সর্বশেষ
সোমবার ৯ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

তেঁতুলিয়াকে বদলে দিচ্ছে চা বাগান

সোমবার, জুলাই ৯, ২০১৮

ggg.jpg
পঞ্চগড় প্রতিনিধি :

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া হচ্ছে উত্তরবঙ্গের শেষ উপজেলা।তেঁতুলিয়া মানুষ জীবিকার জন্য পেয়েছে অনেক ধরনের পথ। ফসল চাষের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিলো কৃষক। এখন তেঁতুলিয়ার মাটিতে পাওয়া যাচ্ছে পাথর। পাথর উত্তোলন করে চলছে হাজার হাজার মানুষের জীবিকা, কিন্তু কেউ কখনো ভাবে নি তেঁতুলিয়ায় চা চাষ হবে। চা চাষ নিয়ে কোন দিন ভাবেও নি। ভাবে নি কখনো তেঁতুলিয়াকে বদলে দিবে চা বাগান।

১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মো. রবিউল হোসেনের তত্ত্বাবধানে সীমান্তঘেঁষা উপজেলা তেঁতুলিয়ায় লাগে চা চাষের ছোয়া। প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হলেও বাণিজ্যিক রূপ লাভ করে ২০০০ সালের দিকে।

তেঁতুলিয়ায় সফলতার পর পঞ্চগড়ের বিস্তীর্ণ সমতল ভূমিতে বিস্তার লাভ করেছে চা-বাগান। অর্থকরী ফসল সবুজ চায়ের আবাদে দিন দিন আগ্রহ বাড়ছে ব্যবসায়ীদের। সিলেট কিংবা চট্টগ্রামে উঁচু-নিচু ভূমি থাকলেও এখানকার সব বাগান একেবারেই সমতল। সমতলের এ চায়ের সফলতা প্রভাব ফেলেছে গোটা দেশের চা-শিল্পে। স্বাদেও অতুলনীয় পঞ্চগড়ের জেলার চা। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বর্তমানে পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও জাপানসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রপ্তানিও হচ্ছে।

তেঁতুলিয়ার মাটি পরিত্যক্ত থাকতো বছরের পর বছর। পতিত জমি ব্যবহার করা হতো গো-চারণভূমি হিসেবে। অথচ এই পতিত জমির পাশেই সীমান্তের ওপারে একই জমিতে চা চাষ করতো ভারতীয়তা। তা দেখে চা চাষে আগ্রহ বাড়ে তেঁতুলিয়ার মানুষের। মাত্র ক’বছরেই তেঁতুলিয়া উপজেলার বিশাল ভূমি চায়ের সবুজ পাতায় ভরে যায়। প্রায় পাঁচ হাজারের বেশি নারী-পুরুষের কর্মসংস্থান হয়েছে এই চা বাগানে। আগে যেখানে নারীরা ঘর থেকে বের হতো না, সেই নারীরাই এখন চা-শিল্পের সঙ্গে যুক্ত হয়ে সংসারের হাল ধরেছেন। জেলায় চা চাষ হওয়ায় সংশ্লিষ্টদের নয় মাসের আয়ের পথ তৈরি হয়েছে। হয়েছে স্থানীয় বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানও। ফলে এই এলাকার জমির দাম বেড়েছে কয়েক গুণ।

সমতলেও চা বাগান দেখতে প্রতি নিয়ত আসছে পর্যটক। তারা মুগ্ধ তেঁতুলিয়ার সমতল চা বাগান দেখে।

বাংলাদেশ চা বোর্ড, পঞ্চগড়ের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা কৃষিবিদ ড. মোহাম্মদ শামীম আল-মামুন জানান, পঞ্চগড় জেলায় ৫ হাজার ১৯৯.৭৯ একর জমি চা চাষের আওতায় রয়েছে। এ পর্যন্ত নিবন্ধিত ছোট চা-বাগান ৬৬২টি, অনিবন্ধিত প্রায় ৩ হাজার ৫শ। নিবন্ধিত বড় চা-বাগান ৭টি ও অনিবন্ধিত বড় চা-বাগান ১৮টি।

পঞ্চগড় জেলায় ২০১৭ সালে তৈরি চা উৎপাদন হয়েছে ৫৪ দশমিক ৪৬ লাখ কেজি। চলতি বছর প্রায় ৭০ লাখ কেজি উৎপাদনের আশা করা হচ্ছে। পঞ্চগড়ে চা প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানার সংখ্যা রয়েছে ২১টি। তবে বর্তমানে চালু রয়েছে ১২টি।

রবিউল ইসলাম, তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়)


ঢাকা, সোমবার, জুলাই ৯, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৮৭৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন