সর্বশেষ
শুক্রবার ২০শে অগ্রহায়ণ ১৪২৭ | ০৪ ডিসেম্বর ২০২০

টাকায় একদিন, মাস্কে সাতদিন বাঁচে করোনাভাইরাস: গবেষণা

শুক্রবার, এপ্রিল ১০, ২০২০

image-89860-1586448028.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। প্রতি মূহুর্তে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এখন পর্যন্ত ৯৫ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় মারা গেছে। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী আক্রান্ত হয়েছে ১৬ লাখের বেশি মানুষ।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাস থেকে দূরে থাকতে সাধারণ মানুষ একের পর এক উপায় খোঁ'জে বের করছেন। কখনো মাস্ক কখনো আবার গ্লাভসের সহায়তা নিয়েছেন। কোভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রয়োজন সচেতনতা। এছাড়াও জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনতে হবে, বাইরে থেকে এসে সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে ভালোভাবে দুই হাত ধুতে হবে। করোনা ঠেকাতে হাত ধোয়ার ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কারণ, আমরা অনেক সময় নিজের অজান্তেই মুখে, নাকে, চোখে অপরিষ্কার হাত দিই। এতে করে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।এদিকে করোনা থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করতে একের পর এক সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বিভিন্ন দেশের প্রশাসনগুলো। এমন পরিস্থিতিতে হংকংয়ের বিজ্ঞানীদের একটি গবেষণা উঠে এলো।

হংকংয়ের বিজ্ঞানীদের গবেষণায় এসেছে, টাকার নোটে এক দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে করোনাভাইরাস। এমনকি ব্যাংক থেকে আসা নতুন টাকাতেও একদিন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের বেঁচে থাকার সম্ভবনা বেশি। অন্যদিকে, মাস্কে ৭ দিন পর্যন্ত করোনাভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে। গবেষণায় আরও জানিয়েছে, করোনাভাইরাস কাপড়ে সেভাবে বাঁচে না। তবে, কাপড় পরিষ্কার রাখা ও ধুয়ে রাখা জরুরি। বাইরে থেকে ঘরে এসে আগে কোথাও না বসে কিংবা কোনও কিছু স্পর্শ না করে আগেই গোসল করে নিতে হবে। পরনের কাপড় সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে এবং তা ৩-৪ ঘণ্টা রোদে শুকিয়ে নিতে হবে।

গবেষকদের দাবি, সিজনড কাঠের ত্বকেও সেভাবে বাঁচে না করোনা। তবে সবকিছুই নির্দিষ্ট সময় পর ধুয়ে মুছে রাখা ভালো, বলে মত দিয়েছেন হংকংয়ের বিজ্ঞানীরা।এদিকে, হংকংয়ের বিজ্ঞানীদের দাবি, টাকায় একদিন করোনাভাইরাস বাঁচলেও টিস্যু পেপারে তিন ঘণ্টার বেশি বাঁচতে পারে না কোভিড-19 রোগের ভাইরাস। এমনকি প্রিন্টেড কোনও কাগজেও ৩ ঘণ্টার বেশি করোনা বাঁচবে না বলে জানিয়েছেন হংকংয়ের বিজ্ঞানীরা।


ঢাকা, শুক্রবার, এপ্রিল ১০, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // পি ডি এই লেখাটি ৯৩৩ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন