সর্বশেষ
রবিবার ৪ঠা অগ্রহায়ণ ১৪২৫ | ১৮ নভেম্বর ২০১৮

সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে কসমেটিক সার্জারি

বুধবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৫

1326377260_1449067053.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
নিজের সৌন্দর্য ধরে রাখা অনেকে কঠিন মনে করেন। কিন্তু নিজের ইচ্ছাশক্তিই সুন্দর হওয়ার ও সৌন্দর্য বজায় রাখার মূল রহস্য। এটা মানুষের সারাজীবনের ব্যাপার। নিজেকে সুন্দর ও আকর্ষণীয় করে তোলার আধুনিক পদ্ধতি হলো সার্জারি। তার মধ্যে রয়েছে কসমেটিক এবং প্লাস্টিক সার্জারি।

কসমেটিক সার্জারি:
মুখের গড়ন ত্রুটিপূর্ণ হলে মন খারাপ করে বসে থাকার অর্থ নেই। কসমেটিক সার্জারির মাধ্যমে আপনি এই ত্রুটি দূর করতে পারেন। এটা অনেক আধুনিক উপায়ে করা হয়। পাশ্চাত্যে কসমেটিক সার্জারি খুবই জনপ্রিয়। তবে এ সার্জারি তুলনামূলক ব্যয়বহুল।

আমাদের দেশেও কসমেটিক সার্জারির ব্যবস্থা আছে। যদি মন ঠিক করেন সার্জারি করবেন তবে প্রথমেই কয়েকটি বিষয়ের দিকে নজর রাখতে হবে। কথা বলতে হবে অভিজ্ঞ বিউটিশিয়ানের সঙ্গে যিনি আপনার মুখের ধরন ভালো বুঝবেন। তবে বিজ্ঞাপন দেখে প্রলোভনে জড়াবেন না। এখন বিজ্ঞাপন বাজারের ভিড়ে মানুষ আসল নকল বুঝতে খুব বিপাকে পড়ে যান। বিজ্ঞাপনের মিঠে কথার বুলিতে নিজেকে হারিয়ে না ফেলে কোথায় কসমেটিক সার্জারি ভালো করা হয়, আগে থেকে সেখানে খোঁজ নিয়ে যোগাযোগ করতে হবে।

অনেক সময় শিশু জন্ম নেয় মুখের মারাত্মক কিছু সমস্যা নিয়ে। যেমন অনেক শিশুর মাড়ি কাটা থাকে। এতে শিশু একটু বড় হলেই দাঁত বের হয় বাঁকা হয়ে। এ সমস্যাও কসমেটিক সার্জারির মাধ্যমে দূর করা যায়।

কসমেটিক সার্জারির ব্যাপারে অভিজ্ঞ কসমেটিক সার্জনের পরামর্শ নিয়ে তবেই সার্জারি করাবেন। মুখমণ্ডলের ছোট-বড় সব রকম ত্রুটিই কসমেটিক সার্জারির মাধ্যমে সারানো যায়। নাক নিয়ে অনেকে সমস্যায় পড়েন। সুন্দর নাক পেতে পারেন কসমেটিক সার্জারির মাধ্যমে। সার্জারি নাকের গড়ন সুন্দর করে তোলে। ত্রুটিপূর্ণ নাককে সুন্দর গড়ন দেয় এই সার্জারি। প্রসারিত চিবুক সার্জারির মাধ্যমে বড় বা ছোট করতে পারেন। অপারেশনটি একটু জটিল। তবে বেশিরভাগ কসমেটিক সার্জারি ফলদায়ক। কসমেটিক সার্জারির জন্য বেসরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কাজ করছে।

বিভিন্ন ধরনের কসমেটিক সার্জারিতে খরচের অংকটাও বিভিন্ন রকম হয়। কসমেটিক সার্জারি সেন্টারে বিভিন্ন ধরনের সার্জারির খরচ একেক রকম।

কসমেটিক সার্জারি কী কী ধরনের হতে পারে? শরীরের বিভিন্ন স্থানের ওপর ভিত্তি করে প্রচলিত কসমেটিক সার্জারিগুলোকে চার ভাগে সাজানো যেতে পারে।

১. মুখমণ্ডলের কসমেটিক সার্জারি:
    # রাইনেপ্লাস্টি - নাকের সৌন্দর্য
    # ফেসলিফট - কুঁচকে যাওয়া ত্বকের জন্য
    # থ্রেড ফেসলিফট - বিনা অপারেশনে কুঁচকে যাওয়া ত্বকের জন্য সর্বাধুনিক চিকিৎসা।
    # ব্লিফারোপ্লাস্টিক - চোখের পাতার জন্য (ব্যাগি আইস)
    # ডার্মাব্রেশন ও মাইক্রোডার্মা ব্রেশন- ব্রণ, মুখের দাগ ও সূক্ষ্ম বলিরেখার জন্য ষ চোয়াল ও চিবুকের জন্য
    # অবাঞ্ছিত তিল অপসারণ
    # ফটোথেরাপি- ব্রণ চিকিৎসার জন্য

২. স্তনের কসমেটিক সার্জারি:
    # অগমেন্টেশন ম্যামোপ্লাস্টি - ছোট স্তনকে সিলিকন ব্রেস্ট ইমপ্লান্টের মাধ্যমে বড় করা।
    # রিডাকশন ম্যামোপ্লাস্টি - অস্বাভাবিক বড় স্তনকে ছোট করে দেহের সাথে মানানসই আকার দেয়া।
    # ম্যাস্টোপেক্সি - ঝুলে যাওয়া স্তনকে সঠিক স্থানে ‘আপলিফট’ করা।

৩. পেটের জন্য:
    # লাইপোসাকশন - ছোট ছিদ্রের মাধ্যমে পেটের বাড়তি মেদ বের করে ফিগার সুন্দর করা। এই পদ্ধতিতে
      ঊরু, নিতম্ব, হাত, গলা ও পুরুষ স্তনের আকৃতিও ঠিক করে নেয়া যায়।
    # অ্যাবডোমিনোপ্লাস্টি - ঝুলে পড়া পেটের ত্বক ও বাড়তি মেদ কেটে ফেলে পুনর্গঠনের মাধ্যমে পেটের
      আকার সুন্দর করে দেয়া।

৪. অন্যান্য:
    # ব্রাকিওপ্লাস্টি - মোটা ও ঝুলে যাওয়া হাতের পুনর্গঠনের সার্জারি ঊরুর প্লাস্টিক সার্জারি।
    # থাইলিফট - ঊরুর প্লাস্টিক সার্জারি।

কসমেটিক সার্জারির ইতিহাস:
২৫০০ বছর আগে মিসরে প্রথম ডার্মাব্রেশন পদ্ধতি চালু হয়। এতে বিভিন্ন ধরনের পাথর ঘষে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ানো হতো। ২০০০ বছর আগে এই উপমহাদেশেই নাকের প্লাস্টিক সার্জারি করা হতো। দুই শ’ বছরেরও আগে শরীরের বিভিন্ন স্থান থেকে স্তনে চর্বি প্রতিস্থাপন করে এর আকৃতি সুন্দর করার চেষ্টা করা হতো। ১৯৬৩ সালে ক্লোনিন ও গেরো প্রথম সিলিকন ইমপ্লান্ট ব্যবহার করে স্তনের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেন। লাইপোসাকশন (বাড়তি মেদ বের করা) প্রথম চালু করেন ইলুজ নামে এক ফরাসি ডাক্তার ১৯৭৭ সালে। এই তালিকার আসলে কোনো শেষ নেই।

সেলিব্রেটিদের সার্জারি:
টিভির পর্দা কাঁপানো সার্জারি করা তারকারা হলেন মাইকেল জ্যাকসন, জেনিফার লোপেজ, মেগান ফক্স, জেনিফার অ্যানিস্টন, জ্যাকলিন স্মিথ, ডেমি মুর, জন রিভার্স, ডেভিড গেস্ট ইত্যাদি। হলিউডের দুনিয়ায় এদের নাম রয়েছে খ্যাতির চরম শিখরে।

সৌন্দর্যের অভিনবতায় বলিউডও পিছিয়ে নেই। জুহি চাওলা, ঐশ্বরিয়া রায় বচ্চন, কঙ্গনা রানৌতসহ অনেক খ্যাতিমান তারকা রয়েছে সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে সার্জারির খাতায়।

ঢাকা, বুধবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // কে এইচ এই লেখাটি ১১৩৬৪ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন