সর্বশেষ
মঙ্গলবার ১০ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

রুচি ও ব্যক্তিত্ব প্রকাশে চশমা...

শনিবার, আগস্ট ১, ২০১৫

1164617421_1438404593.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
সুন্দর ফ্রেমের চশমা মানুষকে বেশ আকর্ষণীয় ও ব্যক্তিত্বসম্পন্ন করে তোলে। তাই অনেকে আত্মীয়স্বজন বা বন্ধু-বান্ধবের চশমা চোখে দিয়ে কৌতূহল নিয়ে জানতে চান কেমন লাগছে।

একেবারে প্রয়োজন না হলে শুধু ফ্যাশন হিসেবে চশমা পরেন খুব কম মানুষই। প্রয়োজনের পাশাপাশি ফ্যাশন হিসেবেই অনেকে এটিকে ব্যবহার করছেন, অনেকে আবার শুধু প্রয়োজনেই ব্যবহার করছেন। কেউ কেউ আবার চশমা জিনিসটা একেবারেই সহ্য করতে পারেন না, অনেকে জানেনও না তার চশমার প্রয়োজন আছে কি-না, যা পরবর্তী সময়ে অনেক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

আপনার চশমার প্রয়োজন আছে কি-না তা বুঝতে পারবেন আপনি নিজেই। বই-পুস্তক বা সংবাদপত্র পড়ার সময় ঝাপসা দেখলে কিংবা রাস্তায় হাঁটার সময় একটু দূর থেকে বাসের নাম্বার অথবা দোকানের সাইন বোর্ডের লেখাগুলো পরিষ্কার না দেখলে বুঝতে হবে আপনার চোখে সমস্যা আছে। আর এমন হলে দেরী না করে চক্ষু ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত।ফ্যাশনে রাখুন চশমা

বর্তমানে চশমায় এসেছে বাহারি সব ডিজাইন। কেউ বেছে নিচ্ছেন প্লাস্টিকের মোটা ফ্রেম, কেউ নিচ্ছেন চিকনের মধ্যে। কেউ কেউ আবার পছন্দ করছেন রিমলেস। তবে চশমার ফ্রেম বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে কিছু বিষয় লক্ষ্য করলে এ জিনিসটি হয়ে উঠতে পারে আপনার সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্বের প্রতীক। আর এ বিষয়টি চশমা যারা একেবারেই পছন্দ করেন না বা বাধ্য হয়েই ব্যবহার করেন তাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বত্বপূর্ণ।

চশমার ফ্রেম বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে সেটি মুখের সঙ্গে মানানসই হচ্ছে কি-না, এ ছাড়া চশমার ব্রিজ এবং গায়ের রঙের সঙ্গে ফ্রেমের রঙ যাচ্ছে কি-না এ বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখতে হবে। মুখের আকারের সঙ্গে ফ্রেমের ধরন নির্বাচনও অন্যতম বিবেচ্য বিষয়। মুখ গোলাকার হলে একটু লম্বাটে ফ্রেম হলে ভালো মানায়। এ ছাড়া আয়তকার বা কোনা একটু উঁচু ফ্রেমও ভালোই যায়। তবে যাদের মুখ কিছুটা ডিম্বাকৃতির তাদের ক্ষেত্রে যে কোনো ফ্রেমই মানিয়ে যায়। আকৃতির পাশাপাশি গায়ের রঙের সঙ্গে মানিয়ে যায় এমন ফ্রেম বেছে নিতে হবে। কেননা সুন্দর একটি ফ্রেম কিনার পর যদি সেটি গায়ের রঙের সঙ্গে না যায় তাহলে তা সৌন্দর্যতা বা ব্যক্তিত্বের ছাপ ফুটিয়ে তুলতে ব্যর্থ হয়। চশমা যখন ফ্যাশন

গায়ের রঙ ফর্সা হলে ব্যবহার করতে পারেন অপেক্ষাকৃত হালকা রঙের প্লাস্টিক ফ্রেম, তবে মেটাল ফ্রেমও বেছে নিতে পারেন। শ্যামবর্ণের ক্ষেত্রে সোনালি, রূপালি বা যে কোনো স্বচ্ছ রঙ মানাবে। এ ক্ষেত্রে বাদামি রঙটাও ভালোই মানিয়ে যায়। চশমার ওপরের অংশ যাতে ভ্রূকে আড়াল করে না দেয় আর নিচের অংশ যেন গাল না ছোঁয় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন। তাছাড়া লেন্সের মাঝ বরাবর থাকবে চোখের মণি। শুধু ফ্যাশনের কথা মাথায় রাখলে চলবে না, চশমাটি ব্যবহারযোগ্য এবং আরামদায়ক কি-না সেদিকেও দৃষ্টি দিতে হবে। আর চশমার গ্লাসটি হতে হবে চোখের জন্য শান্তিদায়ক। তাই চোখের প্রয়োজন অনুযায়ী বেছে নিতে পারেন গ্লাস। চাইলে আবার গ্লাসটি কালারও করে নিতে পারেন। তবে সেক্ষেত্রে অবশ্যই ফ্রেমের কালারের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে।

ঢাকা, শনিবার, আগস্ট ১, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // এটি এই লেখাটি ৪১৮৯ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন