সর্বশেষ
রবিবার ৮ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শাহজাদপুরের আকাশে দেখা গেল বিরল সূর্য বলয়

বৃহস্পতিবার, জুলাই ১২, ২০১৮

jjj.jpg
ফারুক হাসান কাহার, শাহজাদপুর প্রতিনিধি :

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার আকাশে বৃহস্পতিবার দুপুরে দেখা গেল বিরল সূর্য বলয়। এ ধরণের বলয় যা আগে কখনও দেখা যায়নি। সকাল সোয়া ১১টার দিকে উপজেলার পৌর সদরের মনিরামপুর বাজারের বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে দেখা গেল মানুষ জন দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছেড়ে রাস্তায় বের হয়ে অবাক বিস্ময়ে আকাশের পানে চেয়ে রয়েছে। কারো মুখে কোন কথা নেই। শুধু আকাশের দিকে হা করে চেয়ে আছে। সবার মত আকাশের দিকে তাকাতেই প্রখর রোদে চোখ যেন ঝাপসা হয়ে এলো।

দ্বিতীয় বার তাকাতেই চোখে পড়ল অবাক কান্ড। মূহুর্তে মোবাইল ফোনে ছবি তোলার ধুম পড়ে গেল। চারদিক থেকে ফোন আসতে শুরু করল। সবারই একই প্রশ্ন সাংবাদিক সাহেব আকাশে এটা কি। এটা কোন ক্ষতিকারক কি না। তা না জেনেই অনেকেই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে। তাদের এই বিরল বিষয়টি সম্পর্কে ধারণা দিতেই তারা হুমরি খেয়ে পড়ে আকাশ পানে।

এ সময় অনেক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকরাও ক্লাস ছেড়ে বাইরে চলে আসে। তারাও এ অপরূপ সৌন্দর্য্য মন্ডিত সূর্য বলয়ের রং রূপ উপভোগ করেন। প্রায় পৌনে ১ ঘন্টা স্থায়ী এই বিরল রংয়ের খেলা চলাকালে ক্ষণে ক্ষণে এর রং বর্ণ ও আকার আকৃতির পরিবর্তন হচ্ছিল। প্রতিটা পরিবর্তনেই ছিল নতুনত্ব। যা আগে এ এলাকার মানুষ দেখেনি।  

শাহজাদপুর ইব্রাহিম মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকা মির্জা বিলকিস, রফিকুল ইসলাম, রাজিয়া সুলতানা, ফরিদা আক্তার, রওশন আরা, নাজমা সুলতানা, খাদিজা খাতুন, আতিয়া পারভীন জানান, প্রথমে ছাত্র-ছাত্রীরা সাড়ে ১১টার দিকে ক্লাস ছেড়ে বাইরে চলে আসে। তাদের সবাইকে আকাশ পানে চেয়ে থাকতে দেখে শিক্ষক রাও বাইরে এসে সূর্যের এ অপরূপ ও অবাক করা বিরল দৃশ্য দেখে মুগ্ধ হয়ে পড়েন। অনেকেই এ দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করতে শুরু করেন। মূহুর্তে তা ফেসবুকে ছেড়ে দিলে এলাকা জুড়ে সূর্য বলয় দেখার ঝড় ওঠে। মূহুর্তে থেমে যায় সকল খানের কর্মচাঞ্চল্যতা।

দুর্গম যমুনা নদীর চরের গ্রাম ধীতপুরের সবুজ মিয়া, চয়ন ইসলাম, রাজু, সাকিব, আজিম, ছোট চানতারা গ্রামের আব্দুর রহমান, নওশাদ আলী, ইউসুফ, মুক্তার হোসেন, সাইদুল, সোনাতুনি গ্রামের সৌরভ, নবাব, বাবু, নয়ন, রাসেল জানান, তারা মাঠে কাজ করার সময় এ দৃশ্য দেখতে পান। তারা এ দৃশ্য দেখে প্রথমে ভয় পান। পরে অবাক নয়নে তা উপভোগ করেন। মেঘের লুকোচুরির মাঝে সূর্যের চারপাশের রংধনুর মত উজ্জ্বল বলয়টি। ঠিক যেন একটা গোলাকার বৃত্ত। তার মাঝখানে সূর্য উজ্জ্বল কিরণ ছড়াচ্ছে।

ঠিক তার কিছু নীচে চোখ আকারের আরো একটি বস্তু প্রথমে নীল বর্ণ ছড়ায়। পরে রং পরিবর্তণ হয়ে লাল বর্ণ ধারণ করে। অনেকেই ওটাকে চন্দ্র বলেও ধারণা করেন। আসলে ওটা কি ছিল তা কেউই পরিষ্কার করে বলতে পারেনি।

আকাশের দিকে শুধু পথচারিরাই নয় অফিস, আদালত ও বাসা বাড়ির লোকজনও এ দৃশ্য উপভোগ করে। এতে পুরো শাহজাদপুর জুড়ে আলোড়ন ও চাঞ্চল্যর সৃষ্টি হয়।

এ ব্যাপারে শাহজাদপুর সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক, মাহবুবুর রহমান মিলন ও আসমত আলী জানান, মূলত সূর্য গ্রহণের সময় পৃথিবী, চাঁদ ও সূর্য একই সরল রেখায় অবস্থান করে। তাই এ সময় সূর্য ও পৃথিবীর মাঝখানে চাঁদের অবস্থানের কারণে সাময়িক ঢেকে যায় সূর্য। তখন আকাশে এমন আলোর বলয় তৈরী হয়।

তবে এই বলয়টি সূর্যকে মেঘে ঢেকে ফেলায় রংধনুর মতোই রঙিন হয়ে দেখা দিয়েছে। যা অতি সুন্দর ও নান্দনিক দৃশ্যে পরিণত হয়েছে বলে তারা মনে করেন।


ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জুলাই ১২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৩২২১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন