সর্বশেষ
শনিবার ৩রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৭ নভেম্বর ২০১৮

জানুয়ারিতে আমদানি বেড়েছে ২৮ শতাংশ

বুধবার, ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০১৮

13.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

জানুয়ারি মাসেই দেশের সার্বিক আমদানি ২৮ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১.০৯ বিলিয়ন ডলার বেশি। খাদ্যশস্য, মূলধনী যন্ত্রপাতি এবং জ্বালানি তেলের বেশি চাহিদা থাকায় এই আমদানি বেড়েছে বলে সরকারি সূত্রে জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ পরিসংখ্যানে জানা গেছে, গত বছরের একই সময়ের আমদানি ৩.৮৯ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে  ৪.৯৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। গত ডিসেম্বর মাসে দেশের প্রকৃত আমদানি ছিল ৩.৬৫ বিলিয়ন ডলার।

অন্যদিকে, নতুন আমদানি আদেশ (এলসি) খোলার পরিমাণ ২৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। যা গত বছর একই সময়ের (জানুয়ারি) আমদানি ৪.৩৪ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ৫.৩৩ ডলারে পৌঁছেছে। গত ডিসেম্বরে যা ছিল ৩.৮৯ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন জেষ্ঠ্য কর্মকর্তা জানান, যন্ত্রপাতি, খাদ্যশস্য বিশেষ করে চাল, গম, প্রেট্রোলিয়াম জাতীয় পণ্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সার্বিক আমদানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

শিল্প কারখানায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতির চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় গত বছরের একই সময়ের আমদানি ২৬৪.৩৪ মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ৪৮০.৫৯ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক আরও বলেছে, পদ্মা সেতুসহ সরকারের বড় বড় প্রকল্পের জন্য আগামী কয়েক মাসে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম, মূলধনী যন্ত্রপাতির (ক্যাপিটাল মেশিনারি) আমদানি বৃদ্ধি পেতে পারে।

বর্তমানে দেশে ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্পের আওতায় ৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। যার মনিটরিং করছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই।

অন্যদিকে, গত বছরের একই সময়ে চাল আমদানি ৫.৭৩ মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ২৪৯.৮৭ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছে।গম আমদানি ৫৬.২১ মিলিয়ন ডলার থেকে ১৭২.০১ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে।

আগামী কয়েক মাসে চালের মৌসুমে আমদানি কিছুটা কমবে বলে অভিমত দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এছাড়াও পেট্রোলিয়ামজাত পণ্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সার্বিক আমদানি বেড়েছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

গত বছরের জানুয়ারি মাসের তুলনায় পেট্রোলিয়াম পণ্য আমদানি ২১৮.০৪ মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ৩৭১.১৪ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছে। সামনের কয়েক মাসে সেচ কাজে জ্বালানির চাহিদা থাকার কারণে আমদানি বেড়ে যাওয়ার এ প্রবণতা অব্যাহত থাকবে বলে জানা গেছে। এছাড়াও গার্মেন্টস এক্সেসরিজ আমদানি ৬১৪.৪৩ মিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে ৭০৪.৬৯ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছে।

ওই কর্মকর্তা আরও জানান, বিশ্ববাজারে জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধির প্রবণতা সামনের দিনগুলোতে সার্বিক আমদানির ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলতে পারে।


ঢাকা, বুধবার, ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এইচ এই লেখাটি ৩৭০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন