সর্বশেষ
বুধবার ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ২১ নভেম্বর ২০১৮

‘চোখের পানি ফেলা ছাড়া আর কিছুই করার নেই’

সোমবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৫

642190819_1448275183.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী নাজমুন মুনির ন্যান্সি। নিজের ক্যারিয়ারে অনেক জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন তিনি। বিশেষ করে চলচ্চিত্রে ধারাবাহিকভাবে শ্রোতাপ্রিয় গান তার কন্ঠে পাওয়া গেছে। প্লেব্যাক ও অ্যালবামের বাইরেও নিয়মিত তিনি স্টেজ শো করছেন। এরই মধ্যে শুরু করেছেন নিজের নতুন একক অ্যালবামের কাজ। তাছাড়া কয়েকটি ছবির গানে কন্ঠ দেয়া নিয়েও ব্যস্ত রয়েছেন তিনি। নিজের বর্তমান ব্যস্ততা ও গানের নানা বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন ন্যান্সি। তার সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন ফয়সাল রাব্বিকীন।

কি অবস্থা? কেমন আছেন? কোথায় আছেন?
এইতো ভালো আছি। এখন ঢাকাতেই আছি। কারণ আজ সন্ধ্যায় বসুন্ধরা কনভেনশন সিটিতে শো রয়েছে। এই শো এর জন্য প্র্যাকটিস নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম।

এই শোতে ভারতের অনুপম রায়ও গান গাইছেন। প্রস্তুতি কেমন?
সব সময় যে রকম প্রস্তুতি থাকে সেরকমটাই নিয়েছি। জনপ্রিয় গানগুলোই এখানে গাইব। আশা করছি ভালো একটি শো হবে।

অন্তর শোবিজের আয়োজনে ‘দুই বাংলার কনসার্ট’ শীর্ষক এ শো-এর পোস্টারে অনুপম রায়ের ছবি বড় করে দেয়া রয়েছে, আর দেশীয় শিল্পীদের ছবি ছোট। বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পোস্টারেও দেশীয় শিল্পীদের তুলনায় ভারতীয় শিল্পীদের ছবি অনেক বড় করে দেয়া হয়েছিল। এ সম্পর্কে একজন শিল্পী হিসেবে আপনার অভিমত কি?

এর মাধ্যমে আমরা নিজেদের দেশকে নিজেরাই ছোট করছি। পোস্টারে কেন ছোট বড় ছবি দেয়া হচ্ছে সেটা আমার বোধগম্য নয়। কারণ ভারত থেকে যিনি আসছেন তিনিও শিল্পী, আমাদের এখান থেকে যিনি গাইছেন তিনিও শিল্পী। দুই জনেরই সম্মান রয়েছে। আমার শোটির কথা বাদই দিলাম। বিপিএলের যে উদ্বোধন হলো, সেখানে পোস্টারে মমতাজ আপা, এলআরবির মতো ব্যান্ডের নাম ও ছবি ছোট করে দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশীয় শিল্পীদের অসম্মান করা হচ্ছে। বাচ্চু ভাই, মমতাজ আপাদের মতো শিল্পীদের দেখলে মাথা নুইয়ে আসে। তাদের মতো গুণী শিল্পীদের অসম্মানতো মেনে নেয়া যায় না। একজন শিল্পী হিসেবে নিন্দা জানানো অথবা চোখের পানি ফেলা ছাড়া অবশ্য এ বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই। বিদেশি একজন শিল্পীকে আমরা সাদরে বরণ করতে চাই। কিন্তু তার বিনিময়ে আমরা দেশকে ছোট করতে চাই না। আমার দেশের সম্মান আমার কাছে সবচেয়ে বড়।

তাহলে এর প্রতিবাদ কেন করছে না শিল্পীরা?
নিজ নিজ জায়গা থেকে এসবের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা উচিত, কথা বলা উচিত। যেমন সম্প্রতি ‘আশিকি’ ছবির জন্য একটি গানে কনা কন্ঠ দিয়েছে। কিন্তু ভারতে যখন সেই ছবি প্রচার হয়েছে তখন ভারতের একজন শিল্পীর কন্ঠ ব্যবহার করা হয়েছে। এই বিভেদটা কেন আমি বুঝি না। আমি কিন্তু আমার তরফ থেকে এর বিরুদ্ধে জাজ মাল্টিমিডিয়ার আজিজ সাহেবের সঙ্গে কথা বলেছি। এটা হওয়া উচিত নয় বলেই আমি বলেছি। কারণ কনা এই সময়ের অন্যতম একজন শিল্পী। আর আমি নিজেও এ ছবিতে একটি গান গেয়েছিলাম। সেই গানটিতে পরবর্তীতে ভারতের একজন শিল্পীও কন্ঠ দেন। আমি সরাসরি বলেছিলাম আমার গানটি যেন ছবিতে ব্যবহার করা না হয়। তারা আমার কথা রেখে সম্মান দিয়েছেন।

আপনার দৃষ্টিতে আপনার পরবর্তী সময়ের নারী শিল্পীরা কেমন করছে?
অনেক ভালো করছে। অনেক সম্ভাবনাময়ী শিল্পী আমাদের দেশে রয়েছে। এখন আমার নামের সঙ্গে আমি মনে করি পড়শি, ঝিলিক ও পূজার নামও আসছে। ওরা অনেক ভালো গাইছে।

এখনকার ব্যস্ততা কি নিয়ে?
আমার নতুন একক অ্যালবামের কাজ শুরু করেছি। এটি আমার চতুর্থ একক। দুদিন আগেই দুটি গানে কন্ঠ দিয়েছি এ অ্যালবামের। কথা লিখেছেন আহমেদ রিজভি। সুর করেছেন নাজির মাহমুদ ও সংগীত করেছেন মুশফিক লিটু। সামনের সপ্তাহেই শফিক তুহিনের সুরে একটি গানে কন্ঠ দেয়ার কথা রয়েছে। শওকত আলী ইমন ভাইও একটি গানের সুর করছেন। আশা করছি অ্যালবামের গানগুলো শ্রোতাদের ভালো লাগবে।

পারিবারিক সহযোগিতা কেমন পাচ্ছেন?
আজকের এই ন্যান্সি হবার পেছনে আমার মায়ের ভূমিকা অনেক ছিল আজ তিনি নেই। এখন স্বামী ও দুই মেয়ে নিয়ে আমার সংসার। আমার স্বামী সব সময় আমার দিকে খেয়াল রাখেন। অনেক উৎসাহ ও সহযোগিতা তার কাছ থেকে পাই। আর আমার দুই মেয়ে রোদেলা ও নায়লা। রোদেলার সামনে পরীক্ষা শুরু হবে। ও অনেক মেধাবী ছাত্রী। সবাই ধারণা করছে ও প্রথম হবে। আমিও তাই রিস্ক নিতে চাই না। কালই ময়মনসিংহ চলে যাচ্ছি। ওর কয়েকটা পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত সেখানেই থাকব। মানবজমিন


ঢাকা, সোমবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // এম এস এই লেখাটি ১২২০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন