সর্বশেষ
মঙ্গলবার ১৮ই ফাল্গুন ১৪২৭ | ০২ মার্চ ২০২১

আওয়ামী লীগ গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে পেরেছে বলেই মানুষ এর সুফল পাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

বুধবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০২০

25.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ দেশে গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা ফিরিয়ে আনার মাধ্যমে জনগণের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করেছে বলেই দেশ উন্নয়নের ধারায় ফিরতে পেরেছে এবং জনগণ তার সুফল পাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনতার ক্ষমতা জনতার হাতে আমরা ফিরিয়ে দিতে পেরেছি। তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার তাদের হাতেই আমরা ফিরিয়ে দিয়েছি, যার ফলে আমাদের উন্নয়নের গতিধারা যথেষ্ট সচল হয়েছে। সাধারণ মানুষ, গ্রামের মানুষ তার সুফল পাচ্ছে। সেটাই হচ্ছে সব থেকে বড় কথা।’

শেখ হাসিনা বলেন, ’৭৫-এ জাতির পিতাকে হত্যার পর বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা ছিল না, হত্যা, ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু হয়েছিল। একের পর এক সামরিক শাসকরা ক্ষমতায় এসেছে, ক্ষমতাটা ঐ ক্যান্টনমেন্টের ভেতরেই বন্দি ছিল। যে কারণে উন্নয়নের গতিধারাটা অব্যাহত থাকেনি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় দেয়া প্রারম্ভিক ভাষণে একথা বলেন।
২৯ ডিসেম্বর সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শেরে বাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (২০২১-২০২৫) প্রণয়নে অনুষ্ঠিত এনইসি’র সভায় তিনি ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন।
শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতার যে লক্ষ্য ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার, সে লক্ষ্য নিয়েই তাঁর সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং বিশ্বের দরবারে আজ বাংলাদেশ মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছে। অথচ এক সময় বাংলাদেশ বললে লোকজন এমন একটা ভাব দেখাতো যে এই বাংলাদেশ যেন সবার কাছে হাত পেতেই চলে। বঙ্গবন্ধু কন্যা আরো বলেন, ‘যদিও তখন আমি বিরোধী দলে ছিলাম তবুও সেটা আমার আত্মসম্মানে বাঁধতো, কষ্ট লাগতো। কেননা, সারাটা জীবন জাতির পিতা সংগ্রাম করেছেন, কষ্ট করেছেন। লাখো শহীদ রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা এনেছেন, সেই স্বাধীন দেশকে কেউ এ রকম অবহেলার চোখে দেখলে সেটা আমাদের জন্য লজ্জাজনক।’

তিনি এ সময় আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে দেশ সেবার সুযোগ প্রদানে দেশের জনগণের প্রতি পুনরায় কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমি কৃতজ্ঞতা জানাই বাংলাদেশের জনগণের প্রতি, কেননা, তারা আমাদের প্রতি আস্থা ও বিশ^াস রেখেছে। তারা পরপর তিনবার আমাদেরকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে বলেই আমরা দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে পেরেছি।’

তিনি বলেন, আমরা যেমন পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা নিয়েছি তেমনি ২০১০ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ১০ বছর মেয়াদি প্রেক্ষিত পরিকল্পনাও বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করি। পরবর্তীতে তাঁর সরকার ২০২১ থেকে ২০৪১ সাল পর্যন্ত পৃথক প্রেক্ষিত পরিকল্পনা এবং শতবর্ষ মেয়াদি ‘ডেল্টা পরিকল্পনা-২১০০’ প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, ২০২১ থেকে ’৪১ এই সময়ের মধ্যে দেশকে কিভাবে ধাপে ধাপে এগিয়ে নিয়ে যাব সেজন্য আরও কয়েকটি পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা আমাদের করতে হবে। যার মধ্যে আজ ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে যাচ্ছি। সরকার প্রধান আরো বলেন, ‘আমরা সরকারে থাকি বা যারাই থাকুক তারা যদি এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেন, তাহলে, বাংলাদেশকে আমরা একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে পারবো।’

তিনি বলেন, তাঁর সরকার এই ডিসেম্বরের মধ্যেই ‘৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা’ প্রণয়ন করার একটি লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিল, যাতে ২০২১ সালের শুরু থেকেই এর বাস্তবায়ন সম্ভব হয়। কারণ, এরমধ্যেই ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাটি শেষ হয়ে যাবে। ‘জাতির পিতার হাত ধরেই এদেশে পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা প্রণয়নের গোড়াপত্তন’, উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী এদেশে দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ এবং বাস্তবায়নের ইতিবৃত্ত তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা যুদ্ধ বিধ্বস্থ দেশ পুনর্গঠনকালেই যেমন দেশের সংবিধান দিয়ে যান তেমনি আইন-কানুন যথাযথভাবে তৈরী করে প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠানকে স্বাধীন দেশের উপযোগী করে গড়ে তোলার প্রচেষ্টা গ্রহণ করেন। সে সময়ই তিনি প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা গ্রহণ করেন (১৯৭৩-’৭৮) এবং জাতীয় পরিকল্পনা কমিশনও গঠন করেন।

তিনি বলেন, ‘দুর্ভাগ্য জাতির পিতা সেই পরিকল্পনা পুরো করে যেতে পারেননি, উপরন্তু তাঁকে হত্যার পর সংবিধান লঙ্ঘন করে দেশে অবৈধ ক্ষমতা দখলের পালা শুরু হয়। কার্যত পরবর্তী পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনাগুলোর আর যথাযথ বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি।’

’৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসে। কিন্তু তারা সেভাবে আর কোন পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা না নিয়ে বরং অ্যাডহক ভিত্তিতে স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনার মাধ্যমে দেশ চালায় এবং ’৯৬ সালে একুশ বছর পর ক্ষমতায় এসেই আওয়ামী লীগ আবার পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়, বলেন তিনি।
সে সময় পরিকল্পনা প্রণয়নের সহায়তাকারিদের ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা ছাড়া একটা দেশ উন্নত হতে পারে না। তাই, ’৯৬ সালে ক্ষমতায় এসেই আমরা খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে একটি পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন (’৯৭-২০০২) করে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেই।’

সরকার প্রধান বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি আবার ক্ষমতায় আসলে পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বাতিল করে স্বল্পমেয়াদি পরিকল্পনা নিতে শুরু করে। যার ফলে, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়সহ মাঝে অনেক বছর চলে গেলেও আর আর কোন পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গৃহীত হয়নি। এরপর ২০০৯ সালে সরকার গঠন করে ২০১০ সালে পুণরায় আওয়ামী লীগ সরকার ৬ষ্ঠ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গ্রহণ করে। সফলভাবে এমডিজি বাস্তবায়নের পর তাঁর সরকার জাতিসংঘ ঘোষিত ‘এসডিজি-২০৩০’ বাস্তবায়নেরও উদ্যোগ গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার প্রধান হিসেবে জাতিসংঘ ঘোষিত এমডিজি এবং এসডিজি উভয় পরিকল্পনা প্রণয়নের সময়ই তাঁর সেখানে (জাতিসংঘে) থাকার সৌভাগ্য হয়েছিল ।

তিনি বলেন, ‘এসডিজি’তে যেসব বিষয় অন্তর্ভূক্ত হয়েছে তার মধ্যে যেসব বিষয় আমাদের দেশের জন্য প্রযোজ্য সেগুলোতে গুরুত্ব দিয়েই আমাদের পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাগুলো প্রণয়ন করে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনাভাইরাস একটা সমস্যার সৃষ্টি করেছে। সেটা শুধু আমাদের নয়, সমগ্র বিশ্বব্যাপী।’
‘জাতির পিতা যে স্বল্পোন্নত দেশ রেখে যান সেখান থেকে তাঁর সরকার দেশকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে তুলে আনতে সক্ষম হয়েছে,’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব যেখানে একেবারেই থমকে গেছে সেখানে বাংলাদেশ তার অর্থনীতির গতিধারা সীমিত আকারে হলেও চলমান রাখতে পেরেছে। যদিও কাঙ্খিত ৮ দশমিক ২ ভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হয়নি, তথাপি সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অর্থনীতির চাকাটা সচল রাখা সম্ভব হয়েছে। এ জন্য তিনি সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

করোনা মহামারীর মধ্যেও অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়ন শেষ করতে পারায় সংশ্লিষ্টদেরকেও ধন্যবাদ জানান তিনি ।-বাসস


ঢাকা, বুধবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // এস বি এই লেখাটি ৩৬৫ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন