সর্বশেষ
রবিবার ১৯শে আষাঢ় ১৪২৯ | ০৩ জুলাই ২০২২

নোয়াখালীতে গৃহবধূকে নির্যাতন: আরও ২ জন গ্রেপ্তার

মঙ্গলবার, অক্টোবর ৬, ২০২০

Jail.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টা ও শ্লীলতাহানি করে ভিডিও ধারণের পর তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ আরো দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য সোহাগ ও একই ইউনিয়নের পূর্ব একলাশপুর গ্রামের নোয়াব আলী ব্যাপারী বাড়ির লোকমান মিয়ার ছেলে সাজু (২১)।

আজ (৬ অক্টোবর) বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশীদ চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে দুটি মামলায় পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া মো. রহিম ও রহমত উল্লাহকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিন করে মোট ছয় দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এ ছাড়া ঢাকার কামরাঙ্গীরচর থেকে গ্রেপ্তার হওয়া মামলার ১ নম্বর আসামি বাদলকে গতকাল রাতে বেগমগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করেছে র‍্যাব-১১-এর সদস্যরা। বাদল, সাজু ও সোহাগকে আজ আদালতে তোলা হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়নে অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়া হয় বলে ভুক্তভোগী নারী (৩৭) মামলার এজাহারে উল্লেখ করেছেন। ঘটনার ৩২ দিন পর গত রোববার ওই নারী বেগমগঞ্জ থানায় দুটি মামলা করেন। একটি মামলা করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে, অন্যটি পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে। দুই মামলাতেই নয়জনকে আসামি করা হয়েছে। এরা হলেন- বাদল, মো. রহিম, আবুল কালাম, ইস্রাফিল হোসেন, সাজু, সামছুদ্দিন সুমন, আবদুর রব, আরিফ ও রহমত উল্যা। তাঁদের সবার বাড়ি বেগমগঞ্জে। তাঁরা সবাই একলাশপুরের দেলোয়ার বাহিনীর সদস্য। মামলায় দেলোয়ারের নাম নেই। তবে দুটি মামলায় অজ্ঞাতনামা সাত-আটজনকে আসামি করা হয়েছে।

 


ঢাকা, মঙ্গলবার, অক্টোবর ৬, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // উ জ এই লেখাটি ১৫৬৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন