সর্বশেষ
মঙ্গলবার ৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২০ নভেম্বর ২০১৮

যেভাবে প্রস্তুতি নিলে জিআরই-তে ভাল স্কোর করা সম্ভব

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৫

1833513960_1441217359.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
কি জিআরই পরীক্ষা নিয়ে ভাবছেন? ভাবছেন কি পড়বেন? কোন বই পড়লে কমন পড়বে? ভার্বালটা কঠিন মনে হয়? ভাবছেন অ্যানালিটিকাল রাইটিং এর জন্য কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন? তবে চলুন জেনে আসি কোন বই পড়বেন, কিভাবে পড়বেন। কিভাবে প্রস্তুতি নিলে জিআরই তে ভাল স্কোর করা সম্ভব হবে।


জিআরই এর পথম ধাপেই ব্যারন’স নিউ জিআরই পড়া আবশ্যক। এর কোন বিকল্প নেই। ভোকাবুলারির জন্য ওয়ার্ডস্মার্ট ফর নিউ জিআরই। নোভা জিআরই ম্যাথ বাইবেল (এই বইয়ের ম্যাথ অনুশীলন করে গেলে ভালো স্কোরের নিশ্চয়তা দেয়া যায়)। কাপলান জিআরই বা ম্যানহ্যটন ফাইভ এলবি বেশ সহায়ক হবে। আর অ্যানালিটিকাল রাইটিং এর জন্য পড়তে পারেন আরকু’স জিআরই। এই কয়টি বই আপনার জিআরই'র প্রস্তুতির জন্য যথেষ্ট। তাই মনোযোগ দিয়ে এই বইগুলোর পড়ুন। বেশি বইয়ের পিছনে অযথা সময় নষ্ট করে লাভ নেই।


ভার্বালঃ এই অংশের জন্য প্রায় সবারই প্রশ্ন ওয়ার্ড মুখস্ত করতে হবে কি না? যদিও সরাসরি অ্যান্টনিম অ্যানালজি'র মতো প্রশ্ন থাকবে না তার পরও ভোকাবুলারি মুখস্ত না করে উপায় নেই। কারণ ভোকাবুলারি স্ট্রং করে না গেলে সেন্টেন্স কমপ্লিশন, কম্প্রিহেনশন সব জায়গাতেই অপরিচিত শব্দের বাহার দেখে ভিমড়ি খেতে হবে। এজন্যে, ওয়ার্ড শেখার জন্য পড়তে পারেন ওয়ার্ড স্মার্ট ১ এবং ২। মোটামুটি এটা মুখস্ত করলেই ৯০% ওয়ার্ড কমন পাওয়ার কথা। আর যদি বেশি ওয়ার্ড মুখস্ত করেতে চান তবে ভোকাবিল্ডার মুখস্ত করতে পারেন। যাদের ওয়ার্ড মনে রাখতে কষ্ট হয় তারা এটার ভিডিও দেখে সহজে মনে রাখতে পারেন।


সেন্টেন্স ইকুইভালেন্টঃ নতুন জিআরই'র সহজ পার্ট মনে হয় এটা। একটি ব্ল্যাংকের জন্যে ৬টি থেকে উপযুক্ত ২টি ওয়ার্ড বেছে নিতে হয়। একই ব্ল্যাংকে তো ২টি সিনোনিমাস শব্দই বসার কথা। তাই আগেই অ্যানসার চয়েস থেকে সিনোনিমাস ওয়ার্ড ২টি বের করে ফেলুন এরপর প্রশ্ন দেখুন।


রিডিং কম্প্রিহিনশনঃ এই পার্টটা সকল জিআরই পরীক্ষার্থীর জন্যই অত্যন্ত কঠিন। কিন্তু তাই বলে তো ছেড়ে দেয়ার উপায় নেই! এজন্যে আসলে অনুশীলনের কোন বিকল্প নেই। অনলাইনে প্র্যাকটিসের জন্য কিছু সাইট আছে, ওখান থেকেই প্র্যাকটিস শুরু করতে পারেন কারণ পরীক্ষায় তো আপনাকে স্ক্রিনেই পড়তে হবে। বড় কমপ্রিহিনশন সমাধান করার জন্য সবচাইতে উপযুক্ত টেকনিক হচ্ছে একটানে পুরো কম্প্রিহিনশনটা পড়ে ফেলা। জিআরই পরীক্ষায় সাধারণত সরাসরি কোন প্রশ্ন থাকে না, তাই আপনাকে কম্প্রিহিনশনে ব্যাক করতে হবেনা বেশিরভাগ সময়ই। আপনি যদি মূল থিমটা বুঝে নিতে পারেন তাহলে বেশিরভাগ প্রশ্নের সঠিক উত্তর দেয়া আপনার পক্ষে সম্ভব হবে। এজন্য দ্রুত বুঝে পড়ার অভ্যাস করতে হবে। প্রচুর প্র্যাকটিসের প্রয়োজন। ৫ মিনিটের মধ্যে বড় কম্প্রিহিনশন পড়ে বুঝে ফেলতে হবে। অনেকদিন প্র্যাকটিস করলে এটা সম্ভব।


অ্যানালাইটিক্যল রাইটিং: নতুন জি আরই তে শুধুমাত্র এই অংশটাই অপরিবর্তিত আছে। তাই এটা নিয়ে নতুন করে খুব বেশি কিছু বলার নেই। আরকু'র স্যাম্পল গুলো দেখে যাবেন কিন্তু পরীক্ষায় সম্পূর্ণ নিজস্ব চিন্তাভাবনা থেকে লিখতে হবে।


কোয়ান্টিট্যাটিভঃ এই পার্টটাও অনেকটা আগের মতোই রয়ে গেছে, শুধু ২৮টার জায়গায় ২০টা প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে ৪৫ মিনিটের জায়গায় ৩০ মিনিটে। ম্যাথ এর জন্য কাপলান জিআরই, নোভার ম্যাথ বাইবেল ও ম্যনহ্যাটন ফাইভ এলবি অনুশীলন করবেন। এটাতে সহজ থেকে শুরু করে অনেক কঠিন কিছু ম্যাথও আছে। এটা অনুশীলন করলে সব লেভেলের ম্যাথ এর সাথে পরিচিত হবেন। এখনকার পরীক্ষায় অনেক কঠিন কিছু ম্যাথ আসে। ম্যাথ পার্টের মধ্যে সবচাইতে কনফিউজিং হচ্ছে কম্পারিজন গুলো। প্রচুর প্র্যাকটিস করুন আর উত্তর করার আগে নানা ভাবে মান বসিয়ে চেক করে নিবেন। এছাড়া আর যেটা কঠিন আসে তা হচ্ছে ডাটা ইন্টারপ্রিটেশন।


পরীক্ষায় বাইরে থেকে ক্যালকুলেটর বহন করা যাবেনা। আপনি যে পিসিতে পরীক্ষা দিবেন সেই পিসির স্ক্রিনে আপনাকে একটি অ্যানালগ ক্যালকুলেটর দেয়া থাকবে। যা দিয়ে আপনি সাধারন গুণ ভাগ করতে পারবেন।


নতুন জিআরই'র সবচাইতে বড় পেইন হচ্ছে ২টা করে সেট উত্তর করা। একটা করে সেট উত্তর করার পর শক্তি বা মানসিক অবস্থা কোনটাই থাকে না। এসময় ১০ মিনিটের একটা ব্রেক পাবেন। এই ব্রেকটাকে ভালোমতো কাজে লাগাতে হবে।


তো আর কি? ঝটপট শুরু করে দিন জিআরই প্রস্তুতি।

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // উ জ এই লেখাটি ৩৯৬৪ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন