সর্বশেষ
রবিবার ৪ঠা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৮ নভেম্বর ২০১৮

শুভ শুভ জন্মদিন হেডি ল্যামার

সোমবার, নভেম্বর ৯, ২০১৫

1686203713_1447042091.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
হেডি ল্যামার একজন অস্ট্রিয়ান ও আমেরিকান অভিনেত্রী এবং উদ্ভাবক। তার জন্ম ৯ নভেম্বর, ১৯১৪ সালে। ১৯৪২ সালে ফ্রিকুয়েন্সি হপিং টেকনোলজি আবিষ্কারের জন্য প্যাটেন্ট পান তিনি।

আজকের গুগল ডুডল তার স্মরণে তৈরি করা হয়েছে।

তার আবিস্কারের ঘটনার শুরুটা এরকম- জর্জ অ্যান্থল নামে এক কম্পোজারের সঙ্গে একটি পার্টিতে নাচছিলেন তিনি। ট্যাঙ্গো ডান্সে একজন পুরুষ অন্যজনের সাথে ডান্স পার্টনার বদল করতে থাকে। এক পর্যায়ে হেডি ল্যামার লক্ষ্য করেন, তার স্বামীকে তিনি খুঁজে পাচ্ছেন না!

তিনি এই আইডিয়া পিয়ানোর ৮৮ টি সাদাকালো কী এ প্রয়োগ করে দেখান, ট্রান্সমিশন ফ্রিকুয়েন্সি এলোমেলোভাবে পরিবর্তন হতে থাকলে শত্রুপক্ষ এটা তো খুঁজে পাবেই না, জ্যামিং তো দূরের কথা!

এই আইডিয়া তিনি রেডিও ফ্রিকুয়েন্সিতে কাজে লাগান ও রেডিও জ্যামিং প্রতিরোধ করার প্রযুক্তির প্যাটেন্ট নেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে তার প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয়নি ও পরের বছরগুলোতেও তার প্রযুক্তির কার্যকারিতা বুঝতে মানুষ ব্যর্থ হয়। ফলে হেডি ল্যামার আর এই প্রযুক্তির প্যাটেন্ট রিনিউ করেন নাই।

১৯৬২ সালে রাডার এর উন্নতির পরে আমেরিকা কিউবান মিসাইল ক্রাইসিসের সময় টর্পেডোর রেডিও কন্ট্রোলিং এর সময় এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে শত্রুপক্ষের জ্যামিং প্রতিরোধ করে।

পরে নব্বইয়ের দশকে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে CDMA, Bluetooth, Spread-Spectrum প্রযুক্তি তৈরি করা হয়। ২০০১ সালে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে WiFi তৈরি করা হয়।

১৯৯৭ সালে হেডি ল্যামার Electronic Frontier Foundation থেকে পুরষ্কার পান। ২০১৪ সালে তাদের নাম ইনভেন্টরস হল অফ ফেমে যুক্ত করা হয়।

ল্যামারের জন্মভূমি অস্ট্রিয়ার ভিয়েনাতে। হলিউডে আসার আগে তার বহুল বিতর্কিত এবং দারুণভাবে সফল চেকস্লভাকিয়ান ছবি ‘এক্সট্যাসি’ মুক্তি পেয়েছে ১৯৩৩-এ। ল্যামারের বয়স তখন সবে আঠারো।

ওই বছরের শেষের দিকে তার বিয়ে হলো অস্ট্রিয়ার কোটিপতি আন্তর্জাতিক যুদ্ধাস্ত্র ম্যানুফ্যাকচারার ও বিক্রেতা ফ্রেড্রিক মান্ডালের সঙ্গে।

হলিউডে যখন অভিনয় জীবন শুরু করছে হেডি ল্যামার, তখন সে চব্বিশ।

বিয়ের পরেই সিনেমার সঙ্গে সব রকম সম্পর্ক ছিন্ন করে দেওয়া হয় ল্যামারের। শুধু তাই নয়। কার্যত তাকে একরকম গৃহবন্দি করে রাখা হলো মান্ডালের রাজপ্রাসাদের মতন বাড়ির মধ্যে। তবে হেডির বুদ্ধিমত্তা এবং নানান সহজাত দক্ষতা সম্পর্কে মান্ডাল বুঝেছিল। তাই ব্যবসা সংক্রান্ত যে-কোনো আলোচনা এবং বিজনেস মিটিঙে পাশে রাখত সুন্দরী স্ত্রীকে। মাঝেমধ্যেই রাজকীয় খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন হতো সেই বাড়িতে। স্ত্রী ল্যামারের উপস্থিতি যে-কোনও প্রোগ্রামেই অন্য এক মাত্রা যুক্ত করতে পারত, এ কথা বিলক্ষণ বুঝেছিল মান্ডাল।

বিয়ের কিছুদিনের মধ্যেই ল্যামার বুঝে যায় যে গভীর এক ফাঁদে পড়েছে সে। যে অস্ত্র ফ্যাসিস্ট নাৎসি বাহিনীরা তার স্বামীর কাছ থেকে কিনে নিয়ে যায়, সেগুলি তার মাতৃভূমি আর স্বজাতির বিরুদ্ধেই প্রয়োগ করা হবে। সব জেনে-বুঝেও হাসি মুখে স্বামীর পাশে পাশে থাকে ল্যামার। তাদের বাড়িতে ব্যবসায়িক ডিনারে যারা আমন্ত্রিত হয়ে আসে তারা প্রত্যেকেই সে সময়ের নামজাদা বিশিষ্ট সব মানুষজন। ইতালি ও জার্মানির মিলিটারি বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তিবিদ, অস্ত্র-বিশেষজ্ঞ, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। এমনকী বেশ কয়েকবারই সেখানে উপস্থিত থেকেছে হিটলার এবং মুসোলিনি।

ল্যামারের জন্য ছিল একজন সর্বক্ষণের পরিচারিকা। কয়েক মাস আগেই নতুন যে একজন পরিচারিকা নিযুক্ত হয়েছে, তার মুখশ্রীর সঙ্গে ল্যামারের মুখশ্রীর ছিল অনেক মিল ছিল। আর নতুন এই পরিচারিকাকে নির্বাচন তো করেছে হেডি নিজেই।

সেদিন পরিচারিকার খাবারে ওষুধ মিশিয়ে তাকে আচ্ছন্ন করে তার নিজের পোশাক পরিচারিকাকে পরিয়ে দেয়। নিজে পরে নেয় পরিচারিকার পোশাক। তারপর পাহারাদারদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে ধীর পায়ে বেরিয়ে আসে ল্যামার, শেষ বারের মতন তার প্রথম স্বামীর বাড়ি থেকে।

প্রথমে প্যারিস, তারপর লন্ডন। সৌভাগ্যক্রমে হলিউডের একজন নামকরা ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয় হল প্যারিসে। নাম পরিবর্তন করতে হলো লন্ডনে। ‘হেডউইগ এভা মেরিয়া কেজলার’ থেকে ‘হেডি ল্যামার’। পরে ওই ব্যক্তির সহযোগিতায় হলিউডে পৌঁছায় ল্যামার।

পালিয়ে আসার সময় বেশ কিছু গয়না ভেতরে পরে এসেছিল ল্যামার। যা বিক্রি করে একবার হলিউড আসার জাহাজ ভাড়া হয়ে যায়।

হলিউডে নামকরা এমজিএম ফিল্মের সঙ্গে সাত বছরের চুক্তি হয় ল্যামারের। সপ্তাহে তিন হাজার ডলার মাইনে।

আজ তার ১০১তম জন্মদিন। শুভ শুভ জন্মদিন হেডি ল্যামার।

ঢাকা, সোমবার, নভেম্বর ৯, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // আর এস এই লেখাটি ৮৪৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন