সর্বশেষ
সোমবার ২৯শে আষাঢ় ১৪২৭ | ১৩ জুলাই ২০২০

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর উইম্বলডনের ইতিহাসে এমন ঘটনা

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২, ২০২০

wim.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

উইম্বলডন শুরু হওয়ার কথা ছিল ২৯ জুন। কিন্তু করোনার প্রাদুর্ভাবে প্রতিযোগিতা বাতিল করা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না আয়োজক ইংল্যান্ড লন টেনিস ক্লাবের। পঁচাত্তর বছরে যা হয়নি এ বার তাই হল। বুধবার এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর উইম্বলডনের ইতিহাসে এমন ঘটনা ঘটেনি। পঁচাত্তর বছর পর সেই ঘটনাই ঘটল।

আয়োজক অল ইংল্যান্ড লন টেনিস ক্লাবের চেয়ারম্যান ইয়ান হিউইট বলেন, এই সিদ্ধান্তটা আমরা হাল্কা ভাবে নিইনি। আমরা জনস্বাস্থ্যের কথা ভেবেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বিশ্বযুদ্ধ ছাড়া যে উইম্বলডন আয়োজনে কখনও ব্যাঘাত ঘটেনি, সেটা আমাদের মাথায় ছিল। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে আমাদের মনে হয়েছে প্রতিযোগিতা বাতিল করাটাই ঠিক সিদ্ধান্ত।

তিনি আরও বলেছেন, আমরা এখন চেষ্টা করব আমাদের সাধ্যমতো স্থানীয় মানুষদের এই বিপদে সাহায্য করতে। উইম্বলডনই শুধু নয়, ঘাসের কোর্টের মরসুমই বাতিল হয়ে গেল। ১৩ জুলাইয়ের আগে বিশ্বের কোথাও পেশাদার টেনিস হওয়ার সম্ভাবনা নেই।উইম্বলডন বাতিল হওয়ার অর্থ আট বারের চ্যাম্পিয়ন রজার ফেদেরার এবং সাত বারের সেরা সেরেনা উইলিয়ামসকে হয়তো আর ঘাসের কোর্টের এই গ্র্যান্ড স্ল্যামে দেখা যাবে না। কারণ, ২০২১ সালে ফেদেরার এবং সেরেনার বয়স প্রায় ৪০ বছরের কাছাকাছি হয়ে যাবে। সেরেনা গত বার ফাইনালে সিমোনা হালেপের কাছে হেরে গিয়েছিলেন। ২৩টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক সেরেনা আর একটি জিতলেই মার্গারেট কোর্টের নজির স্পর্শ করবেন। এ বার অন্তত বিশ্বখ্যাত সেন্টার কোর্টে সেই রেকর্ড গড়ার সুযোগ তিনি পাবেন না।

উইম্বলডন বাতিল হয়ে যাওয়ার খবর শুনে দুই তারকাই প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। ফেদেরার টুইটারে লিখেছেন, ‘বিধ্বস্ত লাগছে।’ সেরেনার টুইট, ‘খবরটা শুনে সন্ত্রস্ত।’ গত বারের চ্যাম্পিয়ন হালেপের প্রতিক্রিয়া, ‘উইম্বলডন এ বার আয়োজিত হবে না শুনে খুব খারাপ লাগছে। গত বারের ফাইনালটা আমার জীবনের অন্যতম আনন্দের মুহূর্ত হয়ে থাকবে। কিন্তু এই মুহূর্তে আমরা টেনিসের থেকেও আরও বড় একটা লড়াই করছি। উইম্বলডন ফিরবে। সূত্র: আনন্দবাজার


ঢাকা, বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এ এম এই লেখাটি ২৭৩ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন