সর্বশেষ
মঙ্গলবার ৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২০ নভেম্বর ২০১৮

শপিংমল, কারপার্কিং ও ব্যাংক লেনদেনে নিরাপত্তায় ডিএমপি'র পরামর্শ

শনিবার, জুন ২, ২০১৮

5.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

নাগরিক জীবনের নিরাপত্তা বিধান এবং ঈদের অনাবিল আনন্দ ও শান্তি অটুট রাখতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ আপনাদের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছে।

পবিত্র রমজান মাস এবং ঈদ-উল-ফিতরে ব্যক্তি ও সম্পদের নিরাপত্তায় মেনে চলুন ডিএমপি'র পরামর্শসমূহ।- খবর: ডিএমপি নিউজ

মার্কেট, শপিংমল, কারপার্কিং ও ব্যাংক লেনদেন বিষয়ে নিরাপত্তা:

# ঈদের পূর্বে শেষ কেনাকাটার দিনে মার্কেট/শপিংমলে কোন নগদ অর্থ রাখবেন না।

# মার্কেট/শপিংমল ত্যাগের পূর্বে অবশ্যই নিশ্চিত হোন যে, আপনার প্রতিষ্ঠান যথাযথভাবে তালাবদ্ধ করা হয়েছে।

# স্বর্ণের দোকান, ব্যাংক, বীমা, অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠান হলে সিসিটিভি এবং এলার্মস্কিম ব্যবহার করুন এবং নিশ্চিত হোন তা সক্রিয় রয়েছে কি না।

# ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন এবং টাকা বহনে সর্বদা সতর্ক থাকুন। বড় অংকের অর্থ বহনে প্রাইভেটকার কিংবা মাইক্রোবাস ব্যবহার করুন। প্রয়োজনে অর্থ স্থানান্তরে পুলিশের সহায়তা নিন।

# মার্কেট/শপিংমলে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মচারীর বিশ্বস্ততা সম্পর্কে নিশ্চিত হোন এবং তাদের ঠিকানাসহ ছবি ও অন্যান্য তথ্য সংগ্রহে রাখুন।

# মার্কেট/শপিংমলের সকল চাবি নিজের কাছে রাখুন।

# গাড়ি পার্কিং এর জন্য নির্ধারিত স্থান ব্যবহার করুন।

# গাড়ি পার্কিং এর সু-ব্যবস্থা এবং নিরাপত্তা রয়েছে এ ধরণের মার্কেট/বিপণী-বিতান হতে কেনাকাটা করা উত্তম।

# মার্কেট বা বিপণী-বিতানে পার্কিং এর সুব্যবস্থা না থাকলে গাড়ি নিকটতম পে-পার্কিং এ রাখুন অথবা গাড়িতে সর্বদা ড্রাইভারকে অবস্থান করার পরামর্শ দিন।

# গাড়িতে স্টিয়ারিং লক ব্যবহার করুন।

# গাড়ি পার্কিং শেষে গাড়ির দরজা লক করেছেন কিনা তা যাচাই করে নিন। মোটরবাইক এর উভয় চাকায় লক ব্যবহার করুন। অননুমোদিত স্থানে মোটরবাইক রাখবেন না।

# আপনার গাড়ির ড্রাইভার নতুন হলে বিশ্বস্ততার বিষয়ে নিশ্চিত হন এবং তার ছবি ও ঠিকানাসহ সকল তথ্য সংগ্রহে রাখুন।

# ঈদে ছুটিতে যাওয়ার পূর্বে গাড়ি গ্যারেজে রেখে গেলে গাড়ির সকল কাগজপত্র অন্যত্র সরিয়ে রাখুন।

# গাড়ি চুরি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য অটোমেটিক এলার্ম/কার লক/জিপিএস/জিএসএম ডিভাইস ব্যবহার করুন।

# রাস্তা, ফুটপাত দখল করে কেউ ইফতারের পসরা সাজাবেন না বা বিক্রি করবেন না।

# ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া যত্রতত্র কেউ ইফতার ও ঈদের পন্য বিক্রি করবেন না।

# মার্কেট বা বিপনীবিতানে যাবার সময় দামি অলংকারাদি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

# মার্কেট/শপিং মলে প্রবেশ ও বের হওয়ার সময় অনাকাঙ্খিত ভিড় ও ধাক্কাধাক্কি পরিহার করুন।

# পকেটমার, ছিনতাইকারী, প্রতারক ও দুস্কৃতিকারী হতে সাবধান হোন।

# যতদূর সম্ভব দিনের আলোয় কেনাকাটা শেষ করার চেষ্টা করুন। ঝুঁকি এড়াতে অধিক রাতে কেনাকাটা পরিহার করুন।

# ইভটিজিং রোধে মার্কেট কমিটি/পুলিশকে অবহিত করুন।

# মালিক পক্ষ স্ব স্ব মার্কেট/শপিংমলের নিরাপত্তা ব্যবস্থার জোরদার করুন এবং আপনার এলাকার থানা/ফাঁড়ির সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখুন। এছাড়া নিরাপত্তার স্বার্থে সিসিটিভি স্থাপন করুন।

# মার্কেট/শপিংমল সংলগ্ন কোন বাসা, মেস, হোটেল বা রেস্টুরেন্ট থাকলে অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করুন যেন কেউ আপনার মার্কেট/শপিংমলের দেয়াল ভেঙ্গে বা ফুটো করে ভিতরে প্রবেশ করতে না পারে।

# দোকানের ক্যাশ, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে নিজস্ব নিরাপত্তায় এবং প্রয়োজনে পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে ব্যাংকে জমা দেওয়ার ব্যবস্থা করুন।

# মার্কেট/শপিংমলের সামনে কোন সন্দেহজনক লোককে ঘোরাফেরা করতে দেখলে সঙ্গে সঙ্গে তা পুলিশকে অবহিত করুন।

# মালিক পক্ষ স্ব স্ব মার্কেট/শপিং মলের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নিরবিচ্ছিন্ন রাখতে নিজেদের জেনারেটর ব্যবহারে অধিক তৎপর হোন।

যেকোন সময় যেকোন প্রয়োজনে সাহায্য পেতে সরাসরি ফোন করুনঃ

জাতীয় জরুরী সেবাঃ ৯৯৯
পুলিশ কন্ট্রোল রুমঃ ০১৭১৩-৩৯৮৩১১, ৯৫৫৯৯৩৩, ৯৫৫১১৮৮, ৯৫১৪৪০০।
ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমঃ ০১৭১১-০০০৯৯০, ০১৭০৭-৮০৬১১১, ০১৭০৭-৮০৬২২২, ০১৭০৭-৮০৬৮৮৮।
ডিবি কন্ট্রোল রুমঃ ০২-৯৩৬২৬৪০, ২২৬৭০(ডিএমপি)
ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারঃ ০১৭১৩-৩৯৮৭৫৬-৭


ঢাকা, শনিবার, জুন ২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // এস আর এই লেখাটি ৫৬৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন