছে প্রবাসী ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের কর্মক্ষেত্র। দেশটির শ্রম মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়েছে, এখন থেকে আরও ১২টি বাণিজ্যিক ক্ষেত্রকে সৌদিকরণ প্রক্রিয়ার আওতায় আনা হয়েছে।

সৌদিকরণের ধারাবাহিকতায় ১২ রকমের বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে কেবল সৌদি নাগরিকরাই কাজ করতে পারবে। কাগজ কলমে এতদিন সৌদি মালিকাধীন থাকলেও একচ্ছত্রভাবে এই ব্যবসাগুলো প্রবাসীদের দখলে ছিল।

এই ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই গুটিয়ে নিতে হবে প্রবাসীদের ব্যবসা-বাণিজ্য। বেকার হয়ে পড়বে কয়েক লাখ প্রবাসী।

সৌদি আরব বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শ্রমবাজার। দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় ২৫ লাখ। প্রবাসীদের ব্যবসা সঙ্কুচিত হওয়ার এই ধাক্কা বাংলাদেশের শ্রমবাজারে লাগবে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। সৌদি আরবে থাকা বাংলাদেশি অনেক শ্রমিক বেকার হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় রয়েছেন।

তেলসম্পদের ওপর নির্ভর দেশটি বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম পড়ে যাওয়ায় দুই বছর ধরে অর্থনৈতিক সংকটে ভুগছে। দিন দিন বাড়ছে বেকার সমস্যা। নিজ নাগরিকদের বেকারত্ব দূর করতে প্রবাসী শ্রমিকনির্ভর বিভিন্ন ক্ষেত্রকে সৌদিকরণের আওতায় আনে দেশটির সরকার।

এরই ধারাবাহিকতায় সর্বশেষ আরও ১২টি ব্যবসাকে সৌদি নারী-পুরুষদের জন্য নির্দিষ্ট করে দিয়েছে শ্রম মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যেই এই কার্যক্রম শুরুর লক্ষ্যে নতুন করে শুধু সৌদি নাগরিকদের লাইসেন্স দেয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে প্রবাসী বিক্রয়কর্মী নির্ভর প্রতিষ্ঠানগুলোর লাইসেন্স নবায়ন স্থগিত করা হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে সৌদিকরণের নতুন সংযোজিত ব্যবসাগুলো হচ্ছে,

১. নারী-পুরুষ, শিশুদের তৈরি পোশাক বা কাপড়ের দোকান।

২. গৃহস্থালি সামগ্রী ও আসবাবপত্র বিক্রয়কেন্দ্র।

৩. মোটরগাড়ির শোরুম বা বিক্রয়কেন্দ্র।

৪. মোটরগাড়ির খুচরা যন্ত্রপাতির বিক্রয়কেন্দ্র।

৫. বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি এবং বিদ্যুৎচালিত সবধরনের সামগ্রীর বিক্রয়কেন্দ্র।

৬. চিকিৎসা সামগ্রী ও চিকিৎসা সহায়ক যন্ত্রপাতির বিক্রয়কেন্দ্র।

৭. চকলেট বা মিষ্টান্ন জাতীয় দোকান।

৮. বাড়ি বা গৃহ নির্মাণ সামগ্রী বিক্রয়কেন্দ্র।

৯. চশমার দোকান।

১০. ঘড়ির দোকান।

১১. কার্পেট, পাপোষ জাতীয় দোকান।

১২. ফার্নিচার বা ডেকোরেশনের দোকান।

ঘোষিত প্রতিষ্ঠান ও ব্যবসায়ী বিক্রয়কেন্দ্রগুলোতে হাজার হাজার প্রবাসী পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত। নতুন এই ঘোষণার ফলে হতাশা ভর করেছে প্রবাসী ব্যবসায়ীদের মাঝে। এতে অন্য দেশের প্রবাসীদের মতো বাংলাদেশি শ্রমবাজার বৃহদাকারে সঙ্কুচিত হবে বলে মনে করছেন একাধিক বাংলাদেশি ব্যবসায়ী। প্রবাসী শ্রমিক ও ব্যবসায়ীদের কাছে এই খবর বিনামেঘে বজ্রপাতের মতোই মনে হয়েছে।


ঢাকা, মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৩০, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৩১৬৯ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন