সর্বশেষ
শনিবার ৯ই আশ্বিন ১৪২৯ | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বাংলাদেশের চাকরিজীবীরা

বুধবার, এপ্রিল ১৫, ২০২০

4530.jpg
বিডিলাইভ রিপোর্ট :

করোনা মহামারির কারণে বিশ্বের প্রায় ২০ কোটি মানুষের চাকরিচ্যুতির আশঙ্কা।

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) একটি প্রতিবেদনে বলছে, বিভিন্ন আয়ের মানুষজন এর ফলে ক্ষতির শিকার হবে। কিন্তু সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে উচ্চ-মধ্যবিত্ত শ্রেণী। আবাসন ও খাদ্যের পাশাপাশি নির্মাণ, খুচরা বিক্রি, ব্যবসা এবং প্রশাসনিক খাতগুলো বিশেষ ঝুঁকিতে রয়েছে।

পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বলছেন, বাংলাদেশ থেকে যে তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়, তার ৬৩ শতাংশ ইউরোপে যায়, বাকি ১৫ শতাংশ যায় আমেরিকায়। বলা যায়, বেশিরভাগ যাচ্ছে, ওই দুইটি বাজারে। সেখানে ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ, মানুষজন ঘরের ভেতরে। করোনাভাইরাসের প্রভাব শুরু হওয়ার পর এখন ৩.২ বিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল হচ্ছে। তারা বলছে, হোল্ড করতে, সেটা একটা বিরাট ধাক্কা। গত বছরের মার্চ মাসের তুলনায় এবছর মার্চ মাসে রপ্তানি হয়েছে ৩০ শতাংশ কম। এপ্রিলে সম্ভাবনা রয়েছে, গত বছরের তুলনায় ৭০ শতাংশ রপ্তানি হারানো। আর এর সাথে ৪৫ লাখ চাকরি জড়িত।

ড. আহসান এইচ মনসুর বলছেন, সরকারের মাধ্যমে তারা হয়তো আগামী তিনমাস সুরক্ষা পাবেন। জুন মাস পর্যন্ত। কিন্তু এটা সাময়িক একটা ব্যবস্থা। এরপরে কী হবে? ব্যবসা করতে না পারলে কোম্পানিগুলো কর্মী রাখবে কেমন করে? 

বাংলাদেশের গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র বলেছে, শতাধিক কারখানায় কর্মী ছাটাই করা হয়েছে।

করোনা ভাইরাস জনিত পরিস্থিতিতে ২৬শে মার্চ থেকে বাংলাদেশে যে অঘোষিত লকডাউন শুরু হয়েছে, এর ফলে যারা হোটেল-রেস্তোরা, নির্মাণ খাতের মতো অনানুষ্ঠানিক খাতে কাজ করেন, সেসব খাতে শ্রমিকরা দীর্ঘদিন বেকার বসে রয়েছেন। অনেকেই বেতন ভাতা পাচ্ছেন না। আর্থিক কারণে এরকম কোন প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেলে তখন সেটির শ্রমিকরা সেখান থেকে কোন আর্থিক সুবিধা পান না।

এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সবচেয়ে বেশি নির্মাণ খাতের শ্রমিকরা কাজ হারাতে পারেন। এরপরেও খুচরা ব্যবসায়ের সাথে জড়িত শ্রমিকরা কাজ হারাবেন। তবে খাতভিত্তিক চিন্তা করলে হোটেল রেস্তোরা, সেবা খাতের কর্মীরা বেশি কাজ হারাতে পারেন।

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস) এর কর্মকর্তা নাজমা ইয়াসমিন জানিয়েছেন, ‘কোন জরিপ ছাড়াই আমরা দেখতে পাচ্ছি, অনানুষ্ঠানিক খাতে যারা কাজ করেন, করোনা ভাইরাসের এই পরিস্থিতিতে তারা এর মধ্যেই বসে গেছেন। ছোট ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো, যেমন পার্লার, দোকান, ইত্যাদি বন্ধ হয়ে আছে। সেখানে একজন দুইজন করে যারা কাজ করেন, তাদের চাকরিও ঝুঁকির মধ্যে পড়ে গেছে।’

সোমবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক ঘোষণায় জানিয়েছেন, দিনমজুর, রিক্সা বা ভ্যান চালক, মটর শ্রমিক ও নির্মাণ শ্রমিক, পত্রিকার হকার, হোটেল শ্রমিকসহ অন্যান্য পেশার মানুষ যারা দীর্ঘ ছুটি বা আংশিক লকডাউনের ফলে কাজ হারিয়েছেন, তাদের নামের তালিকা ব্যাংক হিসাবসহ দ্রুত তৈরির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তাদের সহায়তার জন্য ৭৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।সূত্র: বিবিসি।


ঢাকা, বুধবার, এপ্রিল ১৫, ২০২০ (বিডিলাইভ২৪) // রি সু এই লেখাটি ২২৭৭ বার পড়া হয়েছে


মোবাইল থেকে খবর পড়তে অ্যাপস ডাউনলোড করুন