সর্বশেষ
বুধবার ৪ঠা আশ্বিন ১৪২৫ | ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

থাইরয়েড থাকলে যে খাবারগুলো খেতে পারেন

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৯, ২০১৮

Egg.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :

বিশেষ করে মহিলারদের মধ্যেই ‘থাইরয়েড’ রোগ বেশি দেখা যায়। থাইরয়েডে অনেক কিছু খাওয়া যায় না। তবে এমন কিছু খাবার আছে যা এটি নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

থাইরয়েড একপ্রকারের হরমোন জনিত সমস্যা। থাইরয়েড শরীরে বেড়ে গেলে বা কমে গেলে ওজন বেড়ে যায়। আবার কখনো ওজন কমে যায় আরও নানা সমস্যা দেখা দেয়। যা শরীরের জন্য একেবারেই ভালো নয়। তাই জিঙ্ক, আয়রন, আয়োডিন, কপার জাতীয় খাবার বেশি করে নিজের ডায়েটে রাখুন। এই প্রত্যেকটি উপাদান থাইরয়েড গ্রন্থির কার্যকারিতাকে ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কি কি খাওয়া ভালো থাইরয়েডের রোগীদের জন্য।

লাল চালের ভাত
ব্রাউন রাইস বা লাল চালের ভাতে থাকে কার্বোহাইড্রেট। যা থাইরয়েডের সমস্যায় মোকাবিলা করতে সাহায্য করে। থাইরয়েডের সমস্যা থাকলে অনেক সময় হজম ঠিক মত হয় না খাবার। এ ভাত হজম হয়ে যায় সহজে। পাশাপাশি হজমের সমস্যা কমায়। তাই সাদা ভাতের বদলে লাল চালের ভাত খাওয়ার। চেষ্টা করুন। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে ব্রাউন রাইস গেলে তা খান থাইরয়েডের ওষুধ খাওয়ার ১ ঘণ্টা আগে।

নারকেল বা নারকেলের দুধ
নারকেল বা নারকেলের দুধ অনেক দিন আগে থেকেই থাইরয়েডের কার্যকরী উপাদান হিসেবে পরিচিত। থাইরয়েডের গ্রন্থিকে কার্যকরী রাখে। সঠিক মাত্রায় হরমোন তৈরি করে। ফলে শরীরে থাইরয়েডের ব্যালেন্স ঠিক থাকে।

দই
দই স্থাস্থের জন্য উপকারি এটা সবার জানা। দইয়ে থাকা ভিটামিন ডি থাইরয়ের বাড়া কমাকে নিয়ন্ত্রন করতে প্রয়োজন হয়। ভিটামিন ডি’র অভাব হলে শরীরে অন্য সমস্যার পাশাপাশি থাইরয়েডের সমস্যাও বেড়ে যায়। তাই যাদের থাইরয়েড আছে তারা রোজ ৫০ গ্রাম মত টক দই খেতে পারেন।

ডিম
ডিমের উপকারিতা নিয়ে নতুন করে কিছু লেখার নেই। থাইরয়েডের ক্ষেত্রে ডিমের থেকে ভালো বন্ধু আর কিছু হয় না। ডিমে থাকা নানা পুষ্টিকর উপাদান থাইরয়েডের সমস্যার সাথে অনায়াসে মোকাবিলা করতে পারে। তাছাড়া আরও হাজার একটা সমস্যার সহজ সমাধান ডিম। তবে সেদ্ধ ডিম খাওয়া বাঞ্ছনীয়। ভাজা নয়।

মাছ
যেকোনো ছোট মাছ খাওয়া উচিত থাইরয়েডের রোগীদের। তবে স্যামন মাছ বেশি কার্যকরী থাইরয়েডের ক্ষেত্রে। আমাদের এখানে এই মাছটি খুব একটা বিশেষ পাওয়া যায় না। সেক্ষেত্রে ছোট চারাপোনা মাছ খাওয়া যেতে পারে।

অন্যান্য খাবার
থাইরয়েডের সাথে মোকাবিলা করতে শরীরে প্রয়োজন সঠিক মাত্রায় কপান ও আয়োডিন। তাই যে সব খাবারে কপার, আয়োডিন বেশি মাত্রায় আছে সেইসব খাবার বেশি করে খাওয়ার চেষ্টা করুন। সবুজ শাক-সবজি, আঁশওয়ালা মাছ, কাজুবাদাম, ক্যাপ্সিকাম, বিন্স, মেথি শাক ইত্যাদি।

তবে খেয়াল রাখুন বিশেষ করে নিজের মানসিক অবস্থার। বেশি চিন্তা করলে থাইরয়েড বেড়ে যাবে, সে যত ভালো খাবারই খান না কেন! তাই চিন্তা মুক্ত থাকার চেষ্টা করুন বেশি করে। আর রেগুলার ডাক্তারের কাছে চেকাপ অবশ্যই করান। দেখবেন এই বিষয়গুলি মাথায় রেখে সঠিক ডায়েট চার্ট ফলো করলে থাইরয়েডের সমস্যা থেকে নিজেকে কিছুটা হলেও ভালো রাখতে পারবেন। থাইরয়েড রোগীদের জন্য ডিম খুব উপকারি খাবার



ঢাকা, বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৯, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ২০৬৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন