সর্বশেষ
বৃহঃস্পতিবার ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৫ নভেম্বর ২০১৮

তাসফিয়ার ভিসেরা রিপোর্ট নিরপেক্ষ রাখার দাবি পরিবারের

মঙ্গলবার, মে ২২, ২০১৮

61EDg1EZJaL._SL1296__2.jpg
চট্টগ্রাম ব্যুরো :

চট্টগ্রামে স্কুলছাত্রী তাসফিয়া আমিনের মৃত্যুরহস্য উদঘাটনে তার ভিসেরা রিপোর্ট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ রাখার দাবি জানিয়েছে তার পরিবারের সদস্যরা। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সোমবার দুপুরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তাসফিয়ার বাবা মোহাম্মদ আমিন এ দাবি জানান।

তাসফিয়া হত্যায় তৃতীয় কোনো পক্ষের ইন্ধন বা সম্পৃক্ততা রয়েছে কি-না, তা খতিয়ে দেখতে প্রশাসনের আন্তরিকতাও কামনা করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে পরিবারের দাবি তুলে ধরে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মোহাম্মদ আমিন।

প্রকৃত রহস্য উন্মোচনের স্বার্থে এ ঘটনায় সন্দেহভাজন অপরাধীদের বয়সের বদলে অপরাধ বিবেচনায় নিতে আদালতের প্রতি অনুরোধ জানান তাসফিয়ার বাবা।  প্রধান অভিযুক্ত আদনানের রিমান্ড মঞ্জুরের জন্যও অনুরোধ জানান তিনি।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার জাহেদুল ইসলাম বলেন, ময়নাতদন্তের ভিসেরা রিপোর্ট পেতে দেরি হচ্ছে। রিপোর্ট পেলেই রহস্য উন্মোচন হবে।

এদিকে তাসফিয়া হত্যা মামলার প্রধান আসামি আদনান মির্জার বাবা ইস্কান্দার মির্জা জানান, 'আদনান আমার অবাধ্য ছেলে। বন্ধুদের সাথে মিশে অবাধ্য হয়ে গেছে। ছেলেটি এতো নষ্ট হয়ে যাবে আামি ভাবিনি। তার বন্ধু সোহেলের সাথে মেলামেশার কারণেই আজকে আদনানকে কারাগারে যেতে হয়েছে। এছাড়া সে রাজনীতিক বড় ভাইয়ের নোংরা রাজনীতির শিকার।'

উল্লেখ্য, গত ২ মে সকালে স্থানীয়দের খবরে নগরের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের ১৮ নম্বর ব্রিজঘাটের পাথরের ওপর থেকে সানসাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্রী তাসফিয়া আমিনের (১৬) মরদেহ উদ্ধার করে পতেঙ্গা থানা পুলিশ।

সুরতহাল রিপোর্টে বলা হয়, মরদেহের এক চোখ উপড়ে ফেলা, অপর চোখ নষ্ট করে দেয়া ছাড়াও নাক-মুখ থেঁতলানো, পিঠ, বুক এবং নিতম্বে নির্যাতনের ছাপ পেয়েছে পুলিশ। তার বুকের মাঝেও নখের দাগ রয়েছে।

পরে একই দিন সন্ধ্যায় নগরের খুলশী থানার জালালাবাদ হাউজিং সোসাইটি এলাকা থেকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাসফিয়ার বন্ধু আদনান মির্জাকে আটক করে। আটক আদনান মির্জা বাংলাদেশ এলিমেন্টারি স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র এবং ব্যবসায়ী ইস্কান্দার মির্জার ছেলে।

এ ঘটনায় ৩ মে তাসফিয়ার বাবা বাদী হয়ে আটক আদনান মির্জাকে প্রধান আসামি করে পতেঙ্গা থানায় ৬ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তাসফিয়ার বাবা আসামিদের বিরুদ্ধে তার মেয়েকে গণধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ এনেছেন।

আদনান মির্জা মামলার আসামি ফিরোজের পরিচালিত ‘রিচ কিডস’ নামের গ্যাংস্টারের (এডমিন) প্রধান। আর বাকি চার আসামি সেই গ্যাংস্টারের সদস্য- শওকত মিরাজ, আসিফ মিজান, ইমতিয়াজ সুলতান ইকরাম ও সোহায়েল প্রকাশ সোহেল।


ঢাকা, মঙ্গলবার, মে ২২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৬৫৫৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন