সর্বশেষ
বুধবার ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২১ নভেম্বর ২০১৮

জেনে নিন ইংল্যান্ডে উচ্চশিক্ষার প্রয়োজনীয় তথ্য

শনিবার, জুন ৬, ২০১৫

77291269_1433572304.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রথম পছন্দ ইংল্যান্ড। দেশটিতে অসংখ্য মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকার কারণে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের প্রথম পছন্দ ইংল্যান্ডের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ইংল্যান্ডে রয়েছে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় এবং অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়।

ইংল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যেসব ডিগ্রী প্রদান করা হয় সেগুলো হচ্ছে:

ব্যাচেলর ডিগ্রী, মাস্টার্স ডিগ্রী, এম.বি.এ ডিগ্রী, ডক্টরেট ডিগ্রী, হায়ার ন্যাশনাল ডিপ্লোমা, কারিগরী কোর্স, সার্টিফিকেট এবং ডিপ্লোমা কোর্স ।যেমন, পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ডিপ্লোমা (পিজি-ডিপ), পোস্ট গ্র্যাজুয়েট সার্টিফিকেট (পিজি-সার্ট) ইত্যাদি।

ইংল্যান্ডের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে দুটি সেমিস্টারে স্টুডেন্ট ভর্তি করানো হয়। আপনি এখানে দুটি সেমিস্টারের যেকোনো একটিতে ভর্তি হতে পারবেন। অটাম সেমিস্টার-সেপ্টেম্বর-জানুয়ারি এবং স্প্রিং সেমিস্টার-জানুয়ারি থেকে জুন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী:

 *   আপনি সরাসরি বিশ্ববিদ্যালয়ের এডমিশন অফিসে মেইল করে প্রয়োজনীয় তথ্য জেনে নিতে পারেন।
 *   বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে আপনি ভর্তি ফরম ডাউনলোড করে নিতে পারেন।
 *   কিছু কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে অনলাইনে ভর্তির সুযোগ।
 *   এডমিশন অফিস আপনার অনুসন্ধানের জবাবে ভর্তি এবং ভিসার জন্য কি কি ধরনের কাগজপত্র প্রয়োজন হবে তা বিস্তারিত জানিয়ে দিবে।
 *   ভর্তি প্রক্রিয়াটি অন্তত ১ বছর সময় হাতে রেখে শুরু করা উচিত। আবেদনপত্র গ্রহনের পর ৬-৮ মাসের মধ্যে কর্তৃপক্ষ তাদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

  *  সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেট এবং মার্কশীটের ইংরেজী ভার্সন
  *  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র
  *  টোফেল বা আইইএলটিএস স্কোর এর প্রমানপত্র
  *  পাসপোর্টের ফটোকপি
  *  রেফারেন্স লেটার
  *  সকল কপি একজন পাবলিক নোটারী কর্তৃক সত্যায়িত হতে হবে
  *  বিভিন্ন প্রোগ্রামে ভর্তি হওয়ার শিক্ষাগত, ভাষাগত ও অন্যান্য যোগ্যতা এবং কোর্সের মেয়াদ
    কোর্সের নাম

 প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা

 *   ব্যাচেলর কমপক্ষে ১২ বছর মেয়াদী শিক্ষা আইইএলটিএস ৬-৬.৫ ৩-৪ বছর পূর্নকালীন স্টাডি
 *   মাস্টার্স কমপক্ষে ১৬ বৎসর মেয়াদী শিক্ষা আইইএলটিএস ৬.৫-৭ ১-৩ বৎসর পূর্নকালীন স্টাডি
 *   আইন ও চিকিতৎসাবিদ্যার জন্য ৫ বছর পূর্নকালীন অধ্যায়ন প্রয়োজন।
 *   স্থাপত্যবিদ্যার জন্য প্রয়োজন ৭ বছরের পূর্নকালীন অধ্যায়ন।
 *   পি.এইচ.ডি প্রোগ্রামের জন্য ৩ থেকে ৪ বছর পূর্নকালীন অধ্যায়নের প্রয়োজন হয়।

যেসব বিষয়ে অধ্যায়ন করা যায়:

ইংল্যান্ডে অধ্যায়নের জন্য আপনি নিম্নের যেকোন বিষয় বেছে নিতে পারেন:

 *   সমাজবিজ্ঞান
 *   তত্ত্বীয় ও ফলিত বিজ্ঞান
 *   হেলথ্ এন্ড মেডিসিন
 *   আইন
 *   বিবিএ
 *   এমবিএ
 *   হোটেল ম্যানেজমেন্ট
 *   কম্পিউটিং এন্ড ম্যাথমেটিক্যাল সাইন্স
 *   ক্রিয়েটিভ আর্ট ইত্যাদি

শিক্ষার জন্য খরচ:

 *  ফাউন্ডেশন কোর্স প্রতি বছর ৪০০০ পাউন্ড থেকে ১২০০০ পাউন্ড
 *   কলা বিষয়সমূহ -প্রতি বছর ৭০০০ পাউন্ড-৯০০০ পাউন্ড
 *  বিজ্ঞান বিষয়সমূহ- প্রতি বছর ৭৫০০ পাউন্ড- ১২০০০ পাউন্ড
 *   ক্লিনিক্যাল বিষয়সমূহ- প্রতি বছর ১০০০০ পাউন্ড -২১০০০ পাউন্ড
 *  এম.বি.এ- প্রতি বছর ৪০০০ পাউন্ড -৩০০০০ পাউন্ড

কাজের সুযোগ:

ইংল্যান্ডে ছাত্রছাত্রীরা প্রতি সপ্তাহে ২০ ঘন্টা কাজ করার সুযোগ পায় এবং ছুটির দিন এই সুযোগ ৩৬ ঘন্টার জন্য। বড় বন্ধের সময় কোন বাধা-ধরা নিয়ম নেই সবসময়ই কাজ করতে পারে শিক্ষার্থীরা।

ভিসার জন্য আপনি অনলাইন আবেদন করতে পারেন অথবা বাংলাদেশে অবস্তিত ইংলেন্ড এম্বাসিতে যোগাযোগ করতে পারেন।

ঢাকা, শনিবার, জুন ৬, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // টি এ এই লেখাটি ২৫২৮ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন