সর্বশেষ
মঙ্গলবার ১৯শে জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ | ০২ জুন ২০২০

আইসোলেশনের জন্য যাত্রীবাহী লঞ্চ প্রস্তুত: প্রতিমন্ত্রী

শনিবার, এপ্রিল ৪, ২০২০

no.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধ এবং মোকাবিলার ক্ষেত্রে চিকিৎসা পদ্ধতি অনুসরণ করে যাত্রীবাহী লঞ্চগুলোকে ‘আইসোলেশন সেন্টার’ হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এক্ষেত্রে লঞ্চ মালিকদের সম্মতি পাওয়া গেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

শনিবার (৪ এপ্রিল) ঢাকা সদরঘাটে লঞ্চ মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করে এ সিদ্ধান্ত জানান নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, লঞ্চগুলোতে আইসোলেশন সেন্টার করা হলে উপকূলীয় অঞ্চলে যেখানে করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা পৌঁছেনি, সেখানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে এ ব্যবস্থা খুবই গুরত্বপূর্ণ হবে।

তিনি বলেন, ‘লঞ্চের নিরাপত্তার বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে। তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তের কারণে লঞ্চগুলো বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সঙ্গে কথা বলে লঞ্চগুলোকে কীভাবে নিরাপদ জায়গায় আনা যায় সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা নৌযান শ্রমিকদের পাশে আছি। করোনা সংক্রান্ত সংকট থেকে উত্তরণ না হওয়া পর্যন্ত সরকার নৌযান শ্রমিকদের পাশে থেকে সহযোগিতা করবে। লঞ্চ মালিকদের বিষয়টি সরকার নিশ্চয়ই দেখবে। সরকার রফতানি পণ্যের ক্ষেত্রে ইতিমধ্যে প্রণোদনা দিয়েছে। নৌপরিবহন সেক্টরটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নৌপথে ৩৫ ভাগ পরিবহন হয়ে থাকে, পজিটিভ দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে এ খাতকে দেখা হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী, নৌপরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমডোর সৈয়দ আরিফুল ইসলাম, বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, অভ্যন্তরীণ নৌযান (যাত্রী পরিবহন) সংস্থার চেয়ারম্যান মাহবুবউদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম, বদিউজ্জামান বাদল এবং শহীদুল ইসলাম ভূইয়া।


ঢাকা, শনিবার, এপ্রিল ৪, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // রি সু এই লেখাটি ৩৯১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন