সর্বশেষ
সোমবার ৩রা পৌষ ১৪২৫ | ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

একাবারেই ভিন্ন রূপে দেখা দিলেন শাবানা

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৫

315771332_1442508518.jpg
বিডিলাইভ ডেস্ক :
চলচ্চিত্র প্রযোজনা দিয়ে সিনেমাপাড়ায় ফেরার ঘোষণা দিলেও দেখা যায়নি তাকে। ‘মাটির ঘর’ এর মেয়েটির জন্য সামাজিক ছবি দেখার ‘অন্ধ বিশ্বাস’এ সিনেমা হলে পরিবার নিয়ে যেতেন মধ্যবিত্তশ্রেণীর দর্শকরা। সেখানেও বিরতি চলছে প্রায় একযুগ। তবুও দর্শকের ‘অবুঝ মন’ তাকে খুঁজে ফেরে।

ভাত দে, পালাবি কোথায়-এর প্রিয়মুখ শাবানা এতোদিন ধরে যেনো পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন ক্যামেরা থেকে। তবে অপেক্ষার পালা হয়তো ফুরালো বলে।

সম্প্রতি এক বিয়ের অনুষ্ঠানে 'ওয়েডিং স্টোরি'র ক্যামেরায় ফ্রেমবন্দি হলেন শাবানা, তাও একাবারে নতুন বেশে। তবে সেই সপ্রতিভ চাহনি একটুও ম্লান হয়নি। সেই প্রিয়মুখ, সেই হাসিতে আবারও দর্শকের সঙ্গে ‘মধুমিলন’ হলো পর্দার রাণী শাবানার।

১৯৬৭ থেকে পরবর্তী ৩০ বছরে জনপ্রিয় নায়িকা হিসেবে সিনেমা হলে দর্শক টেনেছেন শাবানা। কখনো সলজ্জ বধূ কিংবা সংগ্রামী নারীর বেশে। অথচ সেই প্রিয় মুখটি লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশনের জগৎ থেকে গায়েব হয়ে যান ১৯৯৭ সালে।

শাবানা মোট ১০ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। ১৯৭৭ সালে প্রথমবার পান ‘জননী’ ছবির জন্য। এরপর ১৯৮০, ১৯৮২, ১৯৮৩, ১৯৮৪, ১৯৮৭, ১৯৯০, ১৯৯১, ১৯৯৩ এবং ১৯৯৪ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার আসে তার ঘরে।

এ ছাড়া ১৯৯১ সালে প্রযোজক সমিতি পুরস্কার, ১৯৮২ ও ১৯৮৭ সালে বাচসাস পুরস্কার, ১৯৮৪ ও ১৯৮৮ সালে আর্ট ফোরাম পুরস্কার, ১৯৮৮ সালে নাট্যসভা পুরস্কার, ১৯৮৭ সালে কামরুল হাসান পুরস্কার, ১৯৮২ সালে নাট্য নিকেতন পুরস্কার, ১৯৮৫ সালে ললিতকলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৮৪ সালে সায়েন্স ক্লাব পুরস্কার, ১৯৮৯ সালে কথক একাডেমী পুরস্কার এবং জাতীয় যুব সংগঠন পুরস্কার পান তিনি।

দেশের বিভিন্ন উৎসবে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি মস্কো ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, রোমানিয়া ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালসহ বিভিন্ন উৎসবে যোগ দিয়েছিলেন শাবানা। চ্যানেল আই অনলাইন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৫ (বিডিলাইভ২৪) // কে এইচ এই লেখাটি ১১৩৩৬ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন