সর্বশেষ
বুধবার ১১ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮

চলনবিলের শাপলায় জীবিকা

বুধবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৮

Tarash.jpg
সোহেল রানা সোহাগ, সিরাজগঞ্জ থেকে :

দেশের বৃহত্তম জলাভূমি চলনবিলের আনাচে কানাচে ফুটেছে জাতীয় ফুল শাপলা। সৌন্দর্য বৃদ্ধির পাশাপাশি বিলপারের দরিদ্র  জনগোষ্ঠী  জীবিকা  নির্বাহ করছে শাপলা বিক্রি করে। শাপলা লতা কচুর লতার ন্যায় মাছের তরকারিতে ব্যবহৃত হয়। যা অত্যন্ত সুস্বাদু। তাই বাজারে এর যথেষ্ট চাহিদা রয়েছে। অনেকে আবার শাপলা ফুলের মালা তৈরি করে হাট-বাজারে বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করছেন।

সরজমিনে বিলপারের গ্রাম তাড়াশ উপজেলার কন্দইল,দীঘি সগুনা,মাকোর শোন,ধাপতেতুলীয়,ভেটুয়া সহ অনেক গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে গ্রামের দরিদ্র জনগোষ্ঠি বিল থেকে শাপলা তুলে হাট-বাজারে নিয়ে যাচ্ছেন বিক্রির জন্য। অনেক দরিদ্র শিশু-কিশোররা ফুটন্ত শাপলার মালা তৈরি করে বিক্রি করছে বিলপারের বিভিন্ন হাট-বাজারে। চলনবিলের ভেটুয়া গ্রামের বিধবা নারী জোসনা বেগম (৩৫) জানান, বর্ষা মৌসুম শুরু হলেই চলনবিল থেকে শাপলা তুলে পাড়া- মহল্লা সহ নিকটবর্তী হাট-বাজারে বিক্রি করি। প্রতি আঁটি শাপলা ২৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করা যায়। এভাবেই প্রতিদিন শাপলা বিক্রি করে ২টি শিশু-সন্তান নিয়ে চলছে তার জীবন।

দীঘি সগুনা বাজারে শাপলা বিক্রি করতে আসা মাকোর শোন গ্রামের রাকিবুল (১৮) বলেন, জীবিকার তাগিদে বিল থেকে শাপলা তুলে বাজারে বিক্রি করি। প্রতিদিন ২ থেকে ৩শ’ টাকা আয় হয়। যা দিয়েই চলে আমাদের অভাবের সংসার ।

তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাইফুল ইসলাম বলেন, বর্ষা মৌসুমে চলনবিলে প্রচুর শাপলা ফোটে। শাপলা লতা তরকারিতেও বেশ সুস্বাদু। তাই চলনবিলের অনেক দরিদ্র পরিবারের সদস্যরা শাপলা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে।   


ঢাকা, বুধবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // উ জ এই লেখাটি ৬৫১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন