সর্বশেষ
মঙ্গলবার ১২ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ | ২৬ মে ২০২০

প্রতিদিন ২ ঘণ্টা সাঁতরে কাজে যান তিনি

শনিবার, মে ২৩, ২০২০

67.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

লকডাউনে বন্ধ রয়েছে ফেরি পরিষেবা। কিন্তু কী উপায়? কাজে তো যেতে হবে। না হলে তো পেট চলবে না। বাধ্য হয়ে প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায় সাঁতরে হুগলি নদী পেরিয়ে কাজের জায়গায় যাতায়াত করছেন ২৮ বছর বয়েসি বাসিন্দা সঞ্জয় পাল। ভারতের নদীয়ার এক সোনার দোকানের কর্মচারী সঞ্জয় ইদানিং নদীতে সাঁতার কেটে কাজে পৌঁছে যান।

করোনাভাইরাস এবং লকডাউনের কারণে জলপথে পরিবহণ বন্ধ হয়। এর জেরেই গত ২০ দিন ধরে সাঁতরে কাজে পৌঁছচ্ছেন সঞ্জয়, নিজের ও পরিবারের পেটের তাগিদে।‘আমি মোটেই ভালো সাঁতার জানি না। কিন্তু আর কোনও উপায় নেই। তবে পাঁচ জনের পরিবারে খাবার জোগাড় করতে হুগলি নদীতে ২ ঘণ্টা সাঁতার কেটে কাজে পৌঁছাই।’ বলছিলেন সঞ্জয়।

মাসিক ১০ হাজার রুপি বেতন তার। ছুটি নিলে ওই দিনের টাকা কাটা যায়। এমন অবস্থায় হুগলি নদীতে সাঁতার ছাড়া উপায় থাকে না সঞ্জয়ের কাছে। ‘মালিক বলেছেন, ছুটি নিলে টাকা কাটবে। আগে বোট পেয়ে যেতাম। লকডাউনে তা বন্ধ। তাই সাঁতরে কাজে পৌঁছাতে হচ্ছে।’

গোটা ঘটনা জানার পর সঞ্জয়ের পাশে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে স্থানীয় তৃণমূল পঞ্চায়েত।


ঢাকা, শনিবার, মে ২৩, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // রি সু এই লেখাটি ৩০১ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন