সর্বশেষ
মঙ্গলবার ১০ই আশ্বিন ১৪২৫ | ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

বিশ্বের বিধ্বংসী যত ভূমিকম্প

সোমবার, জানুয়ারী ৪, ২০১৬

1049526556_1451890013.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
এই বিশ্বব্রহ্মাণ্ড তার নিজস্ব গতিতে চলছে। প্রকৃতিতে চলে ভাঙা-গড়ার নিয়ম, যেখানে মানুষের কোনো হাত নেই। আবার শত চেষ্টা করেও মানুষ একে থামিয়ে দিতে পারবে না কোনোভাবেই। সে রকমই একটি প্রাকৃতিক দূর্যোগের নাম ভূমিকম্প। পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি ভূমিকম্প হয় জাপানে।

বাংলাদেশও ভূমিকম্প ঝুকির মধ্যে রয়েছে। আজ সোমবার ভোর ৫টা ৭ মিনিটে রাজধানী ঢাকাসহ কেঁপে ওঠে পুরো বাংলাদেশ। রিখটার স্কেলে এ কম্পনের মাত্রা ছিল ৬.৭। এর কেন্দ্রস্থল ছিল ভারতের মণিপুর রাজ্যের তামেনগ্লংয়ে। ভূমিকম্পে বাংলাদেশে ৩ জন ও ভারতে মারা গেছেন ৮ জন।

চলুন দেখে নেয়া যাক পৃথিবী কাঁপিয়ে তোলা কয়েকটি ভূমিকম্পের চিত্র:

চিলির ভালদিভিয়া : ৯.৫

পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে মারাত্দক ভূমিকম্প মানা হয় এটিকে। ঘটনা ১৯৬০ সালের। প্রকৃতির ভয়াবহ নির্মমতার শিকার দেশটি হচ্ছে চিলি। এ পর্যন্ত রেকর্ডকৃত ভূমিকম্পের মধ্যে সবচেয়ে তীব্র এ ভূমিকম্পটি ছিল ৯ দশমিক ৫ মাত্রার।

ভূমিকম্পটির শক্তিমত্তা ছিল প্রায় ১৭৮ গিগাট্রন। ভূমিকম্পটি ভালদিভিয়া ছাড়াও পার্শ্ববর্তী হাওয়াই দ্বীপেও আঘাত হেনেছিল। প্রাথমিক ধাক্কাতে সে সময় প্রায় ছয় হাজার মানুষ মারা যায়। আর্থিক ক্ষতি হয় এক বিলিয়ন ডলার সমপরিমাণ। পরে আঘাতপ্রাপ্ত অনেক মানুষের প্রাণহানি ঘটে।

চীনের শানসি : ৮.০

চীনের শানসি প্রদেশের এই ভূমিকম্পটি অবশ্য চিলি ভালদিভিয়ার চেয়েও অনেক বছর পুরনো। এটিকেও ইতিহাসের ভয়ঙ্কর ভূমিকম্পগুলোর একটি মানা হয়। ১৫৫৬ সালের ২৩ জানুয়ারি চীনের শানসি প্রদেশে ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। ভূমিকম্পটি মোট ৯৭টি দেশে একযোগে আঘাত হেনেছিল। বেশ কয়েকটি দেশের সমতল ভূমি প্রায় ২০ মিটার দেবে গিয়েছিল।

৮ দশমিক শূন্য মাত্রার ভূমিকম্পটির আঘাতে প্রায় সাড়ে আট লক্ষাধিক মানুষ মারা যায়। শানসি প্রদেশের মোট জনসংখ্যার ৬০ শতাংশই মারা গিয়েছিল এই ভূমিকম্পে।

সিরিয়ার আলেপ্পো : ৮.৫

ঐতিহাসিক নগরী সিরিয়ার আলেপ্পোয় ভোর হতে শুরু করেছে। ঠিক তখনই ৮ দশমিক ৫ মাত্রার একটি ভূমিকম্প প্রায় তিন গিগাট্রন শক্তি নিয়ে নাড়িয়ে দেয় আলেপ্পোকে। ভূমিকম্পের ইতিহাসে এই ভূমিকম্পটিকে বলা হয় চতুর্থ ভয়ঙ্কর দুর্যোগ। ওই ভূমিকম্পে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ মারা যায় এবং গোটা একটি শহর মাটির সঙ্গে মিশে যায়। সবচেয়ে প্রাণঘাতী ব্যাপারটি হলো, আলেপ্পোর ওই সকালে একটি গির্জায় প্রাতঃকালীন প্রার্থনার সময় এক স্থানেই ৬০০ মানুষ মারা যায় ভূমিকম্পে। আর ভুমিকম্পটি হয়েছিল ১১৩৮ সালের অক্টোবর মাসের ১১ তারিখ।

চীনের তাংসান : ৮.২

১৯৭৬ সালের ২৮ জুলাই চীনের তাংসান এবং হেবেই অঞ্চলে ৮ দশমিক ২ মাত্রার এ ভূমিকম্পটি আড়াই গিগাট্রন শক্তি নিয়ে আঘাত হানে। মাত্র ১০ সেকেন্ডের ভূমিকম্পে পুরো একটি অঞ্চল ধ্বংস হয়ে যায়। ভূমিকম্পে আড়াই লাখ মানুষ মারা গেলেও পরবর্তী সময়ে চীন সরকার পূর্ণাঙ্গ মৃত্যুতালিকা প্রকাশ করলে প্রায় সাত লাখ মানুষের মৃতের তালিকা দেখা যায়।

ইরানের দামহান : ৮.০

হাতেগোনা কয়েকবার ভূমিকম্প আঘাত হানে ইরানে। এর মধ্যে একটি প্রাচীন ভূমিকম্প রেকর্ড করা হয় ইরানের দামহানে। এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৮ দশমিক শূন্য। এতে প্রায় দুই লাখ মানুষ মারা যায়। গোটা শহর ও পার্শ্ববর্তী স্থানগুলো পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায়। এই ভূমিকম্পে দামহান ও পার্শ্ববর্তী বাস্তাম নগরী মাটির সঙ্গে মিলে যায়।

ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা : ৯.১-৩

২০০৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর ভারতীয় মহাসাগরে সৃষ্ট ৯ দশমিক ১ থেকে ৯ দশমিক ৩ মাত্রার ভূমিকম্পটি ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রায় আঘাত হানে। এর শক্তি ছিল ৩২ গিগাট্রন। পার্শ্ববর্তী মালদ্বীপ এবং থাইল্যান্ডেও এ ভূমিকম্পের ধাক্কা লাগে। এতে প্রায় আড়াই লাখ মানুষ এক রাতে মারা যায়। অন্তত সাত বিলিয়ন ডলার সমপরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়। ভূমিকম্পটি আট থেকে দশ মিনিট পর্যন্ত স্থায়ী ছিল বলে জানান বিশ্লেষকরা।

জাপানের থোকো : ৯.১-৩

ভূমিকম্পের দেশ হিসাবে পরিচিত জাপান। আর সেই দেশের থোকো অঞ্চলে ২০১১ সালের ১১ মার্চ এক ভয়াবহ ভূমিকম্প আঘাত হানে। ৯ দশমিক শূন্য ৩ মাত্রার এই ভূমিকম্পে ১৫ হাজার ৮৭৮ জন মারা যায়। আহত হয় প্রায় সাড়ে ছয় হাজার মানুষ। নিখোঁজ হয় প্রায় তিন হাজার মানুষ। শহরের প্রায় দেড় লাখ বাড়ি ধ্বংস হয়ে যায়। দেশটির একটি পারমাণবিক স্থাপনা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ইতালির সিসিলি : ৭.৪

১৬৯৩ সালের ১১ জানুয়ারি ৭ দশমিক ৪ মাত্রার প্রলয়ঙ্করী ভূমিকম্পটি হঠাৎ আঘাত হানে ইতালির সিসিলিতে। ইতালি তো বটেই পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর ৭০টি শহর এতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়। এতে মারা যায় প্রায় ৬০ হাজার মানুষ। ইতালির ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে বড় ভূমিকম্প। এছাড়া ইতালির ক্যালাব্রিয়া, ইরানের রুদবার, তুরস্কের ইজমিত, জাপানের নানকাইদো এবং আজারবাইজানের শেমাখা অঞ্চলেও প্রলয়ঙ্করী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছিল। প্রতিটি ভূমিকম্পেই বিপুল সংখ্যক মানুষ নিহত ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল।

আলাস্কা : ৯.২

আলাস্কার প্রিন্স উইলিয়াম সাউন্ডে ১৯৬৪ সালে আঘাত হানা তীব্রতার দিক থেকে দ্বিতীয় এ ভূমিকম্পটি ছিল ৯.২ মাত্রার। এ ভূমিকম্পে ১২৮ জন প্রাণ হারায় এবং ৩১১ মিলিয়ন ইউএস ডলার মূল্যের ক্ষতি হয়। ৩ মিনিটব্যাপী এ কম্পনের ফলে বিভিন্ন শহরে ব্যাপক ক্ষতির শিকার হয়।

এছাড়াও আলাস্কার রেট দ্বীপে ১৯৬৫ সালে ৮.৭ মাত্রার ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট ৩০ ফুটেরও বেশি উচ্চতাসম্পন্ন সুনামি হয়েছিল। তবে দূরবর্তী স্থানের জন্য ক্ষতির পরিমাণ অনেক কম ছিল।

ইকুয়েডর : ৮.৮

১৯০৬ সালে ইকুয়েডর এবং কলম্বিয়ার উপকূলে ৮.৮ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছিল। এ ভূমিকম্পে সৃষ্ট সুনামিতে ৫০০ থেকে ১ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল।

আসাম-তিব্বত : ৮.৬

১৯৫০ সালে ৮.৬ মাত্রার ভূমিকম্পে ভারতের পূর্ব তিব্বত এবং আসামে কমপক্ষে ১ হাজার ৫০০ মানুষ নিহত হয়েছিল। এই ভূমিকম্প চীনের সিচুয়ান এবং ইউনান প্রদেশ এবং ভারতের কলকাতায়ও আঘাত হেনেছিল।

চিলির মাউলি : ৮.৮

চিলির মাউলি উপকূলে ২০১০ সালে ৮.৮ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছিল। এই ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামি যা চিলির কেন্দ্রে আঘাত হানে। এর ফলে কমপক্ষে ৫০০ মানুষ প্রাণ হারায় এবং ৮ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়। কমপক্ষে ১০ লাখ ৮ হাজার মানুষ এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

ইন্দোনেশিয়া : ৮.৬

ইন্দোনেশিয়ার উত্তর সুমাত্রায় ২০০৫ সালে ৮.৬ মাত্রার ভূমিকম্পে এক হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছিল। আহত হয়েছিল শতাধিক মানুষ। এই ভূমিকম্পও ইতিহাসের ভয়াবহ ভূমিকম্পগুলোর একটি।

নেপাল: ৭.৯

২০১৫ সালের ২৫ এপ্রিল বিগত আট দশকের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প হয় নেপালে। এতে নিহতের সংখ্যা তিন হাজারের বেশি। রিখটার স্কেলে ৭ দশমিক ৯ মাত্রার ওই ভূমিকম্পে প্রচুর ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাসহ ঘরবাড়ি, দালানকোঠার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ওই ভূমিকম্প একই সঙ্গে অনুভূত হয়েছে পার্শ্ববর্তী ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভুটান ও তিব্বতে। ভারতে ৫১ জন ও তিব্বতে ১৭ জন মারা গেছেন।

ঢাকা, সোমবার, জানুয়ারী ৪, ২০১৬ (বিডিলাইভ২৪) // জে এস এই লেখাটি ৩১৪০ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন