সর্বশেষ
শনিবার ১০ই ফাল্গুন ১৪২৬ | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আর কোনো উপায় ছিল না: হ্যারি

সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০

prince-harry.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

হ্যারি-মেগান দম্পতি গত ৮ জানুয়ারি আকস্মিক এক ঘোষণায় রাজকীয় দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে স্বনির্ভর জীবনযাপনে যুক্তরাজ্যের পাশাপাশি কানাডায় বসবাসের কথা জানান। তাদের ওই ঘোষণায় ব্রিটিশ রাজপরিবারে তোলপাড় শুরু হয়। তাদের ওই সিদ্ধান্ত থেকে ফেরাতে ১৩ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের নরফক কাউন্টির স্যান্ড্রিংহ্যাম প্রাসাদে হ্যারির সঙ্গে বৈঠক করেন রানি এলিজাবেথ ও তার উত্তরাধিকারেরা।

বৈঠকে রানি হ্যারি ও মেগানের নতুন সিদ্ধান্তের ব্যাপারে তার ‘পূর্ণ সমর্থন’ থাকার কথা জানান। তবে রানি জানান, তিনি চাইছেন হ্যারি-মেগান রাজপরিবারের সদস্য হিসেবেই পুরো সময় দায়িত্ব পালন করুন। এর পরও হ্যারি-মেগান তাদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে না আসায় গত শনিবার (১৮ জানুয়ারি) বাকিংহাম প্রাসাদ এক বিবৃতিতে জানায়, যুক্তরাজ্যের ডিউক অব সাসেক্স প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী ডাচেস অব সাসেক্স মেগান মার্কেল তাদের রাজকীয় উপাধি আর ব্যবহার করতে পারবেন না। চলতি বছরের বসন্ত থেকেই এটি কার্যকর হবে।

এ বিষয়ে অবশেষে মুখ খুললেন হ্যারি। জানালেন, সরে আসা ছাড়া তার কোনো উপায় ছিল না। লন্ডনের এক অনুষ্ঠানে প্রিন্স হ্যারি বলেন, তিনি এবং তার স্ত্রী মেগান সরকারি তহবিলের অর্থ ছাড়াই রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের হয়ে তাদের কাজ অব্যাহত রাখার আশা করেছিলেন।

বিবিসি অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, পদ ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণার পর গতকাল সন্ধ্যায় প্রথমবারের মতো এ নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলেন প্রিন্স হ্যারি। একটি সংস্থার আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলের এইচআইভি-আক্রান্ত শিশুদের জন্য তহবিল সংগ্রহবিষয়ক এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সেন্টেবালে নামের ওই দাতব্য সংস্থাটির তিনি সহযোগী প্রতিষ্ঠাতা। হ্যারি বলেন, ‘সত্যিই আর কোনো উপায় ছিল না।’ তিনি স্পষ্ট করেন, জ্যেষ্ঠ সদস্যের পদ ছাড়লেও তিনি ও মেগান দূরে সরে যাচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাজ্য আমার ঘর এবং এমন একটি স্থান, যা আমি ভালোবাসি, এটা কখনো পরিবর্তন হবে না।’

হ্যারি বলেন, ‘গত সপ্তাহগুলোতে আপনারা যা পড়েছেন, যা শুনেছেন, তা আমি শুধু অনুমান করতে পারি। তাই একজন প্রিন্স বা ডিউক হিসেবে নয়, হ্যারি হিসেবে আমি আপনাদের যতটুকু পারি সত্য জানাতে চাই।’ রানি এলিজাবেথের পাশে থাকার কথা উল্লেখ করে হ্যারি বলেন, ‘আমার পরম শ্রদ্ধেয় দাদি, আমার কমান্ডার ইন চিফের পাশে সব সময় থাকব।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি তহবিল ছাড়া রানি, কমনওয়েলথ, সামরিক সংস্থার সঙ্গে কাজ অব্যাহত রাখার প্রত্যাশা ছিল আমাদের। তবে দুর্ভাগ্যজনকভাবে তা সম্ভব না। আমি এটা মেনে নিয়েছি এটা জেনেই যে, আমি কে অথবা আমি কতটা অঙ্গীকারবদ্ধ তা পরিবর্তন করতে পারব না।’


ঢাকা, সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ৩৮৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন