সর্বশেষ
বুধবার ৬ই কার্তিক ১৪২৭ | ২১ অক্টোবর ২০২০

প্রতীকী সংখ্যায় মুসল্লিদের নিয়ে হজের পরিকল্পনা সৌদির

মঙ্গলবার, জুন ৯, ২০২০

kabamakka.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

এ বছর করোনা হজ পুরোপুরি বাতিল না করে বরং সীমিত মুসল্লিকে অনুমতি দেয়ার পরিকল্পনা করছে সৌদি আরব। সৌদি কর্তৃপক্ষের সূত্রের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবছর অন্তত ২৫ লাখ হজযাত্রী হজ করতে সৌদি যান। হজ ও বছরব্যাপী ওমরাহ থেকে সৌদি সরকারের বছরে আয় হয় অন্তত ১২০০ কোটি মার্কিন ডলার।

অতীতে মহামারি ও বন্যার কারণে একাধিকবার হজ বাতিল করার উদাহরণ আছে। তাই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মক হয়ে উঠায় এবারও হজ বাতিলের আশংকা দেখা দিয়েছিল। করোনার কারণে মক্কা, মদিনা, রিয়াদ সহ অনেকগুলো শহরে এপ্রিলে কারফিউ জারি করেছির সৌদি সরকার। পরে অবশ্য পুরো দেশকেই কারফিউর আওতায় আনা হয়। নিষিদ্ধ করা হয় ক্বাবা শরীফ ও মসজিদুল হারামে নামাজ পরা। তবে কিছুদিন আগে ওই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে।

তবে সৌদি আরবে করোনা পরিস্থিতির এখনো উন্নতি হয়নি। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে। তবু এরই মধ্যে ‘প্রতীকী সংখ্যায়’ মুসল্লিদের নিয়ে হজ পালনের কথা ভাবছে দেশটির সরকার।

এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে হজ পালিত হলেও তাতে নামমাত্র কিছু মুসল্লী অংশ নিতে পারবেন। বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে হজের জন্য নিবন্ধন করা মুসল্লীদের বড় অংশই এবার হজে অংশ নিতে পারবেন না।

জানা গেছে, হজ পালিত হলেও তাতে অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে থাকবে কঠোর শর্ত। বয়স্ক ও কিছুটা অসুস্থ ব্যক্তিদের হজের জন্য অনুমতি দেওয়া হবে না। সবাইকে বাড়তি স্বাস্থ্য পরীক্ষার মধ্য দিয়ে যেতে হবে।

হজ ও ওমরাহ সৌদি আরবের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের ব্যাপক মূল্য পতনের কারণে হজ খাতের আয় আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে দেশটির জন্য। তাই করোনার বিস্তারের মুখেও দেশটি হজ বাতিলের সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। কিন্তু অবস্থার বেশি অবনতি ঘটায় এখন বেশি মানুষের পরিবর্তে সীমিত সংখ্যক মুসল্লী নিয়ে হজ পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ভাবছে সরকার।


ঢাকা, মঙ্গলবার, জুন ৯, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // রি সু এই লেখাটি ৬৭৪ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন