সর্বশেষ
মঙ্গলবার ৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২০ নভেম্বর ২০১৮

বাড়ি ভাড়া বাড়ালে আইনি পদক্ষেপ কি?

মঙ্গলবার, মে ২২, ২০১৮

legal.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

পাঠকের প্রশ্ন : আমি একটি বেসরকারি ব্যাংকে কর্মরত। আমার অফিস রাজধানীর মতিঝিলে। আমার দুই ছেলে সন্তান আছে। তারা মতিঝিল আইডিয়াল কলেজে পড়াশোনা করে। এ কারণে আমি গত বছর মতিঝিলে বাসা ভাড়া নেই। বাড়িওয়ালা গত ৬ মাস আগে আমার বাসা ভাড়া বাড়িয়েছেন। এখন আবার ৬ মাস পরে আবারো বাসা ভাড়া বাড়ানোর কথা বলছে। আমি তা দিতে অসম্মতি জানালে বাড়িওয়ালা আমাকে বাসা ছেড়ে দিতে বলেছেন। আমার ছেলে যেহেতু লেখাপড়া করে তাই এ মুহূর্তে বাসা পরিবর্তন করা খুব কষ্টকর হয়ে যাবে। আমি এখন বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে কি ধরনের আইনগত পদক্ষেপ নিতে পারি ?   

আহম্মেদ ফারুক, ঢাকা

আইনজীবীর উত্তর : বাড়িওয়ালা যদি ভাড়া বাড়ানোর অজুহাতে আপনাকে উচ্ছেদের চেষ্টা করে তাহলে আপনি বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ এবং ভাড়া নিয়ন্ত্রকের কাছে অভিযোগ বা আরজি দায়ের করতে পারেন। বর্তমানে সিনিয়র সহকারী জজ আদালত ভাড়া নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব পালন করে থাকেন। এ নিয়ন্ত্রক কোনো অভিযোগের ভিত্তিতে আপনার দরখাস্তের বা আরজির শুনানি গ্রহন করতে পারবেন।

বাড়ি ভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন-১৯৯১ অনুযায়ী, প্রতি দুই বছর পর বাড়িওয়ালা বাড়ি ভাড়া বাড়াতে পারবেন। তবে তা-ও হতে হবে যুক্তিসঙ্গত।

এছাড়া বাড়িওয়ালা কোনো কারণে ভাড়া গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালে ভাড়াটিয়াকে চুক্তি অনুযায়ী সময়ের মধ্যে অথবা চুক্তি না থাকলে পরবর্তী মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে মানি অর্ডারযোগে বাড়িওয়ালার ঠিকানায় ভাড়া প্রেরণ করতে হবে।

মানি অর্ডারযোগে প্রেরিত ভাড়ার টাকাও যদি বাড়িওয়ালা গ্রহণ না করেন, তাহলে ওই টাকা ফেরত আসার পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে ভাড়াটিয়াকে ভাড়া নিয়ন্ত্রক, অর্থাৎ সিনিয়র সহকারী জজের বরাবর দরখাস্ত এবং একই সঙ্গে ভাড়ার টাকাও জমা দিতে হবে।

এ জন্য একজন আইনজীবীর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রক বরাবর আবেদন করতে হবে। ভাড়া নিয়ন্ত্রক প্রাথমিকভাবে শুনানির পর যদি সন্তুষ্ট হন যে ভাড়া প্রদানের জন্য অনুমতি দেওয়া যাবে, সে ক্ষেত্রে ভাড়ার টাকা আদালতে জমা দেওয়া যাবে এবং তা প্রতি মাসেই আদালতে জমা দেওয়া যাবে।

আদালতে ভাড়ার টাকা জমা দিলে আইনতভাবে ভাড়াটিয়াকে ভাড়াখেলাপি হিসেবে বলার সুযোগ থাকবে না।

বাড়ি ভাড়া নেওয়ার সময় বাড়িওয়ালার সঙ্গে লিখিত চুক্তি করে নিন। সেই চুক্তিতে কী কী শর্তে ভাড়া দেওয়া হলো এবং করণীয় কী, সেসব নির্দিষ্ট করে দিতে হবে।

চুক্তিপত্রে ভাড়া কখন বাড়ানো যাবে এবং তা কোন হারে বাড়বে, অগ্রিম কত জমা দিতে হবে, কখন বাড়িওয়ালা ভাড়াটিয়াকে বাড়ি ছাড়তে বলতে পারেন, ভাড়াটিয়া কখন বাড়ি ছাড়বেন, তা অবশ্যই চুক্তিপত্রে উল্লেখ করতে হবে।

আর প্রতি মাসে বাড়িওয়ালার কাছ থেকে ভাড়ার লিখিত রসিদ সংগ্রহ করে রাখতে হবে।

শুভ্র সিনহা রায়
এডভোকেট
বাংলাদেশ, সুপ্রীমকোর্ট

সূত্র:এনটিভি অনলাইন


ঢাকা, মঙ্গলবার, মে ২২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৮১৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন