সর্বশেষ
সোমবার ৬ই কার্তিক ১৪২৬ | ২১ অক্টোবর ২০১৯

ব্যাটিং ব্যর্থতায় কঠিন বিপদে বাংলাদেশ

রবিবার, নভেম্বর ৪, ২০১৮

2ac27f7f66b155fb724a2a497d50f7f2-5bdece19102e1.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

সিলেট টেস্টে দ্বিতীয় দিন শেষ হয়েছে। তবে এরই মধ্যে হার দেখছে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের ২৮২ রানের জবাবে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস গুটিয়ে গেছে মাত্র ১৪৩ রানে।

ফলোঅন এড়াতে পারলেও হার এড়াতে অসম্ভব কিছু করতে হবে বাংলাদেশের। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে জিম্বাবুয়ে মাত্র ১ রান যোগ করার পর বেল তুলে নেন আম্পায়ার। ১৪০ রানে এগিয়ে রয়েছে জিম্বাবুয়ে।

সিলেটে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই জিম্বাবুয়ের বোলারদের তোপের মুখে পড়ে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরা।  চতুর্থ ওভারের পঞ্চম ডেলিভারিতেই তেন্ডাই চেতারার বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ইমরুল (৫)। এরপর কাইল জার্ভিসের বলে লুজ শট খেলতে গিয়ে মাত্র ৯ রানে উইকেটকিপার চাকাভার হাতে আটকা পড়েন আরেক ওপেনার লিটন কুমার দাস।

চারে নামা নাজমুলকেও (৫) থিতু হতে দেননি চাতারা। শরীরের ভারসাম্য রাখতে না পারায় ব্যাটের কানায় লেগে বল চলে যায় উইকেটকিপারের হাতে। জিম্বাবুয়ের সফল রিভিউতে মাত্র ৫ রানে ফেরেন শান্ত। শান্তর পর দায়িত্ব নিতে মাঠে নামেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কিন্তু ছন্দে থাকা চাতারা তুলে নিয়েছেন তাকেও। তার বিদায়ে ১৯ রানে চার উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ।

চার ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে দিশেহারা বাংলাদেশের আশা জাগে মুশফিক-মুমিনুলের ব্যাটে। কিন্তু পঞ্চম উইকেটে ৩০ রান যোগ করার পর সিকান্দার রাজার বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন মুমিনুল। ফেরার আগে ২৪ বলে ১১ রান করেছেন তিনি। মাত্র ৪৯ রানে অর্ধেক ব্যাটসম্যানদের হারিয়ে ফেলে স্বাগতিকরা।

এরপর আরিফুলকে নিয়ে জুটি বাঁধেন মুশফিক। ২৯ রান যোগ করার পর মুশফিকের আউটে ভাঙে সেই জুটি। চা-বিরতির পর কাইল জার্ভিসের শিকার হন তিনি।  ৫৪ বলে পাঁচ চারে ৩১ রান করে ফিরেন মুশফিক। ৭৮ রানে স্বাগতিকরা হারায় ষষ্ঠ উইকেট।

মিরাজকে নিয়ে নতুন যুদ্ধ শুরু হয় আরিফুলের। তাদের ব্যাটে ভর করে একশ’র কোটা পার করে বাংলাদেশ। কিন্তু দারুণ খেলতে থাকা মিরাজ কাটা পড়েন অকেশনাল বোলার শন উইলিয়ামসের হাতে ক্যাচ দিয়ে। এরপর ১৩১ রানে অষ্টম উইকেট তাইজুলকে (৮) হারায় বাংলাদেশ। তাইজুলের পর চার রানে ফেরেন অপু।অবশেষে রাহীর রান আউটে শেষ হয় বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস।

দলের হয়ে একাই লড়েছেন টেস্টে নতুন অভিষিক্ত হওয়া আরিফুল হক। দল যখন চরম বিপদে তখন চাপ সামলে একাই লড়ে যান তিনি। যোগ্য সঙ্গীর অভাবে বড় জুটি গড়তে না পারলেও বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৪১ রান আসে তার ব্যাট থেকেই। ইনিংস শেষে অপরাজিত ছিলেন তিনি।

জিম্বাবুয়ের পক্ষে ১৯ রান দিয়ে তিনটি উইকেট নেনে তেন্ডাই চাতারা। ৩৫ রান দিয়ে সমান তিন উইকেট পান সিকান্দার রাজাও। আর ২৮ রানে কাইল জার্ভিসের শিকার ২ উইকেট।

এর আগে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ২৮২ রানে অলআউট হয় জিম্বাবুয়ে। ৫ উইকেটে ২৩৬ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করে সফরকারীরা। কিন্তু রবিবার সকালে বাকি পাঁচ উইকেট নিয়ে মাত্র ৪৬ রান তুলতে পারে জিম্বাবুয়ে।

বাংলাদেশের হয়ে বল হাতে উজ্জ্বল ছিলেন তাইজুল ইসলাম। প্রথম দিন ২ উইকেট তিনি। রবিবার সকালে ৫ উইকেটের চারটিই দখল করেনে এই বাঁহাতি স্পিনার। মোট ১০৮ রান দিয়ে ৬ উইকেট নেন তিনি।


ঢাকা, রবিবার, নভেম্বর ৪, ২০১৮ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৯৬০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন